রাষ্ট্রসংঘের পরিসংখ্যান অনুযায়ী বর্তমানে বিশ্বে প্রায় ৬৫ কোটি লোক প্রতিবন্ধী – এটা বিশ্বের জনসংখ্যার শতকরা ৮ ভাগ. ৩রা ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস পালিত হয়, যাতে এঁদের সমস্যা গুলি নিয়ে বলা যেতে পারে ও বাকী লোকেরা এঁদের সম্বন্ধে আরও ধৈর্যশীল এবং দয়ালু হন.

    রাশিয়া "প্রতিবন্ধীদের অধিকার" নিয়ে রাষ্ট্রসংঘের কনভেনশনে স্বাক্ষর করেছে ২০০৮ সালে, আর এক বছর পরে ইউরোপীয় সামাজিক চুক্তি গ্রহণ করেছে. এই কনভেনশনের প্রধান নীতি হল – সমস্ত প্রতিবন্ধীদের সমাজের বাকী লোকেদের মতই জীবনের স্বাভাবিক অধিকার দেওয়া. এই দলিলে প্রতিবন্ধকতা বিষয়কে চিকিত্সা শাস্ত্রের দৃষ্টিকোণ থেকে দেখা হয় নি, কোন দাতব্য বা নির্ভরতার দিক থেকেও নয়, বরং দেখা হয়েছে মানুষের অধিকারের দিক থেকেই, ব্যাখ্যা করে রাশিয়ার লোকসভার সদস্য মিখাইল তেরেন্তেয়েভ বলেছেন:

    "প্রতিবন্ধকতার সমস্যা – এটা সামাজিক সমস্যা, যা বহুল পরিমানে বাদা সৃষ্টি করে, যা প্রতিবন্ধী মানুষকে তাঁর অধিকার থেকে বঞ্চিত করে. এই ভিত্তি মূলক নীতি সমাজকে এই সমস্ত বাধা দূর করতে বাধ্য করে – তা শারীরিক, তথ্য প্রযুক্তি, বিচার ব্যবস্থা সমস্ত কিছুকে নিয়েই, যা বহু শতাব্দী ধরে মানব সমাজ তৈরী করেছে ও এক লহমায় যার থেকে বেরিয়ে আসা খুবই কঠিন. কিন্তু এটা প্রধান বিষয়, যার সঙ্গে লড়াই করতে হবে".

    প্রতিবন্ধীদের নানা ধরনের সমস্যা মিখাইল তেরেন্তেয়েভ স্রেফ শোনা কথা হিসাবেই জানেন না. ১৬ বছর বয়সে স্কি খেলার দুই রকমের বিষয় একসাথে করার প্রতিযোগিতা নিয়ে তৈরী হওয়ার সময়ে খুব বড় আঘাত পেয়েছিলেন – মেরু দণ্ড ভেঙে গিয়েছিল. ১০ বছর চিকিত্সা করার পরে আবার খেলাধূলার জগতে ফিরেছিলেন, কিন্তু তাও প্রতিবন্ধীর হুইল চেয়ারে. ছটি প্যারা অলিম্পিকে তিনি স্কি প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন ও চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন. খেলাধূলা করতে করতেই দুটি বিষয়ে উচ্চ শিক্ষা শেষ করেছেন. আজ ৪০ বছরের মিখাইল তেরেন্তেয়েভ – রাশিয়ার লোকসভার আন্তর্জাতিক বিষয় পরিষদের সদস্য, রাশিয়ার প্যারা অলিম্পিক কমিটির মহাসচিব.

    কয়েকদিন আগের জাতীয় সভায় বক্তৃতা দিতে গিয়ে রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ বলেছেন যে, আজ রাশিয়াতে বহু প্রতিবন্ধী লোকই খেলাধূলা ও নানা রকমের সৃষ্টির কাজে সবচেয়ে ভাল ফল করছেন, যা রাশিয়ার কৃতিত্ব বাড়িয়েছে. রাষ্ট্রপতি উল্লেখ করেছেন যে, "এই রকম হচ্ছে প্রায়ই পরিস্থিতিকে অতিক্রম করে, সমাজ বা রাষ্ট্রের নেওয়া কোন সুস্থ ব্যবস্থার ফল হিসাবে নয়". এই সমস্ত সমস্যা অতিক্রম করার জন্য "সহজ পরিবেশ" নামে রাষ্ট্রীয় পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে.

    এই পরিকল্পনা আগামী বছর থেকে শুরু হতে চলেছে, তা পূর্ণ করতে বাজেট থেকে ২, ৩ হাজার কোটি রুবল বরাদ্দ করা হয়েছে (৭৭ কোটি ডলার). রাশিয়ার এক কোটি ৩০ লক্ষ প্রতিবন্ধীদের জন্য, যাদের মধ্যে ৫ লক্ষ ৫০ হাজার - শুধু বাচ্চা, সহজ পরিবেশ তৈরী করার জন্য লক্ষ্য নেওয়া হয়েছে বিশ্বের সেরা উদাহরণ গুলি থেকে. "আমরা এই বিষয়ে এর মধ্যেই নির্দিষ্ট অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি", - বলেছেন প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিন, তিনি আরও যোগ করেছেন:

    "সোচী অলিম্পিকের প্রস্তুতির পরিকাঠামো তৈরীর কাজে বিশেষ করে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে যাঁদের স্বল্প ক্ষমতা রয়েছে, তাঁদের কথা মনে রেখে. এছাড়া রাশিয়ার বহু অঞ্চলে এঁদের জন্য বিশেষ পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে. এই অঞ্চল গুলি হল – মস্কো, সেন্ট পিটার্সবার্গ, নিঝনি নভগোরদ, কেমেরোভা ও স্মোলেনস্ক রাজ্য. এই অভিজ্ঞতাকে সকলের জন্য ব্যবহার যোগ্য করে সারা রাশিয়াতেই এমন পরিবেশ তৈরী করা হবে, যা প্রতিবন্ধীদের জন্য সহজ পরিবেশ হয়. তাঁরা যাতে বাঁচতে, পড়তে ও কাজ করতে পারেন. এই পরিকাঠামো হওয়া উচিত্ নতুন পর্যায়ের, যা সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে তৈরী হবে".

    এই পরিকল্পনার একটি প্রধান বিষয় হবে স্কুল-পড়ুয়া প্রতিবন্ধী বাচ্চাদের জন্য. আজ রাশিয়ার মাত্র দুই শতাংশ স্কুল এই ধরনের বাচ্চাদের জন্য সহজ গম্য. ভবিষ্যতে সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমস্ত প্রতিবন্ধী বাচ্চাদেরই অন্যান্য দের সঙ্গে একসাথে সব কিছু করার সুযোগ করে দেবে.