রাশিয়ার পার্লামেন্টে স্ট্র্যাটেজিক আক্রমণাত্মক অস্ত্রসজ্জা সংক্রান্ত চুক্তির অনুমোদন বিষয়ক আইনের খসড়া দ্বিতীয় শুনানীতে গ্রহণ সহজ হবে না. পার্লামেন্টের দুটি পার্টি তা অনুমোদনের বিপক্ষে মত প্রকাশ করছে. গণ-প্রতিনিধিদের পছন্দ নয় মার্কিনী সেনেটাররা এ দলিল অনুমোদনের সময় তার যে ব্যাখ্যা দিয়েছেন.

   রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় দুমা নতুন চুক্তি আলোচনা করবে তিনটি শুনানীতে. রাশিয়ার পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে এ প্রথা ব্যবহৃত হচ্ছে এই প্রথম. সাধারণত  দুমায় আন্তর্জাতিক চুক্তি অনুমোদনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় একবারের ভোটদানে.

   ব্যাপারটা হল এই যে, মার্কিনী কংগ্রেসের সেনেট এ চুক্তির অনুমোদনের সিদ্ধান্তের সাথে বিভিন্ন ধরণের বিবৃতি ও ব্যাখ্যা যুক্ত করেছে. রাশিয়ার বহু পার্লামেন্ট সদস্য মনে করেন যে, এ সব ব্যাখ্যা এপ্রিল মাসে দমিত্রি মেদভেদেভ ও বারাক ওবামার দ্বারা স্বাক্ষরিত দলিলের মর্ম ও বয়ানের সাথে খাপ খায় না. সর্বপ্রথমে কথা হচ্ছে, মার্কিনী রকেট-বিরোধী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার সমস্যা সম্পর্কে, মনে করেন সামাজিক-রাজনৈতিক গবেষণা কেন্দ্রের ডিরেক্টর ভ্লাদিমির ইয়েভসেয়েভঃ

   যেমন আশা করা গিয়েছিল, স্ট্র্যাটেজিক আক্রমণাত্মক অস্ত্রসজ্জা সংক্রান্ত প্রাগ চুক্তির বাস্তবায়নে বাধা হয়ে উঠেছে রকেট-বিরোধী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার বিষয়টি. মার্কিনী পক্ষ নিজের বিশ্বব্যাপী রকেট-বিরোধী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা বাস্তবায়নের জন্য হাত খোলা রাখতে চায়. এর উপর নির্ভর করে মার্কিনী পক্ষ যে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে, তাতে উল্লেখ করা হয়েছে যে, মার্কিনী জাতীয় রকেট-বিরোধী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার মোতায়েন যথোপযুক্ত শর্ত নয়, যাতে রাশিয়া স্ট্র্যাটেজিক আক্রমণাত্মক অস্ত্রসজ্জা সংক্রান্ত প্রাগ চুক্তি ত্যাগ করতে পারে. মনে হয়, রাশিয়ার পক্ষ এর যথাযথ ভাবে উত্তর দেবে. কারণ মার্কিনী রকেট-বিরোধী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার তীব্র বৃদ্ধি অবশ্যই রাশিয়ার রণনৈতিক ক্ষমতার জন্য বিপদ সৃষ্টি করবে.

   মার্কিনী সংশোধন যদি না থাকত, তাহলে রাশিয়ার পার্লামেন্ট গত সপ্তাহেই এ দলিল অনুমোদন করতে পারত, এ স্থিরবিশ্বাস প্রকাশ করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নেতা সের্গেই লাভরোভ. এ দলিল ভারসাম্যপূর্ণ এবং আপোষমূলক চরিত্রের এবং নিরস্ত্রীকরণের ক্ষেত্রে এক গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ. তা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার পারমাণবিক ক্ষমতা প্রায় অর্ধেক হ্রাস করে. এ চুক্তি অনুযায়ী, সাত বছর পরে প্রত্যেক পক্ষের থাকবে ৭০০ একক বাহক – আন্তর্মহাদেশীয় ব্যালিস্টিক রকেট, সাবমেরিনে বসানো ব্যালিস্টিক রকেট এবং ভারী বোমারু বিমান. এগুলিতে ১৫৫০ একক ওয়ারহেডের বেশি থাকতে পারবে না.

   স্ট্র্যাটেজিক আক্রমণাত্মক অস্ত্রসজ্জা সংক্রান্ত চুক্তিতে সূত্রবদ্ধ স্ট্র্যাটেজিক আক্রমণাত্মক অস্ত্রসজ্জা এবং স্ট্র্যাটেজিক প্রতিরক্ষাত্মক অস্ত্রসজ্জার পারস্পরিক সম্পর্ক সর্বজনস্বীকৃত. তবে, মার্কিনী সেনেটারদের দেওয়া এ ধারার ব্যাখ্যা রাশিয়ার পক্ষের পছন্দ মতো নয়, বলেন রাষ্ট্রীয় দুমার আন্তর্জাতিক ব্যাপার সংক্রান্ত কমিটির নেতা কনস্তানতিন কসাচেভঃ

   চূড়ান্ত রূপে এ সব ব্যাখ্যা আমরা বিশ্লেষণ করব. প্রথমত, সেনেটে আমাদের মার্কিনী সহকর্মীদের দ্বারা চুক্তির ভূমিকার বিধানিক শক্তির অস্বীকার, যাতে স্ট্র্যাটেজিক আক্রমণাত্মক এবং যথাযথ স্ট্র্যাটেজিক প্রতিরক্ষাত্মক অস্ত্রসজ্জার মাঝে, অর্থাত্ স্ট্র্যাটেজিক আক্রমণাত্মর অস্ত্রসজ্জা ও রকেট-বিরোধী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার মাঝে সম্পর্ক অনুমিত. দ্বিতীয়ত, নিজের ইচ্ছে মতো চুক্তির পৃথক পৃথক ধারা ব্যাখ্যা করার চেষ্টা. চুক্তির খাস বয়ানে রেল প্ল্যাটফর্মে থাকা মোবাইল রকেট সমাহার সম্বন্ধে কোনো কথা নেই. কিন্তু সেনেটাররা বাস্তবিকপক্ষে তা চুক্তির বয়ানে লিখেছেন. যদিও সরকারীভাবে তা রয়েছে অনুমোদন সংক্রান্ত সিদ্ধান্তে. এবং তাঁরা রাষ্ট্রপতিদের এ সমঝোতা অস্বীকার করছেন যে, স্ট্র্যাটেজিক আন্তর্মহাদেশীয়  অ-পারমাণবিক রকেট, অর্থাত্ সাধারণ ওয়ারহেড হিসেব করা হবে পারমাণবিক ওয়ারহেড হিসেবে. এ সমঝোতার যুক্ত সহজেই বোধগম্য. রকেট যখন উড়ছে, তখন বোঝা সম্ভব নয়, তাতে কিরকম ওয়ারহেড রয়েছে. আর রাষ্ট্রপতিদের সমঝোতার যুক্তি এতেই নিহিত. অন্ততপক্ষে এই তিনটি অবস্থানের অতিরিক্ত ব্যাখ্যা প্রয়োজন.

   বিশেষজ্ঞদের এবং বিরোধী পার্টিগুলির স্থিরবিশ্বাসঃ এমন ব্যাখ্যার সংখ্যা হবে যথেষ্ট বেশি.