বিশ্বের অর্থনীতিতে রাজনীতিজ্ঞদের দৃঢ়মন্যতার অভাব এবং পারস্পরিক আস্থার অভাব সংকটের কারন হয়ে দাঁড়িয়েছে, এই মত ব্যক্ত করেছেন ক্রিস্টিন লাগার্ড. বিশ্ব অর্থনীতির অনির্দ্ধারনের পরিস্থিতিতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নেতাদের তিনটি প্রধান সমস্যার সমাধান করার জন্যে ঐক্যবদ্ধ হওয়া উচিত. সমস্যাগুলি হচ্ছে – খুব বেশি ঋণের ভার, যা অর্থনীতির অগ্রগতি হ্রাস করে. বিশ্ব অর্থনীতির গোঁড়ায় অস্থিতিশীলতা এবং সামাজিক উত্তেজনার বৃদ্ধি. গতকাল ওয়াশিংটনে এক সাংবাদিক সম্মেলনে লাগার্ড এ কথা জানিয়েছেন. তিনি জোর দিয়ে বলেছেন, যে সংকট থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য দরকার প্রবল ইচ্ছাশক্তির. লাগার্ড বিশ্ব অর্থনীতির অগ্রগতির জন্য চারটি পথের নির্দেশ দিয়েছেন. প্রথমতঃ, দেশের স্থায়ীশীলতা এবং দেশের উপর আস্থা. একই সঙ্গে বাজেটের অতিদ্রুত সমন্বয় অর্থনীতির পক্ষে ক্ষতিকারক হতে পারে. দ্বিতীয়তঃ, আর্থিক ক্ষেত্রে সংস্কারের প্রয়োজন, বিশেষতঃ আন্তর্জাতিক কোম্পানীগুলির ওপর নজর রাখা দরকার. তৃতীয়তঃ, সরকারি থেকে বেসরকারি ক্ষেত্রে বিনিয়োগ বৃদ্ধি করা দরকার. চতুর্থতঃ, যে সব দেশে জীবনযাত্রার মান খুব নীঁচু, সেখানে পৃথক তহবিল গঠন করা প্রয়োজন – বলেছেন লাগার্ড.