রাশিয়া ও ভারত “পাক ফা” মার্কা পঞ্চম প্রজন্মের ফাইটার বিমানের নক্সা ও তার তৈরী সংক্রান্ত মিলিত প্রকল্পে সহযোগিতা চালিয়ে যাচ্ছে. এ সম্বন্ধে বৃহস্পতিবার “রিয়া নোভস্তি” সংবাদ সংস্থাকে প্রদত্ত ইন্টারভিউতে জানিয়েছেন এ প্রকল্পে অংশগ্রহণকারী “সুখোই” কোম্পানির সরকারী প্রতিনিধি. আগে রাশিয়া এবং বিদেশের একসারি প্রচার মাধ্যমে এ খবর প্রকাশিত হয়েছিল যে, এ প্রকল্প নিয়ে দু দেশের মাঝে আলাপ-আলোচনা ছিন্ন হওয়ার সীমারেখায়. তবে এ সব খবরে উল্লেখ করা হয় নি, কার দোষে আলাপ-আলোচনা কানাগলিতে গিয়ে পড়েছে. রাশিয়ার “সুখোই” কোম্পানির প্রতিনিধি জোর দিয়ে বলেন যে, পঞ্চম প্রজন্মের ফাইটার বিমান তৈরী নিয়ে কাজ পুরোদমে চলছে. রাশিয়ার “পাক ফা” মার্কা বিমানের ভারতীয় ধরণ, যার নাম দেওয়া হয়েছে “এফ.জি.এফ.এ” ( “ফিফ্থ জেনারেশন ফাইটার এয়ারক্রাফ্ট”), তার নক্সা তৈরী সংক্রান্ত প্রকল্পের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল ২০১০ সালের ২১শে ডিসেম্বর. রাশিয়ার শরিকরা এ প্রকল্পে সাড়ে ২৯ কোটি ডলার নিয়োগ করার বাধ্যবাধকতা গ্রহণ করেছে. ভারতের বিমান বাহিনী ২৫০-৩০০টি এ ধরণের বিমান পেতে চায় ২৫০০ কোটি ডলারে. এই “পাক ফা” বিমানের রাশিয়ার প্রটো-টাইপ “তে-৫০” বিমান আকাশে উড়েছে ২০১০ সালের জানুয়ারী মাসে. রাশিয়ার বিমান বাহিনীর জন্য পাইকারে হারে “তে-৫০” বিমানের সরবরাহ শুরু হওয়ার কথা ২০১৬ সালে. আশা করা হচ্ছে যে, মিলিত রুশ-ভারত পঞ্চম প্রজন্মের ফাইটার বিমান তৈরী হবে স্বদেশী বিমান বাহিনীর জন্য এ বিমানের পুনরস্ত্রসজ্জা শুরু হওয়ার কয়েক বছর পরে.