পারমানবিক নিরাপত্তা, নিকট প্রাচ্য এবং উত্তর আফ্রিকার পরিস্থিতি, বিশ্ব অর্থনীতির উন্নতি ও বহুপাক্ষিক বাণিজ্য, পরিবেশ সংরক্ষণ এবং উদ্ভাবনী প্রযুক্তি. এই রকমের অসম্পূর্ণ তালিকা হল সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নগুলির, যা বড় আট দেশের নেতারা তাঁদের ঐতিহ্য অনুযায়ী চলে আসা বৈঠকে করতে চলেছেন. এবারে তা হচ্ছে ফ্রান্সের দোভিল শহরে.

অনতি বৃহত্ সমুদ্র তীরের পর্যটন কেন্দ্র সবচেয়ে প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতাদের স্বাগত জানিয়েছে, যাঁরা বিশ্বের জমা সমস্যা নিয়ে সমাধানের জন্য কার্যকরী প্রক্রিয়া তৈরী করবেন এবং তার পরবর্তী উন্নতি নিয়ে মত বিনিময় করবেন. এই শীর্ষ বৈঠকের সময় খুব একটা সহজ পরিস্থিতিতে হয় নি উত্তর আফ্রিকার দেশগুলিতে বৈপ্লবিক পরিবর্তনের ঢেউ উঠেছে, পশ্চিমের জোট লিবিয়াতে অপারেশন চালাচ্ছে, জাপানের বিপর্যয়, বিশ্ব সঙ্কটের ফল এখনও বর্তমান, বহু ইউরোপের দেশে খুবই সঙ্কট জনক অর্থনৈতিক অবস্থা – এই সবই বিশ্বের বৃহত্তম দেশ গুলিকে একত্রিত হয়ে মোকাবিলা করতে বাধ্য করছে ও আরও বহু বিপদের সঙ্গে লড়াই করতে আহ্বান করছে. ক্রেমলিনের উত্স থেকে এই শীর্ষ বৈঠকের আগে জানানো হয়েছিল যে, রাশিয়া দোভিলে পারমানবিক কেন্দ্রের নিরাপত্তা নিয়ে এক গুচ্ছ উদ্যোগ প্রকাশ করবে ও পারমানবিক ধারণা পরিবর্তনের প্রচেষ্টা করবে.

ইউরোপীয় সংঘের রাষ্ট্রপতি হিরম্যান ভ্যান রমপেই শীর্ষ বৈঠক শুরু হওয়ার আগে এক সাংবাদিক সম্মেলনে ভাষণ দিতে গিয়ে আরও একবার বিশেষ করে বলেছেন যে, এই শীর্ষবৈঠকের আলোচ্য বিষয় গুলিতে বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা গুলিকেই তোলা হয়েছে. সন্দেহ নেই যে, এই ধরনের কাঠামোয় শীর্ষ বৈঠক খুবই প্রয়োজন, এই কথা উল্লেখ করে রুশ বিজ্ঞান একাডেমীর ইউরোপ গবেষণা কেন্দ্রের বিশেষজ্ঞ দিমিত্রি দানিলভ বলেছেন:

"বিশ্বের বৃহত্তম দেশ গুলির নেতারা তাঁদের ধারণা একই স্তরে আনুন, দেখা করুন ও আন্তর্জাতিক রাজনীতির সবচেয়ে তীক্ষ্ণ সমস্যা গুলি নিয়ে এই কারণেই আলোচনা করুন, যাতে ফলে একে অপরকে জানিয়ে কাজ করা সম্ভব হয়. যদি না হয়, তবে সম্পর্কের মধ্যে যেন বিরোধ কমে. সমালোচকেরা বলে থাকেন যে, বড় আট শীর্ষ বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, আর তা পরে প্রায়ই পালিত হয় না. এটা অংশতঃ সত্য, কিন্তু সবটা নয়, কারণ এই সমস্ত বৈঠকে যে সব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়ে থাকে, তা কোন চুক্তির কাঠামোতে হয়না, বরং বলা যেতে পারে যে, রাজনৈতিক ভাবে কথা দেওয়া বিষয়. কিন্তু এই ধরনের নমনীয় পথই, সম্ভবতঃ এই ধরনের সাক্ষাত্কারের সম্পদ".

এই শীর্ষ বৈঠকের কাঠামোর মধ্যে বেশ কয়েকটি দ্বিপাক্ষিক বৈঠকও হয়েছে, যেখানে একে অপরের সঙ্গে শুধু বসে এই সব অংশগ্রহণকারী দেশের নেতারা তাঁদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের মধ্যে সবচেয়ে প্রধান প্রশ্ন গুলি নিয়ে আলোচনা করেছেন. এই ধরনের দেখা হওয়া এর মধ্যেই রুশ রাষ্ট্রপতির সঙ্গে হয়েছে ফরাসী ও মার্কিন রাষ্ট্রপতির. তাঁরা ঠিক করেছেন যে, ইউরোপে ও বিশ্বে ভাল  নিরাপদ জায়গা তৈরীর জন্য একসাথে কাজ করবেন, তাঁরা উল্লেখ করেছেন যে, এই সব প্রশ্ন সকলের জন্যই জরুরী.

দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের আরও সুদৃঢ় উন্নতির বিষয়ে প্যারিস ও মস্কো বিশ্বাস রাখে, এই কথা ফরাসী রাষ্ট্রপতি নিকোল্যা সারকোজি এবং রুশ রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ বৃহস্পতিবারে ঘোষণা করেছেন. ফ্রান্স ও রাশিয়ার বিশ্বের সমস্যা নিয়ে একই ধরনের জ্ঞান ও অবস্থান, কিন্তু আংশিক বিষয় নিয়ে কিছু ভিন্ন মত থাকতেই পারে, এই কথা বলেছেন ফরাসী রাষ্ট্রপতি সারকোজি. দোভিল শহরে ফরাসী রাষ্ট্রপতি "বড় আট" শীর্ষ বৈঠকে আন্তর্জাতিক সমস্যা নিয়ে রুশ রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাবেন বলে অঙ্গীকার করেছেন. মেদভেদেভ উল্লেখ করেছেন যে, রাশিয়া ও ফ্রান্সের মধ্যে সম্পর্ক খুবই ভাল. তিনি বিশেষ করে বলেছেন যে, তাঁর সারকোজির সঙ্গে ব্যক্তিগত সম্পর্ক বিশ্বাসের. "এটা দুই পক্ষের সম্পর্কের জন্য খুবই বড় ব্যাপার, তা ইউরোপ ও সমগ্র বিশ্বের জন্যও বটে".

    রাশিয়া ও ফ্রান্সের রাষ্ট্রপতিরা এই সাক্ষাত্কারে ঠিক করেছেন যে, ফ্রান্স উত্তর ককেশাসের স্বাস্থ্যোদ্ধার কেন্দ্রগুলির উন্নতির জন্য সাহায্য করবে. উত্তর ককেশাসে পর্যটন বৃদ্ধি করা দ্বিপাক্ষিক স্ট্র্যাটেজিক সহযোগিতায় প্রাথমিক জায়গা নেবে, মেদভেদেভ ও সারকোজির যৌথ বিবৃতিতে এই কথা বলা হয়েছে. তাছাড়া রাষ্ট্রপতিরা ঠিক করেছেন যে, ১৫ দিন পরে রাশিয়ার পক্ষ থেকে চারটি "মিস্ত্রাল" ধরনের হেলিকপ্টার বাহী যুদ্ধ জাহাজ ক্রয়ের চুক্তি হবে. রুশ সহকর্মীর সঙ্গে আলোচনার শেষে সারকোজি ঘোষণা করেছেন যে, "আমরা শেষে এমন সিদ্ধান্তে পৌঁছেছি যে, এই চুক্তি আজ থেকে ১৫ দিন বাদে স্বাক্ষরিত হবে, দুটি জাহাজ ফরাসী দেশে ও দুটি জাহাজ রুশ দেশে তৈরী করা হবে".

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা নিয়ে রাশিয়ার সঙ্গে সহমতে পৌঁছতে আগ্রহী, যা দুই দেশেরই নিরাপত্তার স্বার্থ রক্ষা করতে পারবে. এই বিষয়ে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভের সঙ্গে সাক্ষাত্কারের পরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা ঘোষণা করেছেন. মস্কো ও ওয়াশিংটন "স্ট্র্যাটেজিক শক্তির ভারসাম্য রক্ষায় আগ্রহী ও সম্ভাব্য বিপদের মোকাবিলায় সফল হতে চায়, যার সামনে আজ দুই দেশই পড়েছে". নিজের পক্ষ থেকে মেদভেদেভ উল্লেখ করেছেন যে, তিনি আমেরিকার সহকর্মীর সঙ্গে "কি করে ইতিবাচক অংশ সংরক্ষণ করা যায় ও রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা সহ সবচেয়ে অনুভূতি প্রবণ বা সংবেদনশীল সমস্যা গুলি নিয়ে সম্পর্কের উন্নতি করা যায়", তা আলোচনা করেছেন. রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করেছেন যে, এর জন্যই "রাজনৈতিক গতি বৃদ্ধির" প্রয়োজন.

মেদভেদেভ এবং ওবামা দোভিলে উত্তর আফ্রিকা এবং নিকট প্রাচ্যের পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেছেন, ইরানের সমস্যাও আলোচনা হয়েছে. রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামার কথামতো, এই অঞ্চলের মানুষদের স্বার্থে কাজ করা দরকার. রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ ঘোষণা করেছেন যে, এই বৈঠকে ইরানের পরিস্থিতি নিয়েও আলোচনা হয়েছে. রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি আশ্বাস দিয়েছেন যে, নিকট প্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকা নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনা চালু থাকবে, বিশেষত শক্তি প্রয়োগ নিয়ে, যা "বৃহত্ কুড়িটি" দেশের পক্ষ থেকে নেওয়া হচ্ছে. এছাড়া রুশ ও মার্কিন রাষ্ট্রপতিরা রাশিয়ার দ্রুত বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় যোগদানের জন্য পরিস্থিতিকে আরও সক্রিয় ভাবে গতিশীল করার জন্য কথা বলেছেন.

এই সাক্ষাত্কারের একটি অন্যতম প্রশ্ন হল – বিশ্বের ইন্টারনেটের নিরাপত্তা. বড় আট দেশের নেতারা ইন্টারনেটে অপরাধের বিষয়ে লক্ষ্য করেছেন, তাতে ব্যক্তিগত তথ্যের গোপনীয়তা রক্ষা ও প্রকল্প গুলির অর্থনৈতিক সম্ভাবনা রক্ষা ইত্যাদি বিশ্বের ইন্টারনেটে সুরক্ষার জন্য আলোচনা হবে. এখানে বৈঠকের শুরুর আগে ফরাসী রাষ্ট্রপতি সারকোজির উদ্যোগে ইন্টারনেট ফোরামের আয়োজন তো আর শুধুশুধুই করা হয় নি. এই ফোরামে সেই সমস্ত প্রশ্নই আলোচনা হয়েছে, যা আজ দোভিলে বিশ্বের "বড় আট" দেশের নেতারা করছেন.