এবারের বসন্তে মে মাসের শুরুতে সারা রাশিয়া জনতা ফ্রন্ট তৈরী করা হয়েছে রুশ প্রধানমন্ত্রী বা প্রশাসনের প্রধান শ্রী ভ্লাদিমির পুতিনের উদ্যোগে, তাতে নতুন লোকেরা এখন দল ভারী করছে. এর মধ্যেই সেখানে প্রায় সাড়ে চারশো সামাজিক সংস্থা জুটেছে. নূতন এই জোটের লক্ষ্য – সরকারি স্তরে কাজের ক্ষেত্রে নতুন সমস্ত ধারণা ও নেতৃত্বের আমদানী, যা বা যাঁরা তা বাস্তবায়িত করতে তৈরী. এই ফ্রন্ট তাঁদের সাহায্য করবে দেশের লোকসভা নির্বাচনে অংশ নিতে, এমনকি ফ্রন্টের নির্দল সাঙ্গোপাঙ্গরা তাঁদের তরফ থেকে লোকসভায় বা রাশিয়ার দ্যুমায় সদস্য হওয়ার মতো প্রতিনিধি মনোনয়ন করতে পারবেন.

    একেবারে শুরুতে মনে করা হয়েছিল যে, জনতা ফ্রন্টে যোগ দিতে পারবেন শুধু সামাজিক- রাজনৈতিক সংস্থার লোকেরা: শ্রমিক জোট, প্রাক্তন যোদ্ধাদের সংস্থা, যুব সংঘ, মহিলা সমিতি এই ধরনের সংস্থা গুলি থেকে. কিন্তু পরে ঠিক করা হয়েছে এমনকি আলাদা করে একক ব্যক্তিদেরও দলে টানা হবে. এর পদ্ধতি খুবই সাধারন – সাইটে বৈদ্যুতিন আবেদন পত্র জমা করাই যথেষ্ট. কয়েকদিন আগে ঠিক করা হয়েছে এই সারা রাশিয়া জনতা ফ্রন্টে দেশের গোটা কোম্পানী ও কারখানাও যোগ দিতে পারবেন.

    সারা রাশিয়া জোড়া এই জোটের প্রধান উদ্যোগী শ্রী ভ্লাদিমির পুতিনের কথা মতো, এই ধরনের কাজ অর্থাত্ জনতা ফ্রন্ট বিশ্বে বহু দেশেই রাজনৈতিক শক্তিরা বহু সময়েই একাধিকবার করেছে. রাশিয়াতে আগামী রাষ্ট্রীয় লোকসভা নির্বাচন, যা ২০১১ সালের ডিসেম্বর মাসে হতে চলেছে, তাতে প্রয়োজন হল সক্রিয় রাজনৈতিক অবস্থান সম্পন্ন মানুষদের একত্রিত করাও তাঁদের দেশের দ্যুমায় এগিয়ে দেওয়া দলের সদস্য না হওয়া স্বত্ত্বেও রাশিয়ার রাজনৈতিক দল ঐক্যবদ্ধ রাশিয়ার পক্ষ থেকে. এই প্রসঙ্গে শ্রী ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন:

    "আমি আরও একবার বিশেষ করে উল্লেখ করতে চাই যে, এই ফ্রন্টের কাজ শুধু দেশের লোকসভা নির্বাচনে অংশ গ্রহণের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবে না (যদিও এটাই ছিল সারা দেশ জুড়ে রাজনৈতিক মঞ্চ তৈরীর প্রাথমিক উদ্দেশ্য) – আমরা ভবিষ্যতের দিকেও লক্ষ্য করতে বাধ্য, আমাদের উচিত্ হবে দীর্ঘস্থায়ী সময়ের জন্য স্ট্র্যাটেজি তৈরী করা. অন্য ভাবে বলতে হলে, জনতা ফ্রন্টের কাজ হবে জাতীয়, আঞ্চলিক, পুর সভা স্তরে সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য সামাজিক সমর্থনের প্রসার বৃদ্ধি করা. সারা দেশের ও অঞ্চলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নাবলীর প্রকাশ্য আলোচনার এই সারা দেশের রাজনৈতিক মঞ্চের অর্থাত্ সারা রাশিয়া জনতা ফ্রন্টের স্বাভাবিক কাজই হয়".

