রাশিয়া ও ইউরোপের মাঝে কখনই তেমন একটা সুসম্পর্ক ছিল না, কিন্তু ফ্রান্সের দুভিলে জি-৮ সম্মেলন অনুষ্ঠানের পর সেই চিত্রের মৃত্যু ঘটেছে।দুই দিনের জি-৮ শীর্ষ সম্মেলন শেষে এমনই মন্তব্য করেছেন পর্যবেক্ষকরা।লিবিয়া পরিস্থিতি বিষয়ে রাশিয়ার দেওয়া প্রস্তাবকে আয়োজককারী দেশ ফ্রান্স ছাড়াও জার্মানী ও যুক্তরাষ্ট্র সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছে।দাভিল সম্মেলনে অংশগ্রহনকারী রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট দিমিত্রি মেদভেদেভ জানান,খুব শিঘ্রই  তার ব্যক্তিগত প্রতিনিধি মিখাইল মার্গেলোভকে ঐ অঞ্চলে পাঠানো হবে।অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক সেক্রেটারী বেন রদস বলেছেন,উত্তর আফ্রিকার দেশগুলোর সাথে রাশিয়ার ভাল সম্পর্ক রয়েছে এবং যৌথ সহযোগিতার ক্ষেত্রে আমাদের লাভজনক বিষয়টি প্রধান গুরুত্ব পাচ্ছে।ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নিকোলাই সারকাজি বলেছেন,স্নায়ু যুদ্ধের অবসান হয়েছে.আমার মনে হচ্ছে যে,আয়তনে ফ্রান্সের চেয়ে রাশিয়া ৪৬ গুন বড় এবং যুক্তরাষ্ট্রের দ্বিগুন।ইউরোপীয় ইউনিয়নের জন্য রাশিয়া যে হুঁমকিস্বরুপ সেই ধারনা পুরোপুরি অবান্তর।