সিরিয়ার তৃতীয় বড় শহর হোমসে বিগত একদিনে অন্ততপক্ষে ৩০ জন নিহত হয়েছে. এ শহরে রাষ্ট্রপতি বাশার আসদের শাসনের সমর্থক ও বিরোধীদের মাঝে সঙ্ঘর্ষ ঘটেছে. এ সম্বন্ধে "ফ্রান্স প্রেস" সংবাদ সংস্থাকে জানিয়েছেন সিরিয়ার একটি মানব অধিকার রক্ষা সংস্থার নেতা রামি আব্দেল রহমান. মার্চ মাসের মাঝামাঝি থেকে সিরিয়ায় ব্যাপক প্রতিবাদ আন্দোলন চলছে. সিরিয়ার কর্তৃপক্ষ প্রতিবাদ দমনের জন্য সামরিক প্রযুক্তি ব্যবহার করছে. নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে সঙ্ঘর্ষে এবং বিশৃঙ্খলার তিন মাসেরও বেশি সময়ে, সিরিয়ার মানব অধিকার রক্ষকদের তথ্য অনুযায়ী, নিহত হয়েছে ১৩৫০ জনেরও বেশি লোক. সরকারী তথ্য অনুযায়ী, “সশস্ত্র সন্ত্রাসবাদী উপাদানগুলির” এ সব ক্রিয়াকলাপের শুরু থেকে সিরিয়ায় নিহত হয়েছে ৩৪০ জন সৈনিক এবং নিরাপত্তা বাহিনীর প্রতিনিধি. সিরিয়ায় আগেকার বিছিন্ন সব বিরোধী দলগুলির প্রতিনিধিরা গত শনিবার ইস্তাম্বুলে গঠন করেছে জাতীয় উদ্ধারের পরিষদ. তারা ঐক্যবদ্ধ হয়েছে রাষ্ট্রপতি আসদের সরকারের বিরুদ্ধে. এ পরিষদে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে বিরোধীপক্ষের ২৫ জন সদস্য, সেই সঙ্গে ইস্লামপন্থীরা, লিবেরালরা এবং অন্যান্য ধারার সক্রিয় কর্মীরা.