বিতাড়িত তিব্বত সরকারের নতুন নেতা হিসেবে বুধবার নির্বাচিত হয়েছেন হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিদ্যালয়ের বৈজ্ঞানিক কর্মী লোবসাঙ্গ সাঙ্গেই. বিতাড়িত তিব্বত পার্লামেন্ট ও বিতাড়িত তিব্বত সরকারের তৃতীয় নেতার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল মার্চ মাসে. তিব্বতের ধর্মীয় নেতা চতুর্দশ দালাই-লামা রাজনৈতিক কার্যকলাপ থেকে সরে থাকার এবং প্রশাসনিক কার্য ভার বিতাড়িত তিব্বত সরকারের নেতাকে সমর্পণ করার অবিপ্রায়ের কথা ঘোষণার পর এ নির্বাচন আয়োজন করতে হয়েছিল. নির্বাচনী কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, সাঙ্গেই পেয়েছেন ৫৫ শতাংশ ভোট. লোবসাঙ্গ সাঙ্গেই এ পদে প্রফেসার লোবসাঙ্গ তেনজিনের স্থান নেবেন, যিনি বিতাড়িত তিব্বত সরকারের নেতার পদে নির্বাচিত হয়েছিলেন ২০০১ সালে. চীনা গণ প্রজাতন্ত্রের সীমানার বাইরে বাস করা তিব্বতীদের সংখ্যা ১ লক্ষ ৪০ হাজার, যাদের মধ্যে প্রায় ১ লক্ষ বাস করে ভারতে. চতুর্দশ দালাই-লামা রাজনীতি ত্যাগ করার এবং তাঁর হাতে থাকা প্রশাসনিক দায়িত্ব-ভার নির্বাচিত তিব্বতী নেতার হাতে সমর্পণ করার অভিপ্রায়ের কথা ঘোষণা করেন ১০ই মার্চ. বিতাড়িত তিব্বতী মন্ত্রী-পরিষদ রাজনৈতিক পদ থেকে দালাই-লামার অবসর গ্রহণের অভিপ্রায়ে সম্মত হয়, আর বিতাড়িত তিব্বত পার্লামেন্ট তাঁকে এ পদে থাকার জন্য অনুরোধ করেছিল. কিন্তু দালাই-লামাকে মানানো সম্ভব হয় নি, এবং পার্লামেন্ট সদস্যরা এক কমিশন গঠন করে, যা মে মাস নাগাদ দালাই-লামার হাতে থাকা দায়িত্ব বন্টনের ধারণা প্রস্তুত করবে. বর্তমানে দালাই-লামার হাতে থাকছে প্রধাণত আনুষ্ঠানিক কর্তব্য, য়েমন মন্ত্রীদের পদে প্রার্থীদের অনুমোদন করা এবং কিছু কিছু দলিলের গ্রহণে সম্মতি দেওয়া.