রাশিয়ার উপ পররাষ্ট্র মন্ত্রী মিখাইল বগদানোভ দামাস্কাসে সিরিয়ার নেতা বাশার আসাদকে রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভের বাণী পৌঁছে দিয়েছেন. রাশিয়ার কূটনীতিজ্ঞ সিরিয়ার রাজধানীতে গিয়েছেন রাষ্ট্রপতির ব্যক্তিগত দূত হিসাবে. ক্রেমলিনের তথ্য দপ্তর থেকে বলা হয়েছে যে, রাশিয়ার পক্ষ থেকে বিশেষ করে জোর দেওয়া হয়েছে অবিলম্বে সম্পূর্ণ ভাবে হিংসা শক্তি প্রয়োগ যে কোন তরফের পক্ষ থেকেই বন্ধ করার.

রাশিয়ার রাষ্ট্রপতির প্রতিনিধি সিরিয়ার প্রশাসনকে দেশের নেতৃত্বের ঘোষিত সংশোধন বাস্তবায়নের জন্য নির্দিষ্ট পদক্ষেপ গ্রহণ করতে আহ্বান করেছেন. একই সঙ্গে উল্লেখ করা হয়েছিল যে, বিরোধী পক্ষের প্রশাসনের প্রস্তাবিত আলোচনা এড়িয়ে যাওয়া উচিত নয়. একমাত্র এই ভাবেই সামাজিক শান্তি ও ঐক্যমত ফিরিয়ে আনা সম্ভব হতে পারে, এই কথা মনে করা হয়েছে ক্রেমলিনে. সিরিয়াতে ঘোষিত রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সংশোধনের লক্ষ্যের সমর্থনে মস্কোর সায় প্রকাশ করা হয়েছে.

সিরিয়ার রাষ্ট্রপতি বাশার আসাদ মিখাইল বগদানোভ এর সঙ্গে আলোচনার পরে রাশিয়ার পদক্ষেপকে উল্লেখ করেছেন ভারসাম্য যুক্ত বলে ও তা পশ্চিমের থেকে আলাদা বলে, যেখানে চাপ দেওয়া হয়েছে সিরিয়ার নেতৃত্বের উপরেই. দিমিত্রি মেদভেদেভের বক্তব্য রাশিয়ার রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদে প্রস্তাবিত সিদ্ধান্তের ভিত্তি হয়েছে. এই প্রস্তাবের স্বপক্ষে ইতিবাচক মূল্যায়ণ ইতিমধ্যেই প্রকাশ করেছেন ব্রিকস সংগঠনের বাকী চারটি দেশ – চিন, ভারত, ব্রাজিল ও দক্ষিণ আফ্রিকা. মস্কোর কূটনৈতিক উদ্যোগ পশ্চিমের সিদ্ধান্তের এক ব্যতিক্রম. রাশিয়ার পক্ষ থেকে রাষ্ট্রসঙ্ঘে স্থায়ী প্রতিনিধি ভিতালি চুরকিনের কথামতো, পশ্চিমের সিদ্ধান্ত একেবারেই অবাস্তব ও এক দিক দর্শী. এই ধরনের দলিল গ্রহণ করা হলে সিরিয়ার বিরোধী পক্ষের চরমপন্থী অংশকে আরও সক্রিয় ভাবে দেশের প্রশাসনের পতন করানোর জন্য উত্সাহ দেবে বলে মনে করে রুশ কূটনীতিবিদ. তিনি একই সঙ্গে উল্লেখ করেছেন যে, নিরাপত্তা পরিষদ এক ইতিবাচক পথে কাজ করতে বাধ্য. একই সঙ্গে ভিতালি চুরকিন দুটি প্রস্তাবের সমন্বয়ে কোন একক প্রস্তাব তৈরী করার সম্ভাবনাকে বাতিল করেছেন. এটা দুই বিভিন্ন গ্রহের জীবের মিলন ঘটানোর প্রচেষ্টার মতো, বলেছেন কূটনীতিবিদ. সিদ্ধান্তের ফলে আলোচনা ও রাজনৈতিক সমঝোতা গতি পাওয়া উচিত্, সিদ্ধান্তের নিষেধাজ্ঞার ভাষা দিয়ে দেশের ভিতরের বিরোধকে বাড়িয়ে দেওয়ার কোন প্রয়োজন নেই. তা স্বত্ত্বেও চুরকিন বলেছেন যে, যদি পশ্চিমের সহকর্মীদের তরফ থেকে কোন গঠন মূলক প্রস্তাব আসে, তবে আমরা তা নিজেদের প্রস্তাবে যুক্ত করতে তৈরী আছি.

