রাশিয়ার সরকার অর্থ মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবিত রাষ্ট্রীয় ঋণ সংক্রান্ত মূল নীতি সামান্য কিছু পরিবর্তন করে আগামী তিন বছরের জন্য গ্রহণ করেছে. এই সম্বন্ধে উপ অর্থ মন্ত্রী সের্গেই স্তরচাক মন্ত্রীসভার বৈঠকের পরে জানিয়েছেন.

    এই দলিলের মূখ্য বিষয় যা মন্ত্রীসভা সমর্থন করেছে এই রকমের বাজেট ঘাটতির পূরণের জন্য প্রতি দশ রুবলের নয় রুবল রাশিয়ার সরকার দেশের ভিতরেই ধার করবে. ২০১২ – ২০১৪ সালে দেশের ভিতরে ধারের পরিমান হবে দুই লক্ষ কোটি রুবল (প্রায় ছয় হাজার সাতশো কোটি ডলারের সমতূল্য) আর মাত্র কুড়ি হাজার কোটি রুবল (ছয় শো সত্তর কোটি ডলারের মত) পরিকল্পনা রয়েছে দেশের বাইরে থেকে ধার করার. এই প্রসঙ্গে ঋণের রাজনীতি বাস্তবায়িত করা হবে অর্থনৈতিক উন্নয়নের গতি বাড়ানোর সঙ্গেই, মূল্য বৃদ্ধির হার কমানো, কার্বন যৌগের দামের যত্সামান্য বৃদ্ধি ও জাতীয় মুদ্রার দামের স্থিতিশীলতা রক্ষা করে.

    এর ফলে ২০১৪ সালের মধ্যে রাশিয়ার বাজেট ঘাটতি শতকরা ২, ৭ শতাংশ থেকে কমে ২, ৩ শতাংশ হওয়ার কথা, যার ফলে সোভেরেইন ফান্ড জমা করা সম্ভব হবে. খনিজ তেল ও গ্যাস বিক্রয়ের থেকে পাওয়া অর্থ যেহেতু দেশের ভিতরের ব্যয়ের কারণে পাঠানো হবে, তার মধ্যে সামাজিক খরচে, তাই বাজেট ঘাটতির সঙ্গে লড়াই করার বিষয়ে মূল "যোদ্ধার" ভূমিকা নেবে রাষ্ট্রীয় ঋণ গ্রহণ. সরকারের সিদ্ধান্ত – আশা করা হয়েছিল ও তার একটা কারণও রয়েছে, এই কথা উল্লেখ করে "রেডিও রাশিয়া" কে দেওয়া সাক্ষাত্কারে অর্থনীতি ইনস্টিটিউটের সহকারী ডিরেক্টর দিমিত্রি সরোকিন বলেছেন:

    "প্রাথমিক ভাবে জাতীয় ঋণের পরিমান সার্বিক জাতীয় আয়ের শতকরা পনেরো শতাংশ মতো বাড়ানো হচ্ছে. এটা খুবই কম. ইউরোপীয় সঙ্ঘের দেশ গুলিতে স্বাভাবিক ধরা হয় শতকরা ষাট ভাগ পর্যন্ত. জাপানে বর্তমানে দেশের সার্বিক আয়ের দ্বিগুণ সরকারি ঋণের পরিমান. তার উপরে রাশিয়ার সোনা ও বিদেশী মুদ্রার সঞ্চয় যথেষ্ট বেশী ধরলে – বিশ্বে তৃতীয়, এটা সরকারি ঋণের স্বাভাবিক পরিমান. আর কোন ধরনের সমস্যা হওয়ারই কথা নয়. এখানে অন্য বিষয়ে কথা হতে পারে – একই সঙ্গে সরকারি ঋণের সঙ্গে আমাদের বড় কর্পোরেশন গুলির ঋণও রয়েছে, যারা ধার করেন, বন্ড পেপার প্রকাশ করেন. সেখানে ধার বাড়ছে খুবই দ্রুত গতিতে, আর কোন একটা এমন সময় হতে পারে, যখন সমস্যা হয়ে দাঁড়াবে. যখন এই কর্পোরেশন গুলি ধার শোধ দিতে পারবে না, সরকারকেই সাহায্য করতে হবে. কিন্তু এখানে শুধু একটাই সমস্যা. এই অর্থ যা ধার হিসাবে পাওয়া যেতে পারে, তা বাস্তবিক ভাবে ফল দেবে এমন ভাবেই ব্যবহার করা যাবে".

    এখানে উল্লেখ যোগ্য হল যে, মন্ত্রীসভা গৃহীত ঋণ রাজনীতি কোন অসাধারণ ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলছে না, যা আর্থ বিনিয়োগ ব্যবস্থায় কোন বিস্ফোরণ ঘটাতে পারে. বিশ্ব এর মধ্যেই দেখেছে, ধারে বাঁচা কি হয়ে দাঁড়াতে পারে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উদাহরণে. রিপাব্লিকান ও ডেমোক্র্যাটিক দলের মধ্যে ধারের পরিমান বাড়ানো নিয়ে বিতর্ক এক রাজনৈতিক প্রদর্শনীতে পরিনত হয়ে, সারা বিশ্বের বাজারকেই ঝড়ে টলিয়ে দিয়েছে ও খোদ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেই হয়েছে খুবই ভয়ঙ্কর আর্থিক সমস্যা. ফলে আমেরিকার লোকেরা পরিমান তো বাড়িয়েছে কিন্তু তত্ক্ষণাত স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড পুয়োরস্ সংস্থার কাছ থেকে পেয়েছে ঋণের ভরসা যোগ্যতার কম রেটিং. বিশ্লেষকেরা এটা ব্যাখ্যা করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাজেট ঘাটতি ও রাষ্ট্রীয় ঋণের সম্পর্কে বিপদের সঙ্গে জড়িত মূল্যায়ণ বলেই.

    মনে করিয়ে দেওয়া দরকার আজ আমেরিকার ঋণ ১৪ লক্ষ কোটি ডলারেরও বেশী, আর ২০২০ সালের মধ্যে তা ২৫ লক্ষ কোটি ডলারও হতে পারে. তুলনার জন্য জুলাই মাসের শুরুতে রাশিয়ার সোভেরেইন ঋণ ১৬ হাজার কোটি ডলারের সামান্য বেশী ছিল ও তা দেশের সার্বিক জাতীয় আয়ের শতকরা দশ ভাগ ছিল. উদাহরণ স্বরূপ, সেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেই তা সার্বিক জাতীয় আয়ের শতকরা নব্বই শতাংশেরও বেশী.

    অর্থ মন্ত্রণালয়ে মনে করা হয়েছে যে, বিশ্বের নেতৃস্থানীয় রেটিং সংস্থা গুলি রাশিয়াকে সঠিক করে মূল্যায়ণ করেই না, কারণ তারা সেই সমস্ত দেশের রেটিং বেশী করে দেখায়, যাদের আর্থ বিনিয়োগ পরিস্থিতি রাশিয়ার থেকে অনেক খারাপ. সেই কারণেই ঋণ রাজনীতির লক্ষ্য – রাশিয়ার ঋণ সংক্রান্ত রেটিং বর্তমানের "BBB" থেকে "A" করা ও সরকার ও কর্পোরেশন গুলির পক্ষে দেশের ভিতরের ও বাইরের উত্স থেকে গ্রহণ যোগ্য শর্তে ধার করার মতো পরিস্থিতি তৈরী করা.