ইয়ারোস্লাভল শহরে ৭ – ৮ই সেপ্টেম্বর বিশ্ব রাজনৈতিক সম্মেলন উদ্বোধনের সমস্ত শেষ আয়োজন সমাপ্ত. এই শহর এই বার নিয়ে তৃতীয় বার এত বড় মাপের আন্তর্জাতিক সম্মেলনের জায়গা হতে চলেছে. আর প্রতি বছরের সঙ্গেই ইয়ারোস্লাভল শহরের সম্মেলন আরও বেশী করে বিশেষজ্ঞ, রাজনীতিবিদ ও সারা বিশ্বে থেকেই সাংবাদিকদের জড় করতে পারছে.

    এই বছরে ইয়ারোস্লাভলের রাজনৈতিক সম্মেলন ৩৫টি দেশের ৬০০টিরও বেশী সংবাদ মাধ্যম প্রচার করবে. তিনটি বিভাগের প্রত্যেকটির পরিকল্পনা সংক্রান্ত বৈঠক ও মূল বক্তৃতা সভা ১১টি ভাষায় প্রচার করা হবে. আয়োজকেরা পরিকল্পনা করেছেন এই সম্মেলনের ভৌগলিক সামন্তকে আরও বিস্তৃত করতে, তাতে সেই সমস্ত লোকেদেরও অংশ নিতে বলে, যাঁরা নানা কারণে এখানে সশরীরে আসতে পারছেন না, - প্রতিটি বিভাগেই কয়েকটি করে মঞ্চ ভিডিও কনফারেন্স ও টেলিসেতু যোগ করেই কাজ করবে. ইয়ারোস্লাভল এই প্রথমবারই এত বড় মাপের রুশ ও আন্তর্জাতিক অনুষ্ঠান করছে না, আর এটা শহরের প্রভাবকেই প্রকট করে তোলে, ঘোষণা করেছেন ইয়ারোস্লাভল এলাকার রাজ্য পাল সের্গেই ভাখরুকভ, তিনি বলেছেন:

    "এই সম্মেলন খুবই গুরুত্বপূর্ণ. আর প্রাথমিক ভাবে আমরা আশা করছি যে, এখানে বিতর্ক হবে খুবই উচ্চ স্তরের. অংশগ্রহণকারীদের তালিকা খুবই মর্যাদা পূর্ণ. সম্মেলন রাশিয়ার রাষ্ট্রপতির উদ্যোগে হচ্ছে. সেখানে তুরস্কের রাষ্ট্রপতি আবদুল্লা গ্যুল অংশ নেবেন, বহু বিখ্যাত রাজনীতিবিদ, বিশেষজ্ঞ থাকছেন. প্রচুর সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধিরাও থাকছেন".

    গত বছরে ইয়ারোস্লাভল নিজের হাজার বছরের প্রতিষ্ঠা বছর পালন করেছে. এই শহরের ইতিহাসে এমন সব মূহুর্ত রয়েছে, যখন তা রাশিয়ার জন্য এক সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সময় হয়েছে, এই কথা উল্লেখ করে ইয়ারোস্লাভল রাষ্ট্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের ডীন ভ্লাদিমির ফেদ্যুক বলেছেন:

    "কোন এক সময়ে প্রায় ছয় মাস ইয়ারোস্লাভল ছিল রাশিয়ার রাজধানী – মাত্সান্যায়ের সময়ে (সপ্তদশ শতকের শুরুতে). মিনিন ও পঝারস্কি এই খানেই নিঝনি নভগোরদ থেকে মস্কো যাওয়ার পথে থেমে ছিলেন. এই শহরে তৈরী হয়েছিল সমগ্র রুশ ভূমির পরিচালক সভা, বিশেষ সরকার, মুদ্রা তৈরী করা হয়েছিল. ইয়ারোস্লাভলের লোকেরা খুবই গর্ব বোধ করেন যে, তাঁদের শহর রাশিয়ার রাষ্ট্র পুনর্স্থাপন প্রক্রিয়ায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছে, যা মাত্সান্যায়ের বছর গুলিতে অবলুপ্ত হতে বসেছিল. আর বর্তমানের সময় নিয়ে যা বলা যেতে পারে, তা হল – ইয়ারোস্লাভলের নতুন জনপ্রিয়তা শুধু ভৌগলিক বা অর্থনৈতিক কারণের সঙ্গেই জড়িত নয়, আর এটা এক ধরনের প্রতীক – সেই বিষয়ের প্রতীক যে, রাশিয়া মস্কো শহর ঘিরে বৃত্তাকার গাড়ীর রাস্তাতেই শেষ হয়ে যায় না. আর এমনকি সেন্ট পিটার্সবার্গ শহরকে মস্কোর সাথে জুড়ে দিলেও নয়. এটাই রাশিয়ার সবটুকু নয়. শুধুশুধুই আমাদের নেতারা বিদেশী অতিথিদের বর্তমানে দেশের সবচেয়ে দূরের জায়গা গুলিতে নিয়ে যাচ্ছেন না – খান্তি মানসিস্ক, খাবারভস্ক, যেখানে রাশিয়া – ন্যাটো জোট, রাশিয়া – ইউরোপীয় সঙ্ঘ শীর্ষবৈঠক হয়েছে".

    এখানে যোগ করব যে, ইয়ারোস্লাভলের সঙ্গে পরিচয়ের তালিকায় বিশ্ব রাজনৈতিক সম্মেলনে নানা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও থাকছে. এই সম্মেলনের অতিথিরা ও অংশগ্রহণকারীরা ঐতিহাসিক দ্রষ্টব্য স্থান গুলিতে যেতে পারবেন, আর তারই সঙ্গে রাশিয়ার বিখ্যাত দল গুলির অনুষ্ঠানও দেখতে পাবেন, এখানে "মরালনি কোডেক্স", "ব্রাভো" ও ইগর বুটম্যানের জ্যাজ- ব্যাণ্ড অনুষ্ঠান করবে.