যুক্তরাষ্ট্রের ‘রাজনৈতিক সুনামির’ করণে মস্কো এবং ওয়াশিংটনের মধ্যে পারমানবিক অস্ত্রহ্রাস বিষয়ক স্টার্ট চুক্তির  বাস্তবায়ন যা এখন অনুসন্ধানের মাঝে অবস্থান করছে.বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা আস্থার সাথে জানান যে,চলতি বছরের শেষ নাগাদ তিনি সেনেটে এই চুক্তির অনুমোদন করবেন.কেবিনেট সদস্যদের সাথে স্বাক্ষাতের পরই ওবামা এই বিবৃতি দেন.প্রথমত,অন্তর্বতীকালিন নির্বাচনে ডেমোক্রেটিক দল অধিকাংশ ভোট না পাওয়ার কারণে সেনেটে তা পাশ করা সম্ভব হয় নি.

নির্বাচনের ফলাফল যা যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক অঙ্গনে ঘোলাটে পরিবেশ সৃষ্টি করেছে এবং যা ছিল অপ্রত্যাশিত.বিশেষভাবে বারাক ওবামার জন্যই.রাশিয়ার সাথে পারমনাবিক অস্ত্রহ্রাস যুক্তির বিষয়টি অনুমোদনে বারাক ওবামা যে প্রধান প্রশ্নসমূহ উল্লেখ করেছেন তা ব্যাখ্য করা হয় নি বলে অনেকেই তা মনে করছে.তার মতে,এই বিষয়টি তিনি সেনেটারদের আগামী ‘পঙ্গু হাস’ শীর্ষক অধিবেশনে সমাধান করবেন এবং তার জন্য জানয়ারি মাস শুরু হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে.ঐ সময় যে সকল সেনেটাররা পরাজিত হয়েছেন তাদের মেয়াদকাল উত্তীর্ন হবে.মার্কিন প্রেসিডেন্ট মুলত সেই ‘পঙ্গু হাস’ অধিবেশনের কাছ থেকে সহযোগিতার জন্যই অপেক্ষা করছেন,তখন হয়ত পারমানবিক অস্ত্রহ্রাস বিষয়ক মস্কোর সাথে স্টার্ট চুক্তিকে ‘হ্যাঁ ’ বলা যাবে.এই ভাবনাকে অবান্তর বলা হবে,এমনই মনে করছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্র ও প্রতিরক্ষা রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ ফেওদর লুকইয়ানোভ.তিনি বলেন,এটি একদমই নিশ্চয়তা দিচ্ছে না কারণ ঐ অধিবেশনের মেয়াদকাল অনেক সংক্ষিপ্ত.নিয়ম অনুসারে সেনেটরা তখন সেই প্রশ্নেই বেশি মনোযোগি হয়ে থাকে যা তাদের কাছে সবথেকে বেশি গুরুত্বের.সর্বপ্রথম তা রাষ্ট্রীয় বাজেট,কোন রাজনৈতিক চুক্তির বিষয় নয়.তাই এখন নতুন সেনেটরদের জন্যই অপক্ষা করতে হবে.বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ধারনা করা হচ্ছে যে, এই চুক্তি নতুন সেনেটারদের কর্তৃক অনুমোদন দেওয়া হবে.

তবে এই বিষয়টিও একেবারে উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না যে,রিপাবলিকানদের দন না থাকলেও বারাক ওবামার নেওয়া সকল প্রকল্পেরই ইতি টানতে তারা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে.যদিও বারাক ওবামা তার বিবৃতিতে বলেছিলেন যে,রাশিয়ার সাথে পারমানবিক অস্ত্রহ্রাসের চুক্তি তা শুধুমাত্র ডেমোক্রেটিকদের বা রিপাবলিকানদের কাছে দায়বদ্ধ নয় বরং তা দেশের সামগ্রিক নিরাপত্তার বিষয়টি জড়িত.চুক্তিপত্র স্বাক্ষরের চুড়ান্ত সম্ভাবনাও এক্ষেত্রে হ্রাস পাচ্ছে বলে মনে করেন যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা বিষয়ক ইন্সটিটিউট রাশিয়ার বিজ্ঞান একাডেমীর বিশেষজ্ঞ আলেক্সান্দার শুমিলিন.

তিনি বলেন,তড়িঘড়ি করে চুক্তিপত্রটি অনুমোদন দেওয়ার কোন বাধ্যবাধকতা নেই তবে এর কর্যকারিতায় ছন্দ পতন ঘটবে.রিপাবলিকানরা কোন বিনিময়ে প্রকল্প নিয়ে বারাক ওবামার যে কোন কর্মকান্ডে সম্মতি হতে পারে.

৮ এপ্রিল প্রাগে রাশিয়ার ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট যখন পারমানবিক অস্ত্রহ্রাস সংক্রান্ত চুক্তি সই করে তখন এই চুক্তির পাশের জন্য সব ধরনের ক্রিয়াকলাপ পরিচালনায় সম্মতি হয়েছে.এর ঠিক তিন মাসের মধ্যেই রাশিয়ার পার্লামেন্ট দুমার আন্তর্জাতিক বিষয়ক কমিটি এই চুক্তির অনুমোদন দেয়.যদিও ঐ কমিটি বুধবার এক ঘোষণায় জানাতে বাধ্য হয় যে,চুক্তিপত্রটির পুনরায় পর্যালোচনা করা হোক.যুক্তরাষ্ট্রের সেনেটের আন্তর্জাতিক কমিটির কারনেই ঐ ঘোষণা দেওয়া হয়.যুক্তরাষ্ট্রের রকেটবিহীন প্রতিরোধ ব্যবস্থার কার্যকারিতা এবং পারমানবিক অস্ত্রবিহীন কর্মসূচি যেখানে রাশিয়ার নিরাপত্তার বিষয়টি উপেক্ষা করা হয়েছে.সুতরাং এখন শুধুমাত্র চুক্তিপত্র অনুমোদনের সময়সীমার যাবতীয় সমস্যাই নয় বরং চুক্তিপত্রের মূল বিষয়বস্তুর অংশ আলোচনা করার প্রয়োজনীয়তা দেখা যাচ্ছে.