ভারতের কর্তৃপক্ষ রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের তাড়াতাড়ি সংস্কার সাধনের পক্ষে মত প্রকাশ করছে, এ সম্বন্ধে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শ্রী এস.এম. কৃষ্ণ-র উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে “এ.এফ.এ” সংবাদ সংস্থা. পূর্ব ইউরোপের দেশগুলির সাংবাদিকদের মন্ত্রী বলেন, “১৯৪৫ সালে স্বাক্ষরিত রাষ্ট্রসঙ্ঘের সংবিধি একবিংশ শতকেও বলবত্ রয়েছে, এবং তা বিশ্লেষণের দাবি করে. বিগত ৬০ বছরে বহু দেশ স্বাধীনতা অর্জন করেছে, এবং তা এ সংবিধিতে প্রতিফলিত হওয়া উচিত”. মন্ত্রী মনে করেন, “তাড়াতাড়ি রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের সংস্কার সাধন করা দরকার, এবং রাষ্ট্রসঙ্ঘের অন্তর্ভুক্ত দেশগুলি তা করতে প্রস্তুত”. শ্রী এস.এম.কৃষ্ণ-র কথায়,তাঁর দেশের অবশ্যই রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য হওয়া উচিত, কারণ ভারতে বাস করে একশো কোটিরও বেশি লোক. তিনি এ বিষয়ে দুঃখ প্রকাশ করেন যে, রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্যদের মধ্যে আফ্রিকার কোনো দেশ নেই. ২০১১ সালের জানুয়ারীতে ভারত রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী সদস্য হয়েছে. তা দু বছরের জন্য নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছে. রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্যদের তালিকায় ভারতকে অন্তর্ভুক্ত করার আহ্বান দিল্লিতে এই প্রথম ধ্বনিত হচ্ছে না. রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের সংস্কারের ক্ষেত্রে তার স্থায়ী সদস্য হওয়ার জন্য ভারতের প্রচেষ্টা রাশিয়া সমর্থন করে.