বর্তমানের জাপান সরকার প্রধানমন্ত্রী নাওতো কান এর নেতৃত্বে যে পদ্ধতি রাশিয়ার সঙ্গে কুরিল দ্বীপপূঞ্জ নিয়ে আলোচনার জন্য ব্যবহার করছে, তা সমর্থন করে নি. সংবাদ পত্র সানকেই ১২ -১৩ ফেব্রুয়ারী সারা দেশ জুড়ে নেওয়া এক সামাজিক মত সংক্রান্ত পরিসংখ্যানে এই ফল দেখতে পেয়েছে. প্রধানমন্ত্রী নাওতো কান রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভের কুরিল দ্বীপপূঞ্জ সফর কে ক্ষমার অযোগ্য রুক্ষ ব্যবহার বলে উল্লেখ করার পরে সংবাদ পত্র এই জনমত নেওয়ার ব্যবস্থা করেছিল. তখন অতি দক্ষিণ পন্থী দলের কর্মীরা টোকিও শহরে রাশিয়ার রাজদূতাবাসের সামনে খুবই শোরগোল তুলে সমাবেশ করেছিল ও রাশিয়ার জাতীয় পতাকার অবমাননা করেছিল. ঠিক এর পরেই ১১ – ১২ ফেব্রুয়ারী জাপানের পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রধান সেইঝি মায়েহারা মস্কোতে এই প্রশ্নে আলোচনা করেন ও তাতে প্রমাণিত হয় যে, দুই পক্ষের এই দক্ষিণ কুরিল দ্বীপপূঞ্জ প্রশ্নে অবস্থান সম্পূর্ণ বিপরীত.