লিবিয়া জামাহিরির নেতা মুয়াম্মর গদ্দাফি গত রাতে জাতির প্রতি রেডিওতে আবেদন করেছেন. তিনি বলেন যে, ত্রিপোলির দক্ষিণে বাব-আল-আজিজিয়া পাড়ায় বিদ্রোহীদের হাতে বাসভবন ছেড়ে দেওয়া ছিল “রণকৌশল” মাত্র, জানিয়েছে “রয়টার” সংবাদ সংস্থা. গদ্দাফি উল্লেখ করেন যে, বাব-আল-আজিজিয়ায় একসারি বাসভবন মাটির বুক থেকে মুছে গেছে ন্যাটো জোটের ৬৪টি বিমান আঘাতের পরে. তিনি তাছাড়া নাগরিকদের আহ্বান জানান আগ্রাসনের বিরুদ্ধে সংগ্রামে জয়লাভ করার অথবা মৃত্যু বরণ করার. জামাহিরি সরকারের সরকারী প্রতিনিধি মুসা ইব্রাহিম বলেন যে, গদ্দাফির বাহিনী প্রতিরোধ চালিয়ে যাবে. লিবিয়াকে পরিণত করা হবে "আগ্নেয়গিরি, লাভা ও আগুনে", বিদ্রোহীদের নেতারা ত্রিপোলিতে প্রবেশ করলে শান্তি পাবে না, বলেন কর্তৃপক্ষের প্রতিনিধি. ইব্রাহিম যোগ করে আরও বলেন যে, গদ্দাফির বাহিনী কাতারের চারজন “উচ্চপদস্থ” নাগরিককে এবং সংযুক্ত আরব এমীরতন্ত্রের একজনকে গ্রেপ্তার করেছে. সোমবার রাতে বিদ্রোহীদের বাহিনী ত্রিপোলিতে প্রবেশ করে এবং এখন তাদের কথায়, লিবিয়ার রাজধানীর বড় একটা অংশ নিয়ন্ত্রণ করছে. গদ্দাফির ভাগ্য সম্বন্ধে বিশ্বাসযোগ্য খবর এখনও নেই.