এই বিষয়ে জানিয়েছেন রাষ্ট্রীয় সচিব হিলারি ক্লিন্টন. তাঁর কথামতো ওয়াশিংটন খুবই মনোযোগ দিয়ে সামাজিক সাইট গুলিতে আলোচনার খেয়াল করে ও তার সাফল্য সম্পর্কে যথেষ্ট ভাবে জানে. ইন্টারনেট বিশ্বে গণতন্ত্র প্রসারের একটি যন্ত্র – বলেছেন হিলারি ক্লিন্টন. আমেরিকার রাষ্ট্রীয় দপ্তর একই সঙ্গে হিন্দী, চিনা, আরব ও পারসী ভাষায় পেজ খুলতে চায়.