রাশিয়া প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ ২০১২- ২০১৪ সালের বাজেট সম্বন্ধে বাণীতে ১২টি প্রধান বাজেট রাজনীতির দিক নির্দেশ করেছেন, যা "ব্যবস্থাগত প্রক্রিয়ার" প্রয়োজন রাখে. তাদের মধ্যে – অর্থনীতির নিয়ন্ত্রণ করার জন্য রাষ্ট্রের ভূমিকা কম করার কথা রয়েছে, বিকেন্দ্রীকরণ করার কথা রয়েছে বাজেট অন্তর্ভূত সম্পর্কের ক্ষেত্রে, খনিজ তেল ও গ্যাস থেকে পাওয়া আয়ের ব্যবহার সম্বন্ধে নিয়মের কোড নির্ণয় করা.

    এই দলিলে উল্লেখ করা হয়েছে, "২০১২ সালের বাজেট ও ২০১৩ ও ২০১৪ সালের পরিকল্পিত বাজেট এমন হওয়া দরকার যাতে তার সাহায্যে সঙ্কট পরবর্তী কালের উন্নয়নকে স্থিতিশীল উন্নয়নে পরিনত করা যায়, অর্থনীতির আধুনিকীকরণ ও উন্নয়নের পরিস্থিতি তৈরী করা যায়, দেশের জনসাধারনের জীবন যাত্রার মানোন্নয়নের ও গুণগত উন্নয়নের বন্দোবস্ত করা যায়, দেশের প্রতিরক্ষার ক্ষমতা ও নিরাপত্তাকে মজবুত করা যায়, রাষ্ট্রীয় প্রশাসনের ফলপ্রসূ হওয়া ও স্বচ্ছতা বৃদ্ধি করা যায়", - দলিলের সম্পূর্ণ বয়ান ক্রেমলিনের সাইটে প্রকাশ করা হয়েছে.

    এই সময়ের মধ্যে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি প্রশাসনের কাছে দাবী করেছেন বাজেটের নির্ভরতা "ওঠা নামা করে এই ধরনের আয়" থেকে কম করতে ও তার ঘাটতি কমাতে. "এর থেকেই সেই প্রধান দিক গুলিতে প্রয়োজন ব্যবস্থাগত প্রক্রিয়া করার" – এই কথা বলা হয়েছে বাণীতে.

    এই ধরনের দিক গুলির মধ্যে রয়েছে দেশের দীর্ঘস্থায়ী উন্নতির স্ট্র্যাটেজি তৈরী করার প্রক্রিয়া ও তার বাস্তবায়নের জন্য বাজেট পরিকল্পনায় সমাকলন, ২০১৫ সাল থেকে খনিজ তেল ও গ্যাস থেকে পাওয়া আয়কে নিয়ম বদ্ধ করা ও বাজেট ঘাটতির পরিমান কম করার বিষয়ে নিয়ন্ত্রণ করার কথা বাজেটে যুক্ত হবে, পেনশন ব্যবস্থার উন্নতির জন্য সমস্ত দিক থেকে  প্রস্তাব তৈরী করতে হবে ও সামাজিক বাধ্যতামূলক বীমা করণের প্রক্রিয়ার জন্যও ব্যবস্থা নিতে হবে, যেখানে সরকারি বাজেট বহির্ভূত তহবিলে বীমা সূত্রে আদায়ের পরিমান শতকরা ৩৪ ভাগ থেকে কম করাকেও হিসাব করতে হবে.

    মেদভেদেভ দাবী করেছেন সেই সমস্ত করের ভূমিকা বাড়ানোর, যা খনিজ তেল ও গ্যাস কোম্পানী, তামাক ও অ্যালকোহল উত্পাদক কোম্পানী গুলির থেকে পাওয়া যায়, রাষ্ট্রীয় সম্পত্তির থেকে আয় বৃদ্ধি করা, সরকারি খরচের থেকে ফল আদায় করা ও সমস্ত রকমের নিজেদের উপরে নেওয়া সামাজিক দায়িত্ব পালনের ব্যবস্থা করতে বলেছেন.

    রাষ্ট্রপতি প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন অর্থনৈতিক ভাবে লাভজনক বিষয় গুলিতে বড় আকারে সরকারি নিয়ন্ত্রণ শিথিল করার জন্য ও প্রশাসনের ভূমিকা কম করার জন্য. তার মধ্যে রয়েছে সরকারি সম্পত্তিকে ব্যক্তিগত মালিকানায় দেওয়ার কথা, সরকারি ক্রয়ের ব্যবস্থাকে আমূলে বদলে ফেলা, উত্পাদনের আধুনিকীকরণ ও উদ্ভাবনী প্রকৌশল শিল্পে নিযুক্ত করার জন্য বিনিয়োগ প্রকল্পের ক্ষেত্রে সরকারি ও ব্যক্তিগত মালিকানার যৌথ উদ্যোগের ব্যবস্থাকে বেশী করে ব্যবহার করা.

    ১২টি অনুচ্ছেদ, যা রাষ্ট্রপতি বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন, তার মধ্যে আরও রয়েছে, "বাজেট সম্পর্কের বিষয়ে জনগণের ক্ষমতার অন্তর্বর্তী স্থানীয় প্রশাসন ও রাশিয়ার আলাদা রাজ্য গুলির বিভিন্ন স্তরের ভিতরে ফলপ্রসূ ভাবে দায়িত্বের বিকেন্দ্রীকরণ করার কথা'. তাছাড়া মেদভেদেভ প্রশাসনকে দায়িত্ব দিয়েছেন "বৈদ্যুতিন বাজেট" সম্বন্ধে ধারণা তৈরী ও উন্নয়ন করার – যা সামাজিক অর্থ বিনিয়োগের ক্ষেত্রে তথ্য ব্যবস্থার সঙ্গে একত্রে সমাকলন করা হয়.