ওয়াশিংটন সিরিয়ার রাষ্ট্রপতি বাশার আসদের উপর চাপ বাড়াতে এবং সিরিয়ার শাসন ব্যবস্থাকে বিচ্ছিন্ন করে রাখতে চায়. এ সম্বন্ধে বৃহস্পতিবার বলেছেন মার্কিনী পররাষ্ট্র বিভাগের প্রেস-সেক্রেটারি ভিক্টোরিয়া নুল্যান্ড. তিনি মনে করিয়ে দেন যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোসঙ্ঘ ইতিমধ্যে সিরিয়ার বিরুদ্ধে বাধানিষেধ প্রবর্তন করেছে. এর আগে রাষ্ট্রসঙ্ঘের মানব অধিকার সংক্রান্ত পরিষদ সিরিয়ায় মানব অধিকার লঙ্ঘন এবং হিংসার নিন্দে করেছে. নুল্যান্ড জোর দিয়ে বলেন যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়া সংক্রান্ত খসড়া সিদ্ধান্ত নিয়ে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদে শরিকদের সাথে সক্রিয়ভাবে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে. ওয়াশিংটন আশা করে যে, রাশিয়া ও চীন এ সিদ্ধান্ত সম্পর্কে নিজেদের স্থিতি বদলাবে এবং বুঝবে যে, ক্রিয়াকলাপ চালানোর সময় এসেছে. হিলারী ক্লিন্টন এখন সিরিয়া সম্পর্কে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিত্রদেশগুলির সাথে, সেই সঙ্গে তুরস্ক ও আরব জগতে আমেরিকার অন্যান্য শরিকদের সাথে, বলেন পররাষ্ট্র বিভাগের প্রেস-সেক্রেটারি. যথাযথ সময়ে ক্লিন্টন রাশিয়া ও চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাথে সিরিয়ার প্রশ্ন আলোচনা করতে চান. নুল্যান্ড তাছাড়া যোগ করে বলেন যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়ার ভিতরে এবং বাইরে সেই সব সিরিয়ানের সাথে যোগাযোগ বাড়াচ্ছে, যারা এ দেশে শাসনব্যবস্থা বদলানোর আশা করছে.