মার্কিন-যুক্তরাষ্ট্র বিশ্ব অর্থনীতিকে এক অভূতপূর্ব ঝাঁকুনি দিতে তৈরি হচ্ছে

মার্কিন-যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেস রাষ্ট্রীয় ঋণের উর্দ্ধসীমা বাড়ানোর খসড়া আইন অনুমোদন করেনি. ২রা অগাস্টের আগে এই আইন গৃহীত না হলে আমেরিকার নিজেকে দেউলিয়া ঘোষণা করা বাস্তবে পর্যবসিত হবে.

       ২৯ শে জুলাই, শুক্রবার রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামার বিরোধী রিপাবলিক্যানরা কংগ্রেসে, যেখানে তারা সংখ্যাগরিষ্ঠ, এই আইন পাশ করায়. এই খসড়া আইন অনুযায়ী স্বল্পমেয়াদে রাষ্ট্রীয় ঋণের উর্দ্ধসীমা আরও ৯০০ বিলিয়ন ডলার বাড়ানোর পরিকল্পনা ছিল. হোয়াইট হাউস তত্ক্ষণাত ঐ আইনকে মৃত বলে ঘোষণা করে. ডেমোক্র্যাটরা দীর্ঘমেয়াদী ঋণ এবং তার উর্দ্ধসীমা আড়াই ট্রিলিয়ন বাড়ানোর পক্ষে মতপ্রকাশ করছে, যাতে সামনের বছর নির্বাচনের আগে এই সমস্যা আবার জেগে না ওঠে এবং রিপাবলিক্যানরা যেন বারাক ওবামার নীতির সমালোচনা করবার সুযোগ না পায়. এর ফলশ্রুতিতে, কংগ্রেসে রিপাবলিক্যানরা আইন পাশ করাবার দুঘন্টার মধ্যে ডেমোক্র্যাটরা সেনেটে ঐ আইন বাতিল করে দেয়, সেনেটে ওরা সংখ্যাগরিষ্ঠ.

      আশা করা হচ্ছে, যে ১লা অগাস্ট, অর্থাত্ দেউলিয়া ঘোষণা করবার একদিন আগে রাষ্ট্রপতির সমর্থকেরা তাদের নিজস্ব খসড়া আইন পেশ করবে. তবে তারা বিরুদ্ধবাদীদের কিছু ছাড় দিতে রাজি. ফাইন্যান্সিয়াল এ্যান্ড কস্ট এ্যাকাউন্টিং কোম্পানির দীর্ঘমেয়াদী গবেষণা বিভাগের অধ্যক্ষ ইগর নিকোলায়েভ বলছেন –

      দেউলিয়া ঘোষণা করবার সম্ভাবনা বাড়ছে. প্রথমে মনে হচ্ছিল, যে এটা একটা রাজনৈতিক নাটক. কিন্তু এখন এমনকি আশাবাদীরা পর্যন্ত আশংকা করছেন, যে এর পরিণতি হতে পারে ভয়ংকর. আসলে এটা হল বিদেশী ঋণ এবং মার্কিনীরা ঘোষণা করেছে যে ঋণ তারা শোধ করবে. কিন্তু ঋণ শোধ করবার মত অর্থের অভাব ঘটতে পারে. আর তার মানে হল এই, যে আমেরিকার রাষ্ট্রীয় বন্ডগুলির দাম হুহু করে পড়বে, যে সব দেশের অধিকারে ঐ বন্ডগুলি আছে, তারা চটজলদি সেগুলিকে বিক্রি করে দেবে আর তার ফলে ডলারের দাম কমবে. আমেরিকার অর্থনীতি, যা এমনিতেই ইদানীং উন্নয়নের নীচু হার প্রদর্শন করছে, তা বদ্ধডোবায় পরিণত হবে, হয়তো বা অর্থনীতির অবনমন শুরু হবে. এই প্রসঙ্গে রাশিয়ার কথায় এসে ইগর নিকোলায়েভ বলছেন –

       রাশিয়ার অর্থনীতির ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হল পেট্রোলের আন্তর্জাতিক বাজারে দাম. আমেরিকা নিজেকে দেউলিয়া ঘোষণা করলে আন্তর্জাতিক বাজারে খনিজ তেলের চাহিদা কমবে আর তার সাথে রুবলেরও মূল্য কমতে শুরু করবে.

     আমেরিকা দেউলিয়া হলে উন্নয়নশীল অর্থনীতির দেশগুলির পরিণতি কি হবে – সে সম্পর্কে বলছেন কোয়াদ্রো নামক বিনিয়োগ কোম্পানির প্রধান রোমান আন্দ্রেয়েভ –

   উন্নয়ণশীল অর্থনীতির দেশগুলিতে এর প্রভাব হবে নেতিবাচক, তবে সেটা সবার ক্ষেত্রে নয়. বিনিয়োগকারীদের মাঝে এই মতের চল আছে, যে উন্নয়ণশীল বাজারগুলিকে আর্থিক দুর্যোগের সময় শান্ত বন্দর হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে. তবে সব ঝুঁকি থেকে রেহাই পাওয়া সম্ভব নয়. এর কুপ্রভাব পড়বে স্টক-এক্সচেনজে, উন্নত দেশগুলি উন্নয়ণশীল দেশের বাজার পরিত্যাগ করতে শুরু করবে. হয়তো এর ফলে উন্নয়ণশীল দেশগুলির মুদ্রার মূল্য হ্রাস পেতে শুরু করবে.

   খুব বড় ঝুঁকি. তবে আমরা আশা করতে চাইছি, যে আমেরিকা সারা বিশ্বের অর্থনীতিকে তিনবছরের মধ্যে দ্বিতীয়বার সংকটের সম্মুখীন করবে না.