মঙ্গলবারে সিরিয়ার বিষয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক হতে চলেছে রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে আরও একবার. প্রতিবাদকে নীরব করিয়ে দেওয়ার জন্য সিরিয়ার সরকারের নৃশংস কাজকে নিন্দা করে যে কোন সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে তার সম্ভাবনা বাদ দেওয়া যায় না.

    এই দলিল তৈরী করেছে ফ্রান্স, গ্রেট ব্রিটেন, জার্মানী ও পর্তুগাল ও তা নিরাপত্তা পরিষদের প্রথম অধিবেশনের সময়ে সোমবারে প্রচার করা হয়েছিল. এই দলিলের মর্মার্থ জানা যায় নি. নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যরা এই দলিলের বিষয়ে সোমবারে একমত হতে পারেন নি. প্রসঙ্গতঃ, শুধু জানতে পারা গিয়েছে যে, প্রতিনিধি দলের কিয়দংশ সিরিয়ার নেতৃত্বের কাজের কঠোর নিন্দা করেছে ও নতুন নিষেধাজ্ঞা জারী করা অবধি তাদের দাবী হতে পারে. এখানে উল্লেখ্য যে, ইউরোপীয় সংঘ এই পরামর্শ শুরু হওয়ার আগেই দামাস্কাস শহরের উপরে নতুন নিষেধাজ্ঞা জারী করেছে. এখন থেকে রাষ্ট্রপতি বাশার আসাদের আরও পাঁচ জন কাছের লোককে ইউরোপে প্রবেশের ভিসা দেওয়া হবে না ও তাদের ইউরোপে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট অচল করে দেওয়া হয়েছে.

    রাশিয়া এই কারণেই উদ্যোগ নিয়েছে, যাতে নিরাপত্তা পরিষদের সিরিয়ার ঘটনায় প্রতিক্রিয়া "সেখানের পরিস্থিতিকে স্বাভাবিক হতেই সাহায্য করে, কোন বিরোধ যেন আরও না বাড়ে". এই বিষয়ে রাশিয়ার পক্ষ থেকে রাষ্ট্রসংঘে স্থায়ী প্রতিনিধি ভিতালি চুরকিন এক সাংবাদিক সম্মেলনে গতকালের পরামর্শ সভা শেষ হওয়ার পরে ঘোষণা করেছেন.

    হামা শহরে সিরিয়ার সরকার এই নিয়ে তৃতীয় দিন সামরিক অপারেশন চালাচ্ছে. দামাস্কাস থেকে জোর গলায় বলা হচ্ছে যে, সেনা বাহিনী স্থানীয় জনতাকে ডাকাত ও লুঠেরা দের হাত থেকে বাঁচাতে গিয়েছে, যারা সরকারি ভবন ও পুলিশ থানা দখল করেছে এবং মানুষ জনকে বন্দী করে রেখে, বাড়ীর ছাত থেকে যে দিকে খুশী গুলি চালাচ্ছে নির্বিচারে. পশ্চিমের রাজনীতিবিদেরা বলছেন যে, এটা সেই দেশের জনগনের উপরে দেশের রাষ্ট্রপতির যুদ্ধ ঘোষণা.

    একই সময়ে সিরিয়ার এক টেলিভিশন চ্যানেলে দেখানো হয়েছে যে, সশস্ত্র বিরোধী পক্ষের লোকেরা সরকারি সেনা বাহিনীর লোকেদের গুলি করে মেরে, তাদের দেহ নদীর জলে ফেলে দিচ্ছে. তাই সিরিয়ার পরিস্থিতি নিয়ে কোন রকমের এক পক্ষের হয়ে মূল্যায়ণ করা সম্ভবপর হচ্ছে না. প্রাথমিক ভাবে বিরোধে প্রমত্ত পক্ষেরা হিংসা বন্ধ করতে বাধ্য. মস্কোর অবস্থান সম্বন্ধে রেডিও রাশিয়া কে রাশিয়া পররাষ্ট্র দপ্তরের সরকারি প্রতিনিধি আলেকজান্ডার বোলদীরেভ জানিয়েছেন:

         "শান্তি পূর্ণ জনতার বিরুদ্ধে বল প্রয়োগ যেমন খারাপ, তেমনই সরকারি দপ্তরের প্রতিনিধিদের বিরুদ্ধেও অস্ত্র ধরতে দেওয়া চলতে পারে না ও তা থামতে বাধ্য. আমরা সিরিয়ার প্রশাসনকে ও বিরোধী পক্ষকে সম্ভাব্য সব চেয়ে বেশী ধৈর্য্য ধরতে আহ্বান করছি, যে কোন ধরনের অহেতুক উত্তেজনা ও দমন থেকে নিরস্ত হতে বলেছি".

    রাষ্ট্রসংঘে রাশিয়া পক্ষ থেকে স্থায়ী প্রতিনিধি ভিতালি চুরকিন নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যদের লক্ষ্যে এই বিষয়টিকে এনেছেন যে, মস্কো নিয়মিত ভাবে দামাস্কাস শহরের সঙ্গে যোগাযোগের মধ্যে রয়েছে. নিজেদের পক্ষ থেকে বহুবার অবস্থান ব্যাখ্যা করা হয়েছে যে, হিংসা গ্রহণযোগ্য হতে পারে না ও শক্তি প্রয়োগ বন্ধ করা উচিত, আর রাজনৈতিক সংশোধনও করা দরকার অবিলম্বে. কিন্তু সমস্যা হয়েছে যে, সিরিয়াতে পরিস্থিতি খারাপের দিকেই চলেছে, আর এই পরিস্থিতিতে, যখন বিরোধী পক্ষ হিংসার আশ্রয় নিয়েছে, তখন রাজনৈতিক সংশোধন করা খুবই কঠিন.

0    শেষ পর্যন্ত রাশিয়া ও চিন সিরিয়া সম্বন্ধে কোন রকমের নিষেধাজ্ঞার বিপক্ষেই ছিল. তারা নিরাপত্তা পরিষদে ভেটো প্রয়োগের ক্ষমতা রাখে. এই অবস্থান ছিল রাষ্ট্রসংঘের আরও তিন অস্থায়ী সদস্য দেশের – ভারত, ব্রাজিল, দক্ষিণ আফ্রিকা. একই সঙ্গে গতকালের রুদ্ধ দ্বার বৈঠক দেখিয়েছে যে, পশ্চিম খুবই শক্ত হয়ে তৈরী হয়েছে রাশিয়া ও অন্যান্য দেশকে নিজেদের পক্ষে নিয়ে আসতে. এই সূত্রে ভিতালি চুরকিন সমর্থন করে বলেছেন যে, রাশিয়া খুবই নমনীয় অবস্থান নিয়েছে এই দলিলের খসড়া সম্বন্ধে. যদি এই সিদ্ধান্তের ফলে লিবিয়ার মতই ঘটনা ঘটতে পারে বলে মনে হয়, তবে রাশিয়া তার বিরুদ্ধে যাবে. আর যদি দলিল থেকে সঙ্কেত পাওয়া যায় যে, তা রাজনৈতিক সমাধানের জন্য নেওয়া হচ্ছে, তবে মস্কো সেটিকে এই দেশের সমস্যা সমাধানের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ অবদান বলেই মনে করবে.