যাঁরা বুদ্ধি প্রসূত সৃষ্টির স্বত্ত্বের অধিকারী, তাঁদের জন্য শীঘ্রই নিজস্ব সুরক্ষা সংস্থার উদ্ভব হতে চলেছে. রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ রুশ মধ্যস্থতাকারী বিচারালয় গুলির ব্যবস্থার কাঠামোর মধ্যে বুদ্ধি প্রসূত সম্পদের সুরক্ষার জন্য এক বিশেষ আদালত তৈরী করে, সেটিকে স্কোলকোভো উদ্ভাবনী কেন্দ্রে রাখার জন্য প্রস্তাব করেছেন. এই ধারণা বিশেষজ্ঞদের সাথে একত্রে চিন্তা ভাবনা করে বাস্তবায়িত করার কাজ রাষ্ট্রপতি তাঁর প্রশাসনকে দিয়েছেন.

    রাশিয়াতে বুদ্ধি প্রসূত সম্পদের সংরক্ষণের জন্য এই ধরনের বিচার সভা তৈরী করার প্রয়োজন এই প্রথম বছর অনুভূত হয় নি. আর এই বিষয়ে শুধু আইন বিশেষজ্ঞরাই বলেন নি, অর্থনীতিবিদ ও ব্যবসায়ী এমনকি সব চেয়ে উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মচারীরাও একই কথা বহুবার বলেছেন.

    বর্তমানে বুদ্ধি স্বত্ত্ব সুরক্ষা সংক্রান্ত আইনগত কাজ কর্ম দেওয়ানি আদালতে করা হয়ে থাকে, আর তা ভঙ্গের জন্য শাস্তি দেওয়া হয়ে থাকে ফৌজদারী আদালতে. দেশে শুধু এই বিষয়ে বিচারের জন্য আলাদা করে কোন আদালত নেই. কিন্তু একই সময়ে বর্তমানে এই ধরনের অধিকার ভঙ্গের অভিযোগ গত কয়েক বছরে বেশ কিছু গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে, এই কথা রাশিয়ার উচ্চ মধ্যস্থতা আদালতের প্রশাসনের প্রধান ইগর দ্রজদোভ বলেছেন:

    "আর এই সমস্ত বিতর্ক বিশেষ ধরনের. আর তাদের বিচারের জন্য প্রয়োজন হয় পেশাদারী জ্ঞান, তা যেমন আইন সংক্রান্ত, তেমনই প্রযুক্তি সংক্রান্ত. তাই প্রয়োজন হয়েছে নতুন ধরনের বিচারালয় তৈরী করার, যেখানে এই ধরনের মামলার সম্বন্ধে পেশাদার বিচারপতিরা মনোযোগ দিতে পারবেন ও অন্য দিকে আদালতে প্রযুক্তি সংক্রান্ত বিশেষজ্ঞরাও কাজ করবেন, যাঁদের সিদ্ধান্ত ব্যবহার করে জটিল বিষয়ে রায় দেওয়ার বিষয়ে বিচারপতিরা নির্ভর করতে পারবেন".

    বিদেশের অভিজ্ঞতা দেখিয়েছে যে, সেই সমস্ত দেশে, যেখানে বুদ্ধি স্বত্ত্বের ক্ষেত্রে পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নত, সেখানে এই ধরনের বিশেষ আদালত রয়েছে. অংশতঃ এই বছরে জার্মানীর পেটেন্ট আদালতের ৫০ বছর পালিত হবে, জাপানেও এই ধরনের বুদ্ধি প্রসূত স্বত্ত্ব সুরক্ষার জন্য আদালত রয়েছে. এই ধরনের কাঠামো রয়েছে গ্রেট ব্রিটেন, ভারত, তুরস্কে. রাশিয়াতে এই ধরনের আদালত তৈরী হতে চলেছে এক বিশেষ স্থানে – স্কোলকোভো তে, এই কথা উল্লেখ করে ইগর দ্রজদোভ বলেছেন:

    "আমাদের মনে হয়েছে যে, এটা খুবই সঠিক জায়গা নির্ণয় করা হয়েছে, কারণ স্কোলকোভো তহবিলের প্রধান কাজ হল সেই সমস্ত কোম্পানীর সৃষ্টিতে সাহায্য করা, যারা বুদ্ধি প্রসূত জিনিসের উত্পাদন করবে, যার দাম হবে অনেক. স্কোলকোভো এলাকায় তৈরী বুদ্ধি স্বত্ত্ব কত দামী এটা এই তহবিলের ও তার সমস্ত সফল কাজকর্মের একটা সূচক. তাই বুদ্ধি প্রসূত সম্পদের সুরক্ষা – একটি মূল প্রশ্ন, যা এই প্রকল্পের অংশগ্রহণকারীদের ও তহবিলের কর্তাদের সামনে আজ রয়েছে. আর আমরা আশা করি যে, এই নব নির্মীয়মাণ আদালত এই প্রকল্পের অংশগ্রহণকারীদের সকলের অধিকারকে সুরক্ষিত করায় সাফল্য প্রদর্শন করবে. এখানে আমার মতে এর থেকে ভাল জায়গা বের করা সম্ভবই হতে পারে না, কারণ উদ্ভাবনী ক্ষেত্র নিজেই উদ্ভাবনী কেন্দ্রের মধ্যে থাকছে".

    বিচারালয় ছাড়া স্কোলকোভো এলাকায় উদ্ভাবনী কেন্দ্রের তহবিলের বিশেষ শাখা হিসাবে বুদ্ধি স্বত্ত্ব সংরক্ষণ কেন্দ্র খোলা হবে. এই কেন্দ্র প্রকল্পের অংশীদার দের তাঁদের কাজের ফলের উপরে একান্ত অধিকার সংরক্ষণ ও তা ব্যবসায়িক ভাবে ব্যবহারের জন্য সাহায্য করবে. এই সমস্তই কেন্দ্রে আরও বেশী করে আগ্রহজনক ও সম্ভাবনাময় বৈজ্ঞানিক প্রকল্পকে টেনে আনবে, তা ছাড়া রাশিয়াতে বুদ্ধি স্বত্ত্ব সুরক্ষার বিষয়ে সমস্যার সমাধান করবে, যা দেশকে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় যোগদানে সহায়তা করবে. কারণ আগে এই ক্ষেত্র নিয়েই প্রচুর আপত্তি উঠেছিল.