ফ্রান্সের পরে গ্রেট-বৃটেনও ঘোষণা করেছে যে, লিবিয়ার নেতা মুয়ম্মর গদ্দাফি দেশে থাকতে পারে, যদি শাসন ক্ষমতা ত্যাগ করে. বৃটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী উইলিয়াম হেগের কথায়, তাঁর পক্ষে বাঞ্ছনীয় হত, যদি গদ্দাফি লিবিয়া ছেড়ে যেতেন. তবে, লিবিয়াবাসীদের নিজেদেরই এ সম্বন্ধে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা উচিত্. হেগ এ বিবৃতি দেন লন্ডনে ফ্রান্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আলেন ঝুপ্পে-র সাথে আলাপ-আলোচনার পরে. এর প্রাক্কালে লিবিয়ার বিরোধীপক্ষের একজন নেতা মুস্তাফা আব্দেল জলীল বলেন যে, বিদ্রোহীরা এমন ধারণা প্রত্যাখান করছে না. গদ্দাফির জন্য আগের মতোই প্রধান শর্ত হল শাসন ক্ষমতা ত্যাগ করা.