ইরানকে কেন্দ্র করে পরিস্থিতি রাশিয়ার গুরুতর উদ্বেগ জাগায় না. এ সম্বন্ধে “রেডিও রাশিয়াকে” বিশেষ করে প্রদত্ত ইন্টারভিউতে বলেছেন রাশিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই রিয়াবকোভ. তবুও, কূটনীতিজ্ঞের কথায়, ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি সম্পর্কে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে, আর তা এ ক্ষেত্রে গবেষণা যথেষ্ট স্বচ্ছ না থাকার সাথে জড়িত. রিয়াবকোভ বলেন, ইরানের  আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির সাথে সহযোগিতার ক্ষেত্রে অতিরিক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করা দরকার. এক বছরের বিরতির পরে ডিসেম্বরে “ছয়টি দেশের”- রাশিয়া. চীন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, গ্রেট-বৃটেন ও জার্মানির আলাপ-আলোচনা হয়েছে ইরানের সাথে, তার পারমাণবিক কর্মসূচি নিয়ে. পক্ষদ্বয় বিদ্যমান সমস্যাবলি আলোচনা করেছেন এবং ২০১১ সালের জানুয়ারীর শেষ দিকে নতুন নতুন সাক্ষাত্ নিরূপণ করেছেন, সবচেয়ে বিতর্কমূলক প্রশ্নগুলির মধ্যে আছে- চিকিত্সা বিজ্ঞানের উদ্দেশ্যে তেহেরানের দ্বারা ইউরেনিয়ামের পরিশোধন. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোসঙ্ঘের প্রতিনিধিরা নিশ্চয়োক্তি করছেন যে, পরে এ প্রকৌশল পরিপুরণ করা যেতে পারে, আর তা ইরানকে পারমাণবিক অস্ত্র সৃষ্টির সুযোগ দিতে পারে.