বিজয় দিবস উপলক্ষে রাশিয়ার ব্লগ লেখক ও পড়ুয়ারা মহান পিতৃভূমি রক্ষার যুদ্ধের বীর শহর ও সেনা শৌর্য শহর গুলিতে পরিক্রমা করছেন. ব্লগ – ট্যুর বিজয় দিবস এ দশটি শহর অন্তর্ভুক্ত – তভের, সেন্ট পিটার্সবার্গ, পস্কোভ, স্মোলেনস্ক, ব্রিয়ানস্ক, কুরস্ক, ভরোনেঝ, ভলগোগ্রাদ, তুলা ও মস্কো. ব্লগের লোকেদের এই ধরনের পরিক্রমা রাশিয়াতে হচ্ছে প্রথমবার.

    প্রতিটি শহরেই ইন্টারনেটে লেখালেখি করা লোকেরা যুদ্ধের সৌধ গুলি দেখতে যাচ্ছেন, সেখানে যাঁরা এই যুদ্ধে যোগ দিয়েছিলেন, তাঁদের সঙ্গে দেখা করছেন ও স্থানীয় দল গুলির সঙ্গে দেখা করছেন, যারা যুদ্ধের অবশিষ্টাংশ খোঁজ করেন. এই সমস্ত ছোট ইতিহাস তাঁরা এক বিশেষ সাইটে লিখে রাখতে চান, সাইটের নাম www.blogtur.ru .

    আমাদের লক্ষ্য হল – আমাদের দেশের লোকেদের বিজয়ের স্মৃতিকে ধরে রাখা, যাঁরা ফ্যাসিবাদকে জয় করতে পেরেছিলেন. এই কথা "রেডিও রাশিয়াকে" দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে বলেছেন বিখ্যাত এক রুশ ব্লগ লেখক আন্তন কারাবকভ – জেমলিয়ানস্কি:

    "অনেক এমনকি সকলের জানা তথ্যও প্রায়ই অবাক করে দেয়. যেমন, লেনিনগ্রাদ অবরুদ্ধ ছিল ৯০০ দিন আর কুরস্ক শহরকে অবরোধ থেকে উদ্ধার করা হয়েছিল এক দিনেই. কুরস্ক শহরে আমরা বিমান চালিকা নিনা জিনচেঙ্কোর স্মৃতিতে নিবেদিত রাস্তা দিয়ে গিয়েছি. তিনি বিশ্বের একমাত্র মহিলা, যিনি আকাশে শত্রু পক্ষের বিমানকে ধাক্কা মেরে ফেলে দিয়েছিলেন. তভের শহরে আমরা একজন সোভিয়েত দেশের বীরের সঙ্গে দেখা করেছি, তিনি খুবই ভাল লোক, যিনি আমাদের যুদ্ধ নিয়ে অনেক গল্প বলেছেন. এখন তিনি হাসপাতালে. আমাদের তাঁর সঙ্গে দেখা করতে হাসপাতালে যেতে হয়েছিল. খুবই আবেগ ঘন মুহূর্ত তৈরী হয়েছিল, যখন তিনি এই পরিক্রমায় যাঁরা গিয়েছিলেন, তাঁদের হাতে নিজের বীর স্বর্ণ পদক টিকে স্পর্শ করতে দিয়েছিলেন".

    প্রত্যেক জনপদেই স্থানীয় জনতা, অনুসন্ধান দল ও প্রশাসনের লোকেরা ব্লগ লেখকদের নিজেদের লোকের মতই আপন করে ডেকে নিয়েছেন, তাঁরা নিজেদের কথা বলেছেন. সাহায্য করেন জায়গা মতো পৌঁছতে, দেখিয়েছেন দুর্গম সব জায়গা, তাই আন্তন কারাবকভ – জেমলিয়ানস্কি বলেছেন:

    "তভের শহরে যেমন যাদুঘর আছে একেবারে যুদ্ধ ক্ষেত্রেই. সেন্ট পিটার্সবার্গে আমরা গিয়েছিলাম যাঁরা খোঁজ করেন, তাঁদের যাদুঘর দেখতে, সেখানে সব কিছুকেই ছুঁয়ে দেখতে দেওয়া হয়. ব্রিয়ানস্ক শহরে আমরা বনে গিয়েছিলাম, সেখানে গেরিলা যোদ্ধাদের পায়ে চলা পথ ধরে হেঁটেছিলাম. প্রতিটি শহরেই নিজেদের যুদ্ধের স্মৃতি লেগে রয়েছে, এক হল যখন ইতিহাসের বইতে এই নিয়ে পড়া, আর সম্পূর্ণ অন্য হল – নিজে গিয়ে দেখা".

    "বিজয় দিবস" নামের ব্লগ – ট্যুর রাশিয়ার ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের খুবই আগ্রহী করেছে, এর মধ্যেই টুইটার মাইক্রো ব্লগে এই সম্বন্ধে প্রায় চল্লিশ হাজার লোক তা পড়েছেন. এখানে মুখ্য হবে এই সব শহরের ছবি, যুদ্ধের সময়ে যা তোলা হয়েছিল. স্থানীয় লোকেরা ব্লগ লেখক দের এই সব ছবি উদ্ধার করতে সাহায্য করছেন. ব্লগ – ট্যুর করতে যাঁরা গিয়েছেন, তাঁরা চেষ্টা করছেন সেই সব জায়গার বর্তমানের ছবি তুলতে. পরে তাঁরা এই দুটি করে ছবি দিয়ে এক কোলাজ বানাতে চান ও একটা ফোটো গ্যালারী বানাতে চান. অন্যন্য শহরের লোকেরাও এই ধরনের ছবি পাঠাচ্ছেন. মনে হচ্ছে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে ব্লগ লেখকেরা বর্তমানের প্রজন্মকে সেই সমস্ত ভয়ঙ্কর অতীত দিনের স্মৃতি কথা মনে করিয়ে দিতে পেরেছেন. তাঁরা সেই কারণেই খুব আনন্দিত, যে কিছু একটা করতে পেরেছেন আগামী প্রজন্মের জন্য এই সব দিনের স্মৃতিকে অমলিন রেখে.