রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে সরাসরি কথাবার্তা আজ পুরো বারোটার সময়ে শুরু হয়ে চার ঘন্টা ২৫ মিনিট ধরে চলেছে. এই সময়ের মধ্যে দেশের সরকার প্রদান ৮৮টি প্রশ্নের উত্তর দিতে পেরেছেন.

    বেশীর ভাগ প্রশ্ন ছিল সামাজিক বিষয় নিয়ে, যেমন, পেনশন ও ভাতা বৃদ্ধি, জীবনযাত্রার মান, সামাজিক ও চিকিত্সা ব্যবস্থার পরিষেবা. ব্যক্তিগত প্রশ্নও কিছু কম ছিল না. কিন্তু রাশিয়ার জনগনকে আরও বেশী চিন্তিত করেছে নিরাপত্তা, আইন রক্ষা, জাতি বিদ্বেষ নিয়ে দ্বন্দ্ব. স্টুডিওতে উপস্থিত দর্শকেরা ভ্লাদিমির পুতিনের বক্তব্যের সময়ে ৯ বার হাততালি দিয়ে উঠেছেন.

    সবচেয়ে বেশী সক্রিয়তা দেখিয়েছে মস্কো শহর, ক্রাসনাদার, রস্তভ, মস্কো ও স্ভেরদলভস্ক অঞ্চলের লোকেরা. দত বছরের সরাসরি কথার চেয়ে এবারে লক্ষ্যনীয় ভাবে ইন্টারনেটে পাঠানো প্রশ্নের সংখ্যা প্রায় শতকরা পঞ্চাশ ভাগ বেড়েছে.

    ভ্লাদিমির, বৈকাল পার, নোভোকুজনেত্স্ক, আস্ত্রাখান, ক্রাসনোইয়ারস্ক, চেবোক্সার, চেলিয়াবিনস্ক অঞ্চলের সঙ্গে সরাসরি টেলিভিশন যোগাযোগের মধ্যে দিয়ে কথা হয়েছে. সরাসরি কথা চলার সময়ে জনগন সোজা টেলিফোনে প্রধানমন্ত্রীকে প্রশ্ন করতে পেরেছেন এবং এস এম এস পাঠিয়েছেন. রাশিয়ার লোকেদের সঙ্গে পুতিনের কথা রাশিয়ার বিদেশ সম্প্রচারের কল্যাণে প্রায় একশরও বেশী দেশে শুনতে পেরেছেন.