নরওয়ের সন্ত্রাসবাদী আন্ডের্স ব্রেইভিক তার বিরুদ্ধে মামলার শুনানী উন্মুক্তভাবে পরিচালনার দাবি করেছে. উকিলের কথায়, ব্রেইভিক সোমবার নিজের অপরাধের কারণ বিশদে বর্ণনা করার পরিকল্পনা করছে এবং তা করতে চায় সার্বজনীনভাবে. উন্মুক্ত শুনানীর দাবি ছাড়া সন্ত্রাসবাদী অনুরোধ করেছে তাকে আদালতে উর্দি পরা অবস্থায় হাজির হওয়ার অনুমতি দেওয়া হোক. তার উকিল উল্লেখ করেছেন যে, সুনির্দিষ্ট কোন উর্দি সে পরতে চায় তিনি তা জানেন না. আন্ডের্স বেরিঙ্গ ব্রেইভিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা হয়েছে ২২শে জুলাই ওসলো-র কেন্দ্রস্থলে নরওয়ের প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের সামনে বিস্ফোরণ আয়োজন করার. তারপর সে নরওয়ের রাজধানী থেকে ৪০ কিলোমিটার দূরে উতেইয়া দ্বীপে যুব-শিবিরে গুলিবর্ষণ শুরু করে. ফলে সন্ত্রাসবাদীর হাতে মৃত্যু ঘটেছে ৯০ জনের উপর এবং আরও প্রায় ১০০ জন আহত হয়েছে. এ বিপর্যয় ছিল অপ্রত্যাশিত, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরবর্তী ইতিহাসে প্রথম, ঘোষণা করেন কর্তৃপক্ষের প্রতিনিধি. নরওয়ের “ডাগব্লাডেট” পত্রিকার তথ্য অনুযায়ী, ৩২ বছর বয়সী এ যুবক সন্ত্রাসের তিন ঘন্টা আগে ইন্টারনেটে নিজের ধারণা প্রকাশ করেছিল. ১৫০০ পৃষ্ঠা সম্বলিত “ইউরোপীয় স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র -২০৮৩” নামে তার ম্যানিফেস্টে “ইউরোপে ইস্লামের বিজয়ের বিরুদ্ধে সংগ্রামের” ধারণা ব্যাখ্যা করা হয়েছে. এ দলিলগুলির সত্যতা সম্পর্কে সরকারী সমর্থন এখনও নেই. জেরার সময় ব্রেইভিক নিজের ক্রিয়াকলাপকে ‘পাশব কিন্তু প্রয়োজনীয়” বলে অভিহিত করে. বিভিন্ন দেশের বিশেষজ্ঞরা মনে করেন যে, আন্ডের্স বেরিঙ্গ ব্রেইভিক – মানসিক বিকারগ্রস্ত ব্যক্তি.