রাশিয়ার জ্বালানী শক্তি মন্ত্রক লিবিয়ার সঙ্গে সহযোগিতা পুনরুদ্ধারের জন্য প্রস্তাব তৈরী করা শুরু করেছে. এই সম্বন্ধে খবর দিয়েছেন মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক সহযোগিতা দপ্তরের ডিরেক্টর আলেক্সেই সুখভ.

    নতুন উদ্যোগ গুলি তৈরী করা হতে চলেছে, আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই ও তারপরে দেশের নেতৃত্বের কাছে তা উপস্থাপনা করা হবে. একই সময়ে লিবিয়াতে রাশিয়ার খনিজ তেল ও গ্যাস কোম্পানী গুলির ফিরে আসার প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গিয়েছে. জানা গিয়েছে যে, গাজপ্রম কোম্পানী ও ইতালির এনি কর্পোরেশন চুক্তি স্বাক্ষর করেছে, যার ফলে লিবিয়ার "এলিফ্যান্ট" প্রকল্পে গাজপ্রম কোম্পানী অর্ধেক ভাগ নেবে এনি কোম্পানীর সাথে.লিবিয়াতে বিশাল পরিমানে খনিজ তেল ও গ্যাসের সঞ্চয়ের প্রমাণ রয়েছে, আর প্রাথমিক ভাবে রাশিয়ার কোম্পানী গুলির এই উত্তর আফ্রিকার দেশে কাজ করার অভিজ্ঞতাও সঞ্চিত হয়েছে, বলে উল্লেখ করে আলেক্সেই সুখভ বলেছেন:

    "এই বছরের ফেব্রুয়ারী মাসের আগে বেশ কিছু রুশ কোম্পানী লিবিয়ার সহকর্মীদের সঙ্গে কাজ করেছে. এখানে কথা হচ্ছে, এর মধ্যেই দ্বিপাক্ষিক ভাবে স্বাক্ষরিত চুক্তি অনুযায়ী সেই সমস্ত কোম্পানীদের কাজ যেমন, "গাজপ্রম", "গাজপ্রম নেফত্", "তাতনেফ্ত". যথেষ্ট সক্রিয়ভাবে নিজেদের অবস্থান সব সময়েই নিয়েছে "লুক অয়েল" কোম্পানী ও এখনও নিচ্ছে. সকলেই সক্রিয়ভাবে নিজেদের লিবিয়ার জ্বালানী শক্তির বাজারে উপস্থিত করেছে. গাজপ্রম যেমন ভূমধ্যসাগরের নীচে ও একটি উপকূলবর্তী স্থলে তেলের সন্ধানের কাজ করেছে. "গাজপ্রম নেফত্" ইতালির এনি কোম্পানীর সঙ্গে সক্রিয়ভাবে সহযোগিতা করেছে ত্রিপাক্ষিক ভাবে. আর তাতনেফ্ত কোম্পানী লিবিয়াতে ১৮টি জ্বালানী কোম্পানীর সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছিল ও চারটি জায়গায় অনুসন্ধানের কাজ করছিল".

    কিন্তু চরম পরিস্থিতির কারণে এই ধরনের সহযোগিতা বন্ধ রাখতে হয়েছিল. গাদ্দাফির প্রশাসনরে পতন হয়েছে, ক্ষমতায় এসেছে অন্তর্বর্তী কালীণ জাতীয় পরিষদ আর এটা সন্দেহের সৃষ্টি করেছে যে, বিরোধীদের নতুন সরকার রাশিয়ার সঙ্গে সহযোগিতা করবে কি না. তাই কিছু বিশেষজ্ঞ মনে করেছেন যে, লিবিয়ার অর্থনীতিকে আবার পুনরুদ্ধারের কাজ করবে খনিজ গ্যাস ও তেল নিষ্কাশনের কোম্পানীরাই, প্রাথমিক ভাবে ইংল্যাণ্ড, ফ্রান্স, ইতালি ও আমেরিকার কোম্পানীরা.কিন্তু রাশিয়ার কোম্পানীরাও লিবিয়াতে ফিরে আসতে চায়, এই কথা উল্লেখ করে আলেক্সেই সুখভ বলেছেন:

    "আমরা এই ধারণা থেকে এগোচ্ছি যে, বর্তমানের লিবিয়ার সরকার রাশিয়ার সঙ্গে সহযোগিতার ক্ষেত্রে সভ্য পদক্ষেপই নেবে. তার একটি অন্যতম বিভাগ হল আগে চুক্তি করা বিষয় গুলিতে ফেরা, তাদের আবার করে বাস্তবায়ন. বোধহয় নতুন টেন্ডারও ডাকা হতে পারে, তবে আমি এখানে উল্লেখ করতে চাইব যে, আগের চুক্তি গুলিও হয়েছিল টেন্ডারের পরেই, রাশিয়ার কোম্পানী গুলির লিবিয়ার বাজার দখলের প্রচেষ্টার মধ্যেই. এই বাজারে আমাদের জন্য বিশেষ কোন ধরনের ছাড় কখনও দেওয়া হয় নি. একই সময়ে রাশিয়ার প্রতি বিশেষ কোন সম্পর্কের সম্বন্ধেও আমাদের কোন দুরাশা নেই".

    বিশেষজ্ঞদের মতে, ইরাকের খনিজ তেল ও গ্যাসের বিষয়ে পুনরুদ্ধারের অভিজ্ঞতা দেখিয়েছে যে, খুব সম্ভবতঃ লিবিয়ার বৃহত্ খনিজ তেল ও গ্যাস নিষ্কাশনের জায়গা গুলিতে কোন একটি দেশ বা কোম্পানীকে আহ্বান করা হবে না, তা সে যত বড়ই হোক. এটা করবে আন্তর্জাতিক সম্মিলিত কোম্পানী গুলিই, যেখানে দুটি বা তিনটি দেশ একত্রে কাজ করে থাকে. এখানে উদাহরণ হিসাবে রাশিয়ার লুক অয়েল কোম্পানীর কথা বলা যেতে পারে, যারা ইরাকের পশ্চিম কুর্ণা – ২ নামের বিশাল নিষ্কাশনের ক্ষেত্রে নরওয়ে দেশের স্ট্যাটঅয়েল কোম্পানীর সঙ্গে একত্রে কাজ করছে.