ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হচ্ছে “লিবিয়ার মিত্র” নামে আন্তর্জাতিক সম্মেলন, যাতে অংশগ্রহণ করবে ৬০টিরও বেশি দেশের প্রতিনিধি. এ সম্মেলনে সর্বপ্রথমে আলোচিত হবে কর্নেল মুয়ম্মর গদ্দাফির শাসনের পতনের পরে লিবিয়ার ভবিষ্যত্. সম্মেলন শুরু হওয়ার আগে ফ্রান্স ঘোষণা করেছে যে, বিশ্ব জনসমাজের সর্বপ্রথম কর্তব্য হল লিবিয়াকে দ্বিতীয় ইরাক অথবা আফগানিস্তানে পরিণত হতে না দেওয়া. সম্মেলনে আলোচিতব্য আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হবে লিবিয়া সরকারের অ্যাকাউন্টগুলি কার্যকরী করে তোলা এবং তা অন্তর্বর্তী জাতীয় পরিষদকে হস্তান্তর করা, যা গদ্দাফির উত্খাতের পরে শাসন ক্ষমতা দখল করেছে. এ সম্মেলনে লিবিয়াকে তত্পর মানবতাবাদী সাহায্যের প্রশ্নও উথ্থাপিত হবে, যেখানে এখন পানীয় জল, জ্বালানী ও ওষুধপত্রের তীব্র অভাব অনুভূত হচ্ছে. তাছাড়া, ভাবী গণতান্ত্রিক নির্বাচন আয়োজনে লিবিয়াকে আন্তর্জাতিক জনসমাজের সাহায্যের প্রশ্ন আলোচনা করারও পরিকল্পনা আছে. এ সম্মেলনে রাশিয়াও অংশগ্রহণ করবে. রাশিয়া প্যারিস সম্মেলনে লিবিয়ার নতুন রাষ্ট্রীয় সত্ত্বা গঠনের প্রক্রিয়া সম্পর্কে নিজের দৃষ্টিভঙ্গী পেশ করবে. চীন এ সম্মেলনে পর্যবেক্ষকের ভূমিকায় অংশগ্রহণ করবে.