0জাপানের কর্তৃপক্ষ এ সম্ভাবনা বাদ দিচ্ছেন না যে, “ফুকুসিমা-১” পারমাণবিক বিদ্যুত্শক্তি কেন্দ্রের চারপাশে অপসারণের এলাকা ৩০ কিলোমিটারের বাইরেও প্রসারিত হতে পারে. কেন্দ্রের তৃতীয় রিয়াক্টরের টার্বাইন হলে তেজষ্ক্রিয়তার মান নির্ধারিত সর্বাধিক মাত্রার চেয়ে ১০ হাজার গুণ বেশি. জাতীয় পারমাণবিক নিরাপত্তা এজেন্সিতে অনুমান করা হচ্ছে যে, রিয়াক্টরে কোনো ক্ষতি হয়েছে. বৃহস্পতিবার ১৭ জন কর্মী অতি মাত্রার বিকীরণ পেয়েছে. আরও দুজন বিশেষজ্ঞকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে তেজষ্ক্রিয় জলের সংস্পর্শে আসায় চামড়ায় গুরুতর ক্ষতের জন্য. পারমাণবিক বিদ্যুত্শক্তি কেন্দ্রের রিয়াক্টর ঠান্ডা করার জন্য ব্যবস্থায় মিঠে জলের সক্রিয় ব্যবহারের জন্য প্রস্তুতি শুরু হয়েছে, কারণ সমুদ্রের লবণাক্ত জল তার বিপুল ক্ষতি সাদন করতে পারে. জাপানে ভূমিকম্প ও সুনামীর ফলে নিহত ও নিথোঁজ লোকেদের সংখ্যা ২৭ হাজার জনে পৌঁছেছে.