    কেন দেশের নাগরিকেরা এই ফ্রন্টে যোগ দিচ্ছেন? প্রত্যেকেরই এই বিষয়ে নিজস্ব উত্তর রয়েছে. কিন্তু তাঁদের ইচ্ছা অনুযায়ী সক্রিয় ভাবে নিজেদের শক্তিকে দেশের কাজে লাগানোই হল ঐক্যের প্রধান কারণ. যেমন, বিখ্যাত শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ ডঃ লিওনিদ রশাল – যিনি বর্তমানে স্বাস্থ্য সম্পর্কিত নূতন গৃহীতব্য আইনের এক প্রবল তার্কিক ও সমালোচনা কারী – তিনি এই ভাবে নিজের এই জনতা ফ্রন্টে যোগদান সম্বন্ধে সিদ্ধান্ত নিয়ে মন্তব্য করেছেন: আমি বিশ্বাস করি যে এটা খুবই কাজের জোট হয়েছে, তাই আরও বলেছেন:

    "কেন আমরা সমর্থন করেছি? কারণ এটা প্রকল্পে এমন কিছু অনুচ্ছেদ যোগ করার সম্ভাবনা দিয়েছে, যার ফলে আমাদের দেশের স্বাস্থ্য সংরক্ষণ আরও ভাল হবে. আর এটা সবচেয়ে মূল কথা. আমরা জনতা ফ্রন্টে যোগ দিয়েছি, যাতে রাশিয়ার মানুষ স্বাস্থ্য সুরক্ষা ব্যবস্থায় খুশী হতে পারেন".

    জনতা ফ্রন্টে যোগ দিয়েছেন একেবারেই বড় নয়, কিন্তু তা স্বত্ত্বেও যথেষ্ট প্রভাবশালী সমাজও. তিন বছর আগে সামাজিক ইন্টারনেট সাইটে ব্যক্তিগত গাড়ীর চালকদের সামাজিক সংস্থা পস্কোভ শহরের মৃত সড়ক পথ জন্ম নিয়েছিল. গাড়ীর চালকেরা, তাঁদের শহরের রাস্তার বেহাল দেখে ইন্টারনেট খানা খন্দের ছবি দিতে শুরু করেছিলেন একেবারে সঠিক ঠিকানা সমেত আর লক্ষ্য রেখেছিলেন যাতে এই ধরনের খারাপ রাস্তা সারানো হয়. বর্তমানে তাঁরা খুবই সক্রিয় ভাবে আঞ্চলিক সড়ক নির্মাণ ও মেরামত প্রকল্পের সামাজিক নিয়ন্ত্রণের কাজে নিয়োজিত হয়েছেন. এই সংস্থার নেতা আলেকজান্ডার ভাসিলিয়েভ মনে করেন যে, জনতা ফ্রন্টের মধ্য দিয়ে তাঁরা তাঁদের অভিজ্ঞতা বাকী দেশের মানুষের সঙ্গে বিনিময় করতে সক্ষম হবেন, তাই আরও বলেছেন:

    "যদি আমরা এমন করতে চাই যে, আমাদের দেশের রাস্তা গুলি ভাল হোক, তবে এই কাজ সবাই মিলেই করা দরকার. এটা যেমন প্রশাসনের কাজ, তেমনই সাধারন মানুষেরও. আমি বলতে চাই না যে, এই জনতা ফ্রন্টে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত আমাদের সকলের তরফ থেকেই নেওয়া হয়েছে, আমাদের সক্রিয় কর্মীদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন, যাঁদের কেউ এর পক্ষে, কেউ বা বিপক্ষে. প্রধান হল যে, আমাদের যেটা ঐক্য বদ্ধ করেছে, তা হল যাতে দেশে একটা নিয়ম শৃঙ্খলা থাকে. জনতা ফ্রন্ট – এটা সেই ধরনের যন্ত্র, যার সহায়তা নিয়ে আমরা এটা করতে পারবো".

    আলেকজান্ডার ভাসিলিয়েভের জন্য দেশের লোকসভা নির্বাচনে অংশ গ্রহণ বা দ্যুমার সদস্য হওয়াটা একমাত্র লক্ষ্য নয়. কিন্তু তিনি নিজের জনপ্রিয়তা প্রাথমিক ভাবে সাধারন লোকের মধ্যে আয়োজিত তথাকথিত প্রাক্ নির্বাচনী জনপ্রিয়তা নির্ণয়ের সময়ে দেখে নিতে চান. লোকসভায় যাঁরা নির্বাচনের প্রার্থী হতে চান, তাঁদের তালিকা সেপ্টেম্বর মাসের শুরুতে ঐক্যবদ্ধ রাশিয়া দলের সম্মেলনের সময়ে পেশ করা হতে চলেছে. তারই তালিকা অনুযায়ী জনতা ফ্রন্টের প্রতিনিধিরা নির্বাচনে অংশ নেবেন. সেপ্টেম্বর মাসেই ঠিক করা হয়েছে ফ্রন্টের প্রাক্ নির্বাচনী পরিকল্পনা স্থির করার.