আগে আরব সংবাদ মাধ্যম গুলি জানিয়েছিল যে, প্রধানমন্ত্রীর পদ বর্তমানে অন্তর্বর্তী কালীণ পরিষদের নেতা মাহমুদ জিব্রাইল এর গ্রহণ করা উচিত্, কিন্তু তাঁর প্রার্থী পদকে মনোনয়ন দেওয়া হয় নি. এই পরিষদের প্রতিনিধি জানিয়েছেন যে, সিদ্ধান্ত হয়েছে মন্ত্রীসভায় পদের সংখ্যা ৩৪ থেকে কমিয়ে ২৪ করা হবে, কিন্তু কোন নির্দিষ্ট প্রার্থীর তালিকা নেওয়া হয় নি. একই সঙ্গে প্রশ্ন উঠেছে যে, সারা দেশ মুহম্মর গাদ্দাফির সেনা বাহিনী মুক্ত হওয়ার আগে নতুন প্রশাসন গঠন করা ঠিক হবে কি না. অন্তর্বর্তী কালীণ জাতীয় পরিষদ একটি দলিল তৈরী করেছে, যাতে বলা হয়েছে যে, আগামী নির্বাচন কুড়ি মাসের মধ্যেই করা হবে. একই সময়ে প্রাক্তন নেতার সেনা বাহিনীর অবশিষ্টাংশ এই পরিষদের সামরিক বাহিনীকে বানি ওয়ালিদ শহরে প্রবল প্রতিরোধের মুখে আটকে রেখেছে. বিরোধী পক্ষ রবিবারে আবারও এই এলাকা থেকে পিছু হঠতে বাধ্য হয়েছে. সির্ত ও সাবহা শহরের মতোই এই শহর গাদ্দাফির সেনা বাহিনীর শেষ দুর্গ.