রাশিয়াতে হাইব্রিড মোটর যুক্ত তিনটি সবচেয়ে কম দামী গাড়ীর মডেল দেখানো হয়েছে. পাঁচটি দরজা সমেত হ্যাচ ব্যাক, ক্যুপে ক্রস ওভার ও একটি মালবাহী ছোট্ট গাড়ী আপাততঃ মডেল অবস্থায় দেখা গিয়েছে, কিন্তু আর দেড় বছর বাদেই তাদের বাণিজ্যিক উত্পাদন শুরু হয়ে যাবে, যাঁরা এই গাড়ীটি উদ্ভাবন করেছেন, তাঁরা বলেছেন যে, এই ধরনের গাড়ীর দাম দশ হাজার ডলারের বেশী হবে না.

     "আমাদের কাজ হল শুরুতেই দুটো পুরনো ধারণা ভাঙ্গা – প্রথম হল – রাশিয়াতে ভাল গাড়ী তৈরী সম্ভব নয়, আর দ্বিতীয়টি হল – নতুন গাড়ী শুধু সরকারি অনুদানেই তৈরী করা সম্ভব". এই কথা বলেছেন, নতুন গাড়ীর জন্য যিনি অর্থ দিতে তৈরী সেই রুশ অতি ধনী ব্যক্তি মিখাইল প্রোখোরভ, তিনি গাড়ীর প্রদর্শনীতে যোগ দিয়েছিলেন. তাঁর কথামতো নতুন রুশ গাড়ী তৈরী হয়েছে, সম্পূর্ণ ভাবে ব্যক্তিগত পূঁজির উপরে নির্ভর করে.

    প্রোখোরভ রুশ নাগরিক গাড়ীর উদ্ভাবনের জন্য ১৫ কোটি ডলার দিচ্ছেন ও দৃঢ় বিশ্বাস করেন যে, তাঁর অর্থ পাঁচ বছরের মধ্যেই ফিরে পেয়ে যাবেন ব্যবসায়ী ও তাঁর সহকর্মীরা রুশ গাড়ী তৈরীর জগতে একটি বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনতে চলেছেন, তাঁরা হাইব্রিড জোড়া লাগানো যায় এমন গাড়ী তৈরী করতে যাচ্ছেন, যা বড় অংশকে ছোট কারখানায় জোড়া লাগিয়ে তৈরী করা যাবে. ফলে বড় ধরনের কোন গাড়ী তৈরীর কারখানা তৈরী করার কোন দরকারই পড়বে না ও তা আপনা হতেই অপ্রয়োজনীয় হয়ে যাবে বলে মনে করেছেন নির্মাতারা.

    নতুন গাড়ীতে যে মোটর লাগানো হচ্ছে তার শক্তি ৬০ "অশ্ব শক্তি" সম্পন্ন ও শক্তি বাড়ানোর যন্ত্রের ক্ষমতা ১৫০ "অশ্ব শক্তি". ১০০ কিলোমিটার অবধি গতিবেগ পেতে গাড়ীর ১৪ সেকেন্ডের বেশী সময় লাগবে না. প্রধান জ্বালানী হবে প্রাকৃতিক মিথেন গ্যাস, যা ইউরোপীয় মাত্রা স্তর "ইউরো – পাঁচ" এর পর্যায়ের. গাড়ীর শরীর তৈরী হবে হালকা অথচ শক্ত পলিমারের যৌগ পদার্থ দিয়ে, সেই বিষয়ে কোন গোপন তথ্য আপাততঃ নির্মাতারা দিচ্ছেন না, আর গাড়ীর ভিতরে জায়গা থাকবে অনেক, যাতে এমনকি প্রোখোরভ এর মত দুই মিটার লম্বা লোকও অনায়াসে বসতে পারে আরাম করে. তিনি বলেছেন:

    "যদি সাধারন কোন গাড়ীর সঙ্গে তুলনা করা হয়, তবে আমার সব সময়েই মাথায় লাগে, আর এটিতে আমি আরাম করে বসতে পারছি. এর অর্থ নয় যে, আমার জন্য বিশেষ করে এই গাড়ী বানানো হয়েছে. এটা নতুন স্তরের গাড়ী, যা ছোট মাপের হলেও ভেতরে জায়গা অনেক. কারণ এখানে যে চালক ব্যবস্থা লাগানো হয়েছে, তা উদ্ভাবনী প্রযুক্তি ব্যবহার করে ছোট আকারের করা সম্ভব হয়েছে".

    "ইও মোবিল" - নতুন রুশ গাড়ীর এই নামই দেওয়া হয়েছে, যাতে গ্লোনাসস – জি পি এস দিক নির্ণয় ব্যবস্থা থাকছে, গাড়ীর প্যানেল বোর্ড টাচ স্ক্রিন ধরনের, যাতে ইন্টারনেট ব্যবস্থাও ব্যবহার করা সম্ভব ও আরও নানা ধরনের সুবিধা রয়েছে. এই গাড়ী খোলা ও চালু করা সম্ভব হবে মোবাইল টেলিফোন দিয়েই.

    নতুন মডেল যাঁরা বানিয়েছেন, তাঁদের আসা রাশিয়াতে বড় ধরনের সাফল্য পাওয়ার, কিন্তু আন্তর্জাতিক বাজারে যে সাফল্য পাওয়া যেতে পারে, তা তাঁরা মনে করতে ছাড়েন নি. গাড়ীর নাম "ইও মোবিল" দেওয়া হয়েছে বেশ কয়েকটি রুশী প্রায় অনুবাদ অযোগ্য শব্দ সম্ভার থেকে. ইংরাজী ভাষায় এই গাড়ীর নাম হবে তোমার গাড়ী – "ইওর অটোমোবাইল". রুশ ভাষাতেই শুধু "ইও" অক্ষর রয়েছে, তার উচ্চারণ ইংরাজী "ইওর" শব্দের উচ্চারণের সবচেয়ে কাছাকাছি.