মস্কোর অবস্থান সিরিয়ার সমস্যার শান্তিপূর্ণ সমাধানের দিকে. তা সক্রিয়ভাবে আলোচনা করতে আহ্বান করেছে. আন্তর্জাতিক সমাজের অবস্থানও হওয়া উচিত্ নির্দিষ্ট, যাতে লিবিয়ার ঘটনা ও সবচেয়ে খারাপ কিছু হওয়ার সম্ভাবনাকে বন্ধ করতে পারে. একই সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ হল যে, সিরিয়ার চারপাশের পরিস্থিতি, এই বিষয়ে সাবধান করে দিয়ে স্ট্র্যাটেজিক মূল্যায়ণ ও বিশ্লেষণ ইনস্টিটিউটের বিশেষজ্ঞ সের্গেই দেমিদেঙ্কো বলেছেন:

"এই সিরিয়ার খেলা নিয়ে সকলের জন্যই খুবই গুরুত্বপূর্ণ ও বিপজ্জনক বিষয় রয়েছে, আর তা বিশেষ করে ইজরায়েলের নিরাপত্তার জন্যই. কারণ যদি আসাদ প্রশাসন ভেঙে পড়ে, তবে ইজরায়েলের নিরাপত্তা প্রশ্ন হয়ে দাঁড়াবে তাদের উত্তরের অঞ্চলের জন্যই. তাই বর্তমানে খুবই মনোযোগ দেওয়া হচ্ছে এই বিষয়ে. সিরিয়ার প্রশ্নে খুবই প্রয়োজনীয় হল যে লাঠি খুব বেশী বাঁকানো যাবে না. সেখানে লিবিয়ার মতো করে কাজ করা যাবে না. খুবই সাবধান হয়ে কাজ করতে হবে, নিখুঁত ভাবে, যাতে প্রশাসনে ঐস্লামিক চরমপন্থীরা উপস্থিত না হয়".

তাই দামাস্কাসের সঙ্গে শেষ বারের মতো সাবধান করার মতো করে কথা বলা উচিত্ হবে না. প্রসঙ্গতঃ, ইউরোপীয় সঙ্ঘের পক্ষ থেকে আবারও এই ধরনের পদক্ষেপের প্রস্তুতি চলছে. ব্রাসেলসে আসন্ন কয়েক দিনের মধ্যে ঠিক করা হয়েছে সিরিয়ার খনিজ তেলের বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা গ্রহণ করার জন্য. আর এটা মনে হয়েছে যে এক ধরনের হুমকি. সিরিয়ার বর্তমানের নেতৃত্বের প্রতি কাজ ফুরিয়ে যাওয়া জিনিসের মতো করে ব্যবহার করলে চলবে না, আর তাদের সঙ্গে যে কোন ধরনের আলোচনাই বাতিল করলেও হবে না. যা প্যারিস খুবই বেশী করে করতে চাওয়া হয়েছে, যেখানে বহুদিন আগে থেকেই বিরোধী পক্ষের উপরেই নির্ভরতা দেখানো হচ্ছে. শুধু আভ্যন্তরীণ আলোচনায় বসতে বাধ্য করা ও হিংসা বন্ধ করা হল গৃহযুদ্ধের থেকে মুক্তির একমাত্র পথ.