বৈকাল আমুর রেল পথের দ্বিতীয় পর্যায়ের কাজ করার জন্য রাশিয়া পনেরো হাজার কোটি ডলারেরও বেশী অর্থ বিনিয়োগ করতে তৈরী হয়েছে – বাম – বিশ্বের একটি বৃহত্তম পরিবহন কাজের ধমনী. রাশিয়ার রেল পথ কোম্পানীর প্রধান ভ্লাদিমির ইয়াকুনিন এই ঘোষণা করেছেন.

এক সময়ে বাম ছিল সোভিয়েত দেশের সবচেয়ে বড় পরিকাঠামো প্রকল্পের একটি. কিন্তু সেই সময়ে এই পথের সমস্ত ক্ষমতা কাজে লাগানো সম্ভব হয়ে ওঠে নি. বর্তমানে এই রেল পথে মাল পরিবহন দ্রুত বেড়ে চলেছে ও তার চলাচলের ক্ষমতা আর কুলাচ্ছে না. বাম – ২ প্রকল্প বাস্তবায়িত করতে পারলে এশিয়া ও ইউরোপের মধ্যে প্রতিযোগিতা করার মতো আরও একটি সমকক্ষ পরিবহনের রাস্তা তৈরী হবে. এই কাজের জন্য প্রয়োজন বড় মাপের বিনিয়োগ. দ্বিতীয় পর্যায়ের কাজের জন্য শুধু সরকারের বাজেটের অর্থই বিনিয়োগ করা হবে না, ব্যক্তি মালিকানা থেকেও বিনিয়োগ আসবে. এখন প্রয়োজনীয় হিসাব পত্র করা হচ্ছে, যার উপরে ভিত্তি করে দ্বিতীয় পর্যায়ের নির্মাণ কার্য শুরু করা হবে.

বিশেষজ্ঞরা ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন যে, আগামী দশকে বা রেল পথে মাল পরিবহনের পরিমান কয়েক গুণ বাড়বে. প্রথমতঃ, এটা হবে রাশিয়াতে শিল্প উত্পাদনের বৃদ্ধির কারণে. পরবর্তী কালে সমস্ত ট্রান্স সাইবেরিয়া রেল পথের মালই হয়ত বাম রেল পথে চলাচল করানো হবে. এই ভাবেই বাম হবে দেশের সবচেয়ে বড় মাল পরিবহন করার ধমনী.

একই সঙ্গে বাম – ২ এর জন্য প্রয়োজন হবে খুঁটিয়ে বিশ্লেষণ করার, রাশিয়ার উচ্চ অর্থনৈতিক স্কুলের সামাজিক রাজনীতি বিভাগের ডিরেক্টর সের্গেই স্মিরনভ এই কথা বিশ্বাস করে বলেছেন:

"বৈকাল আমুর রেল পথে অতিরিক্ত বিনিয়োগ এবং নির্মাণের জন্য উদ্যোগের মূল্যায়ণ করা দরকার. দেখা দরকার এই অঞ্চল শিল্পের প্রয়োজনে কতটা কাজে লাগতে পারে আর সেখানে বড় বিনিয়োগ কারী সংস্থা গুলির স্বার্থ আছে কি না".

    বাম – রাশিয়ার বহু শিল্পোত্পাদন করার অঞ্চল থেকে প্রশান্ত মহাসাগরে পৌঁছনোর জন্য সবচেয়ে সংক্ষিপ্ত পথ. এটা ভৌগলিক কারণের জন্যই হয়েছে. যদি সোভিয়েত দেশের সময়ে এই পথ তৈরীর মূল কারণ ছিল ভূ-রাজনৈতিক, তবে আজ তা দেশের শিল্পকে উন্নয়ন করার জন্য ব্যবহার করা সম্ভব. এশিয়ার দিকে সফল বৈদেশিক অর্থনৈতিক কাজকর্মের জন্য এর গুরুত্ব অপরিসীম.