লিবিয়ার নেতা মুয়ম্মর গদ্দাফি ন্যাটো জোটের বিমান বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছেন নিজের সহকারীর পরিবারের সদস্যদের হত্যার, জানিয়েছে লিবিয়ার প্রচার মাধ্যম. তিনি রাজধানী ত্রিপোলির পশ্চিমে অবস্থিত সুরমান বসতি কেন্দ্রে সহকারীর বাড়ির উপর বিমান আঘাত হানা বৈমানিকদের বর্বর বলে অভিহিত করেন. লিবিয়ার নেতার কথায়, তাঁর বাহিনী বিদেশী বর্বর ও ক্রেস্টধারীদের বিরুদ্ধে শেষ নিশ্বাস পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যাবে. গদ্দাফিকে কোনঠাষা করা সত্ত্বেও, তাদের বিরুদ্ধে সামরিক ক্রিয়াকলাপ চালিয়ে যাওয়া হবে, যতদিন না তাদের ধ্বংস করা হচ্ছে. জমাহিরির নেতা রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদকে আহ্বান জানিয়েছেন বিমান আঘাতের ফলে শান্তিপূর্ণ অধিবাসীদের নিহত হওয়ার ঘটনা তদন্ত করার. তাঁর কথায়, এ প্রশ্ন নিয়ে তিন অপরাধী দেশ – মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, গ্রেট-বৃটেন ও ফ্রান্স যেন কাজ না করে. এদিকে, ন্যাটো জোটের প্রধান সচিব আন্ডের্স ফগ রাসমুসেন আশ্চর্য হন নি যে, গদ্দাফি জোটের বাহিনী এবং বিরোধীপক্ষের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ চালিয়ে যাচ্ছেন. ফরাসী “ফিগারো” পত্রিকাকে প্রদত্ত ইন্টারভিউতে ফগ রাসমুসেন বলেন, “গদ্দাফি পূর্বাভাষযোগ্য নন. আমরা জানতাম যে, তার হাতে বিপুল সামরিক ও আর্থিক সঙ্গতি আছে. তবে, আমরা লিবিয়ায় ব্যাপক হত্যা থামিয়েছি এবং শাসন ব্যবস্থার যুদ্ধযন্ত্রকে বিকল করেছি”.