রাশিয়া আন্তর্জাতিক ভাবে ফেরারী বলে ঘোষিত অপরাধীদের ধরার বিষয়ে ইন্টারপোল সংস্থার কাঠামোর মধ্যে সহযোগিতা সক্রিয় করেছে. গত বছরে ইন্টারপোল রাশিয়ার আইন সংরক্ষণ বিভাগের পাঠানো হুলিয়া অনুযায়ী ১৩০০ জনকে ধরেছে, আর এ বছরে হুলিয়া জারী করা হয়েছে – ১৫০০ জনের বেশী লোকের নামে.

    খোঁজ করার জন্য সফল ভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে নূতন প্রযুক্তি, যা আজকের পুলিশ বিভাগ নিজেদের কাজে লাগাচ্ছে, আর তারই সঙ্গে যোগ দিয়েছে সাধারন গ্রাহকদের সক্রিয়তা. এই বছরের গরম কালে প্রাক্তন রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা বিভাগের কর্মী রমান রমাচেভ ইন্টারপোলকে আন্তর্জাতিক অপরাধী ধরার বিষয়ে বাস্তব সাহায্য করেছেন. আর, তাঁর কথামতো, আন্তর্জাতিক পুলিশ এই উদ্যোগকে মূল্য দিয়েছে:

    "এই বছরের গরমে ইন্টারপোল "অতি রক্তিম" নামে এক বিশাল অপারেশন শুরু করেছিল, ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের কাছে তারা অনুরোধ করেছিল যে, সেই সমস্ত লোকেদের ধরার কাজে সাহায্য করতে, যারা নানা ধরনের অপরাধ করে পালিয়ে বেড়াচ্ছে. আমার এই ধারণাটা পছন্দ হয়েছিল, আর আমি চার ঘন্টা সময়ের মধ্যেই ৮ জনকে খুঁজে পেয়েছিলাম, যাদের নাম বেলোরাশিয়া প্রজাতন্ত্র, কাজাখস্থানের আর্থিক দুর্নীতি বিষয়ক পুলিশ ও ইন্টারপোলের তথ্য ভাণ্ডারে রয়েছে. মিথ্যে বিনয় না করে বলতে চাই ইন্টারপোল আমার উদ্যোগকে স্বীকৃতী দিয়েছে, কারণ এখন আমি তাদের সাইটে দেখতে পেয়েছি রাশিয়ার সামাজিক সাইট থেকে নেওয়া ছবি, যেখানে আমি নিজেই এই সমস্ত নানা অপরাধে অভিযুক্ত লোকেদের খুঁজে পেয়েছিলাম".

    রাশিয়ার এই ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর উদ্যোগ শুধু লিওন শহরেই লক্ষ্য করা হয় নি, যেখানে ইন্টারপোল সংস্থার মূল দপ্তর রয়েছে, মস্কোতেও হয়েছে. রাশিয়ার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ জাতীয় কেন্দ্রীয় ইন্টারপোল কেন্দ্র জানিয়েছে যে, আন্তর্জাতিক অপরাধীদের ধরার কাজে সাহায্য করলে লোকেদের অর্থ দিয়ে পুরস্কৃত করা হবে. এক্ষেত্রে শুধু রাশিয়ার লোকেদেরই নয়, এমনকি বিদেশীদের মধ্য থেকে বা যাদের কোন দেশের নাগরিকত্ব নেই তাদেরও. এই সব ঠিক, কিন্তু সমস্যা, এতে দুঃখের কথা হলেও, কোন ভাবেই সমাধান করা যাচ্ছে না. মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন নয়, কিন্তু তাদের নিজেদের দেশে ফিরিয়ে দেওয়া – সোজা কাজের মধ্যে পড়ে না. রাশিয়া যে সব লোক এখানে অপরাধ করেছে বলে অভিযুক্ত, তারা সেই সমস্ত দেশে গিয়ে থাকতে ভাল বাসে, যাদের সঙ্গে রাশিয়ার এখনও বন্দী বিনিময় বা অপরাধী ফেরত পাঠানোর কোন চুক্তি নেই. যেমন, গ্রেট ব্রিটেন, তাই সেখান থেকে রাশিয়া থেকে চেয়ে পাঠানো অপরাধীদের ফেরত দেওয়া হচ্ছে না, তাদের নামে ফৌজদারী মামলা থাকলেও. তাদের মধ্যে – চিচনিয়ার দস্যুদের প্রতিনিধি আহমেদ জাকায়েভ ও বড় ব্যবসাদার বরিস বেরেজোভস্কি. তাই ইন্টারপোলের তথ্য ভাণ্ডারে যাদের নাম রয়েছে, তাদের যতদিন না সরকার গুলির মধ্যে ফেরত দেওয়া নিয়ে চুক্তি হচ্ছে, ততদিন, দুঃখের বিষয় হলেও, এই সব খোঁজার ব্যবস্থা একশ ভাগ সার্থক হয়েছে বলা সময়ের আগেই হয়ে যাবে.