রাশিয়াতে অনেক গুলি মহিলাদের দাতব্য স্বাস্থ্য কেন্দ্র তৈরী করা হবে. প্রথমটি আগামী বছরই সেন্ট পিটার্সবার্গে কাজ করতে শুরু করবে এবং সেখানে মহিলাদের ক্যান্সার রোগের বিস্তার পূর্ব নির্ধারণ এবং সাবধান সঙ্কেত দেওয়া হবে. এই সম্বন্ধে বিশ্বের বিখ্যাত ক্যান্সার বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে সাক্ষাত্কারের সময়ে বলেছেন সামাজিক – সাংস্কৃতিক উদ্যোগ তহবিলের প্রেসিডেন্ট ও রাশিয়ার রাষ্ট্রপতির সহধর্মিনী স্ভেতলানা মেদভেদেভা.

    আধুনিক চিকিত্সা বিজ্ঞানের উন্নতি ক্যান্সার রোগের প্রসারের শুরুতে মহিলাদের শুধু এই দুরারোগ্য ব্যাধির সঙ্গে লড়াই করতেই সাহায্য করে না, বরং মা হতে পারার সম্ভাবনাকেও রক্ষা করতে পারে. এখানে প্রধান হল – সময় মতো চিকিত্সকের কাছে যাওয়া. বর্তমানের উচ্চ প্রযুক্তির যন্ত্রপাতি, যেমন, ম্যামোগ্রাফ, মার্কার, পরীক্ষা ব্যবস্থা, আণবিক পর্যায়ে পরীক্ষার ব্যবস্থা খুব দ্রুত নতুন কোন কোষ তৈরী হওয়া দেখতে পারে এবং চিকিত্সা কি করে করতে হবে তা বলতে সাহায্য করে.

    মহিলাদের জনন তন্ত্রে ক্যান্সার রোগের টিউমারের মতো রোগ, যত দ্রুত সম্ভব নির্দিষ্ট করা দরকার এই কথা উল্লেখ করে স্ভেতলানা মেদভেদেভা বলেছেন:

    "বোঝাই যাচ্ছে যে, সমস্ত বয়সের মহিলাদেরই উচিত স্থায়ী নিয়ন্ত্রণের মধ্যে থাকা. কিন্তু বিশেষ করে মনোযোগের প্রয়োজন মায়েদের. আমাদের উচিত হবে তাঁদের শুধু চিকিত্সার বিষয়েই সাহায্য না করে মানসিক ভাবেও জোর যোগানোর. এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা রয়েছে রোগের প্রতিষেধক দেওয়া, তা যেমন উচিত্ চিকিত্সালয়ে, তেমনই স্কুলে, কলেজে, ইনস্টিটিউটে এবং কাজের জায়গাতেও".

    স্ভেতলানা মেদভেদেভা মনে করেন যে, বেশী সক্রিয় ভাবে রাশিয়ার অল্পবয়সী মেয়েদের মধ্যে ব্যাখ্যা করা দরকার, তাদের বোঝানো দরকার, কি করে ছোট বয়স থেকেই নিজের স্বাস্থ্যের খেয়াল করা যায় ও এই কাজে স্বেচ্ছাসেবকদের আকৃষ্ট করা.

    মহিলাদের ক্যান্সার রোগের নির্ধারণের জন্যই এই দাতব্য চিকিত্সা কেন্দ্র গুলি তৈরী করা হচ্ছে. এইগুলি রাশিয়ার সমস্ত অঞ্চলেই দানের অর্থে তৈরী করা হবে. রাশিয়ার প্রশাসন ও সমাজের যৌথ শক্তিতেই স্ভেতলানা মেদভেদেভার মতে রাশিয়াতে মা ও সন্তানের স্বাস্থ্য রক্ষা সাফল্যের সঙ্গে সম্ভব হতে পারে. "জাতির ভবিষ্যত – মায়েদের হাতে" – এই বিষয়ে স্ভেতলানা মেদভেদেভার বিশ্বাস অটুট.

    সামাজিক সাংস্কৃতিক তহবিলের উদ্যোগে পরিবার কল্যাণ ও মহিলাদের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত এক কর্মসূচী রূপায়িত হচ্ছে "আমাকে জীবন দাও" নামে, এই তহবিলের প্রধান রাশিয়ার মুখ্য মহিলা রাষ্ট্রপতির সহধর্মিনী. কয়েকদিন আগে তহবিল সেন্ট পিটার্সবার্গে বিশ্বের সমস্ত স্বনামধন্য মহিলাদের জনন তন্ত্রে ক্যান্সার রোগ ও তার চিকিত্সা বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের উপস্থিতিতে এক ফোরামের আয়োজন করেছিল এবং মস্কো শহরে একটি বৈজ্ঞানিক প্রয়োগ মূলক সম্মেলন "জনসাধারনের জন্য ক্যান্সার রোগের নিরোধে সাহায্য" নামে অনুষ্ঠান করেছে. অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে রাশিয়ার স্তন সংক্রান্ত রোগ বিশেষজ্ঞদের সংস্থার প্রধান নাদেঝদা রঝকোভা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ক্যারোলিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্তন রোগ অনুসন্ধান কেন্দ্রের ডিরেক্টর ক্রিস্টী আ. রাসেল, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যান্সার রোগের শল্য চিকিত্সা বিভাগের প্রধান স্টিভেন এফ. সেনের ছিলেন.

    বর্তমানের বিশ্বে ক্যান্সারের মত দুরারোগ্য ব্যাধির জন্য বহু ধরনের চিকিত্সার ব্যবস্থা থাকা স্বত্ত্বেও প্রতি বছরে বিশ্বে বহু সহস্র মানুষ প্রাণ হারিয়ে থাকেন, তাঁদের মধ্যে রাশিয়াতেই প্রায় ২ লক্ষ ৮৫ হাজার লোক রয়েছেন. প্রতিটি মৃত্যুরই প্রধান কারণ – দেরীতে এই ভয়ঙ্কর রোগ নির্ণয়. আগামী তিন বছরে রাশিয়াতে ক্যান্সার গোত্রের রোগের নিরাময় ও প্রতিষেধক কর্মে জাতীয় স্বাস্থ্য প্রকল্পের মধ্যে ২১ বিলিয়ন রুবল (প্রায় ৭০০ মিলিয়ন ডলার) বরাদ্দ করা হয়েছে. বর্তমানে ক্যান্সার রোগের জাতীয় প্রকল্পের মধ্যে দেশের ২১টি অঞ্চল রয়েছে, আর ২০১৩ সালে – সমস্ত দেশই.