রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দমিত্রি মেদভেদেভ মনে করেন যে, লিবিয়া গৃহযুদ্ধের সীমারেখায় রয়েছে. বিপর্যয় নিরসন মন্ত্রী সের্গেই শোইগুর সাথে সাক্ষাতে রাষ্ট্রপতি বলেন, “আমাদেরও কর্তব্য ছিল আমাদের নাগরিকদের জীবন বাঁচানো”. এর প্রাক্কালে রাশিয়ার বিপর্যয় নিরসন মন্ত্রণালয় লিবিয়া থেকে রাশিয়াবাসীদের অপসারণ শেষ করে. মেদভেদেভের কথায়, এ ছিল একটি বড় ও জটিল অভিযান. তিনি সের্গেই শোইগুকে প্রস্তাব করেন মন্ত্রণালয়ের সেই সব কর্মীর নাম পুরস্কারের জন্য পেশ করার, যাঁরা লিবিয়া থেকে রাশিয়াবাসীদের অপসারণের কাজে বৈশিষ্ট্য প্রদর্শন করেছেন. রাষ্ট্রপতি জোর দিয়ে বলেন, “আমরা তা শুরু করি অন্যান্য দেশের চেয়ে আগে, যারা অপেক্ষা করে ছিল. এ অভিযান শেষ করা হয়েছে নিখুঁতভাবে পরিকল্পনা অনুযায়ী”. ৪২ বছর ধরে শাসন করা দেশের নেতা মুয়াম্মার গাদ্দাফির পদত্যাগের দাবিতে লিবিয়ার প্রদেশগুলিতে ১৫ই ফেব্রুয়ারী থেকে প্রতিবাদ আন্দোলন চলছে. শেষ প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, নিরাপত্তা বাহিনী ও বিদেশী ভাড়াটেদের সাথে মিছিলকারীদের সঙ্ঘর্ষে প্রায় ২ হাজার জন নিহত হয়েছে.