রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ বুধবারে সাংবাদিক সম্মেলনে রাশিয়া মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো জোটের মধ্যে সহযোগিতার মাধ্যমে রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থার উন্নতি নিয়ে রাশিয়ার অবস্থান ঘোষণা করেছেন. রাশিয়া নিজের পারমানবিক অস্ত্রের ক্ষমতা দ্রুত বৃদ্ধি করবে, যদি পশ্চিমের সঙ্গে রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা নিয়ে কোন সহমতে আসতে না পারে. যদি সহযোগিতার পক্ষে উপযুক্ত কোন মডেল তৈরী সম্ভব না হয়, তবে আমাদের প্রত্যুত্তর দেওয়ার মত পরিস্থিতি তৈরী রাখতে হবে, যা আমাদের খুবই করতে অনিচ্ছা, মেদভেদেভ যোগ করেছেন. তখন কথা হবে পারমানবিক আক্রমণাত্মক অস্ত্রের দ্রুত বৃদ্ধির. তাঁর কথামতো, এটা খুবই বাজে পটভূমি হবে. "এই পটভূমি আমাদের আবার পুরনো ঠাণ্ডা যুদ্ধের সময়ে ফিরিয়ে নিয়ে যাবে" – সাংবাদিক সম্মেলনে বলেছেন মেদভেদেভ. রাষ্ট্রপতি মনে করিয়ে দিয়েছেন যে, রাশিয়া মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে ইউরোপে রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থার বিষয়ে জোর করা হলে, নতুন স্ট্র্যাটেজিক আক্রমণাত্মক অস্ত্রসজ্জা চুক্তি থেকে বেরিয়ে যেতে বাধ্য হবে. যদি রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থার বৃদ্ধি হয়, তবে এটার অর্থ হবে স্ট্র্যাটেজিক ভারসাম্য ভেঙে ফেলা. তখন এই চুক্তির বাস্তবায়ন থামিয়ে দেওয়া হতে পারে, এমনকি চুক্তি শেষ করাও হতে পারে, বলেছেন মেদভেদেভ.

    একই সঙ্গে রুশ রাষ্ট্রপতি মনে করেন যে, চিনের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নতি প্রাথমিক কাজ. বুধবারের সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ককে খুবই ভাল বলেছেন. মেদভেদেভ আশা প্রকাশ করেছেন যে, এই ধরনের সম্পর্ক আগামী বছর গুলি ও দশকেও থাকবে. তিনি মনে করিয়ে দিয়েছেন রাশিয়া ও চিনের বর্তমানে সাংহাই সহযোগিতা সংস্থা ও ব্রিকস সংগঠনে সহযোগিতার কথা. রাষ্ট্রপতি উল্লেখ করেছেন যে, জীবনের জন্য অতি প্রয়োজন হল রাশিয়া ও চিনের মধ্যে বৃহত্ জ্বালানী শক্তি সংক্রান্ত প্রকল্পগুলির রূপায়ণ. সেই সমস্ত বিষয় নিয়েই কাজ করা দরকার, যাতে নতুন যৌথ আগ্রহজনক প্রকল্পের উদয় হয়, তার মধ্যে মানবিক প্রকল্পও থাকা উচিত্, বলেছেন মেদভেদেভ.

    রাশিয়ার আভ্যন্তরীণ রাজনীতি বিষয়ে বলতে গিয়ে মেদভেদেভ ঘোষণা করেছেন দেশের আধুনিকীকরণের কাজকে আরও করা. তাঁর কথামতো, রাশিয়ার উন্নয়নের জন্য নতুন ধরনের গুণ মানের প্রয়োজন. ২০১২ সালের রাষ্ট্রপতি নির্বাচন সম্বন্ধে বলতে গিয়ে রাষ্ট্রপতি মেদভেদেভ ঘোষণা করেছেন যে, আসন্ন নির্বাচনে তাঁর অংশ গ্রহণ বা তা না করা নিয়ে কথা বলার সময় এখনও আসে নি. সেই ধরনের সিদ্ধান্ত তখনই নেওয়া দরকার, যখন তার জন্য সমস্ত পরিস্থিতি তৈরী হবে. যখন এর একটা সম্পূর্ণ রাজনৈতিক প্রভাব সৃষ্টি হবে. নিজের পরবর্তী রাষ্ট্রপতি পদে প্রার্থী মনোনয়ন পত্র পাওয়ার জন্য মেদভেদেভ আশা করেছেন যে, তিনি সেই সমস্ত রাজনৈতিক দল ও রাজনৈতিক আন্দোলনের উপরেই নির্ভর করবেন, যারা আগেও তাঁর প্রার্থী পদকে প্রস্তাব করেছিল. তিনি উল্লেখ করেছেন যে, দেশে রাজনৈতিক দলের সংখ্যা খুব বেশী নয়, আর এটা সম্ভবতঃ ভাল ব্যাপার.

    রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে "ক্ষমতার যৌথ ব্যবহার বা ট্যান্ডেম" সম্বন্ধে বিষয় স্পর্শ করে মেদভেদেভ বলেছেন যে, তাঁরা একই লক্ষ্যে ভাবেন. একই সময়ে তিনি বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন যে, এর অর্থ এই নয় যে, তাঁদের মত সমস্ত বিষয়েই এক রকমের হয়. রাষ্ট্রপতি বলেছেন – "সে রকম হওয়া উচিত্ নয়. প্রত্যেক মানুষই নিজের মত করে চলার অধিকার রাখে, কিন্তু পরিকল্পনার বিষয়ে আমরা কাছাকাছি রয়েছি, তা না হলে, আমরা এক সঙ্গে কাজ করতেই পারতাম না. আর যদি কাজ না করতে পারতাম, তা হলে আমাদের রাজনৈতিক সহকর্মী হওয়ার যোগ ধ্বসে পড়ত, আর আজ আমাদের দেশে রাজনৈতিক দৃশ্য পট হত অন্য ধরনের".