0স্বাধীন রাষ্ট্র সমূহের

0 প্রধানদের সভা শনিবারে তাজিকিস্তানের রাজধানীতে হচ্ছে. দুশানবে শহরে দেশ গুলির নেতারা স্বাধীন রাষ্ট্র সমূহের নেতৃত্ব এই সংস্থার গত কুড়ি বছরের কাজের খতিয়ান ও আসন্ন ভবিষ্যতের লক্ষ্য সংক্রান্ত রিপোর্ট শুনবেন. দেশ গুলির নেতারা এখানে সংযুক্ত সংস্থার উন্নতির গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন গুলি নিয়ে পর্যালোচনা করবেন, বাস্তব কিছু আন্তর্জাতিক সমস্যা নিয়ে মতামত বিনিময় করবেন. ডিসেম্বর মাসে স্বাধীন রাষ্ট্র সমূহের এই সংস্থার বিংশ প্রতিষ্ঠা দিবস পালিত হবে. ঐতিহাসিক ভাবে যথেষ্ট কম সময়ের মধ্যেই এই সংস্থা সৃষ্টি হওয়া, আন্তর্দেশীয় সম্পর্ক ও সহযোগিতার সম্ভাব্য সবচেয়ে ভাল পথ খোঁজার খুবই জটিল পথ পার হয়ে এসেছে.

0স্বাধীন রাষ্ট্র সমূহের মৈত্রী সমিতি

0 তৈরী করা  - সমস্ত প্রজাতির লোকেদের জন্যই ভাল হয়েছে, এই কথা ঘোষণা করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রধান সের্গেই লাভরভ, দুশানবে শহরে এই দেশ গুলির পররাষ্ট্র মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকের শেষে. তাঁর কথামতো, "মৈত্রী সমিতির কাজের ফল খুবই দৃষ্টিপাতের উপযুক্ত হয়েছে অপরাধের মোকাবিলা, মাদক পাচার, চরম পন্থার মোকাবিলা ও সন্ত্রাসবাদের মোকাবিলার ক্ষেত্রে. শ্রম শক্তির অভিবাসনের ক্ষেত্রেও গুরুত্বপূর্ণ সাফল্য লাভ করা গিয়েছে. ভৌগলিক, ভূ রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক দিক থেকে এই অঞ্চলের জনগন একে অপরের কাছ থেকে কোথাও দূরে সরে যেতে পারবে না". আশা করা হয়েছে যে, স্বাধীন রাষ্ট্র সমূহের রাষ্ট্রপতিরা স্বাধীন রাষ্ট্রসমূহের মৈত্রী সমিতির আসন্ন বিংশতম জয়ন্তী দিবসের প্রাক্কালে সম্মিলিত ঘোষণাপত্র প্রকাশ করবেন. এই সংস্থা ১৯৯১ সালের ডিসেম্বর মাসে তৈরী হয়েছিল. তাতে একমাত্র বাল্টিক সমুদ্র তীরের রাজ্য গুলি ছাড়া প্রাক্তন সোভিয়েত দেশের সমস্ত রাজ্য গুলিই অংশ নিয়েছিল. ২০০৯ সালে জর্জিয়া এই সংস্থা থেকে বেরিয়ে গিয়েছে আর এই সমিতিতে বর্তমানে ১১টি দেশ সদস্য হয়ে রয়েছে.