রেডিও কোম্পানী “রেডিও রাশিয়া” এবং “আন্তর্জাতিক রুশ ভাষায় সম্প্রচার কোম্পানী গুলির সম্মেলন” মস্কো শহরে এক রুশ ভাষার রেডিও গুলির দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক উত্সবের আয়োজন করেছে (১লা থেকে ৩রা নভেম্বর). রাশিয়ার রাজধানীতে বিশ্বের ৩১টি দেশ থেকে একশরও বেশী প্রতিনিধি জড় হয়েছেন. তাদের একটা বিষয়ই সাধারন – তারা রুশ ভাষায় নিজেদের রেডিও শ্রোতাদের সঙ্গে কথা বলে থাকে.

সের্বিয়া থেকে আসা প্রতিনিধি ইগর গোইকোভিচ বলেছেন যে, বালকান অঞ্চলে রুশ ভাষার উপরে আগ্রহ খুব বেশী. অর্থনৈতিক সম্পর্কও ঠিক হচ্ছে, রাশিয়া “দক্ষিণ প্রবাহ” নামে গ্যাস সরবরাহ করার এক বিশাল প্রকল্প তৈরী করছে আর সের্বিয়াতে এসেছে রুশ ব্যবসায়ী ও বিশেষজ্ঞদের ঢেউ. সের্বিয়ার যুব সম্প্রদায়, যারা আজ ইংরাজী ভাষার সম্পূর্ণ বেষ্টনে বেঁচে রয়েছে, তাদেরও আজ নিজেদের ভাষার কাছাকাছি রুশ ভাষা শেখার আগ্রহ বাড়ছে. এই ভাবেই সের্বিয়াতে রুশ ভাষার রেডিও স্টেশনের উদ্ভব হয়েছে, আর তখনই উদয় হয়েছে নতুন সমস্যার, খুব কম পরিস্কার রুশ ভাষায় কথা বলতে পারা সাংবাদিক পাওয়া যাচ্ছে, উল্লেখ করে ইগর গোইকোভিচ বলেছেন:

“সের্বিয়াতে আজ আমাদের যেটা সমস্যা, তা হল ঘোষক পাওয়া যাচ্ছে না, যারা রুশ ভাষায় পড়তে ও বলতে পারে, তার সঙ্গে ভাল অনুষ্ঠানও পাওয়া যাচ্ছে না. আমরা আশা করছি অনুষ্ঠান বদল করার সুবিধা ব্যবহার করে আমরা এই অসুবিধা দূর করতে পারব. আমাদের আইন এমন যে, স্থানীয় সের্বিয়ার রেডিও স্টেশন গুলি মোট সময়ের মাত্র তিরিশ শতাংশ বিদেশী ভাষায় প্রচার করতে পারে”.

কানাডার রেডিও স্টেশন “রেডিও প্লাস”, যারা অন্টারিও প্রদেশে রুশ ভাষায় প্রচার করে, তাদের মূল সমস্যা হল মহাসমুদ্র পার হয়ে রাশিয়া সম্পর্কে যে খবর পৌঁছায় তা খুবই অল্প, তাই কানাডার প্রতিনিধি কিরিল শিরোকভ বলেছেন:

“আমাদের প্রয়োজন হল রাশিয়া থেকে খবর ও জরুরী সংবাদ তত্ক্ষণাত্ পাওয়া. কোন আগে থেকে তৈরী করা অনুষ্ঠান নয়, একেবারে টাটকা খবর. কারণ আমাদের কাছে রাশিয়া থেকে যে খবর পৌঁছয়, তা খুব অল্প. বেশী করে বলা হয়, যদি কিছু বড় মাপের ঘটনা ঘটে, যেমন, মস্কো শহর ধোঁয়ায় ঢেকে যাওয়া বা লুঝকভের বিতাড়ন. আর তাজা খবর এবং সংস্কৃতি ও সামাজিক জীবনের খবর অবশ্যই যথেষ্ট পাই না”.

প্রাক্তন সোভিয়েত দেশ অঞ্চলে রুশ ভাষায় অনুষ্ঠানের কম হওয়া বেশী করে অনুভব করা হয়েছে. ইউক্রেনের হেরসন শহরের “সোফিয়া” রেডিও কোম্পানীর প্রতিনিধি আলেকজান্ডার মিরোনেঙ্কো উল্লেখ করেছেন যে, দেশের আইন অনুয়ায়ী ইউক্রেনে দেশের রেডিও স্টেশন গুলি তাদের প্রচারের শতকরা ২৫ ভাগ বিদেশী ভাষায় প্রচার করতে পারে. এই বিভাগের মধ্যে দুঃখজনক হলেও রুশ ভাষা পড়ে, তাই মিরেনেঙ্কো বলেছেন:

“হেরসন এমন একটা শহর, যেখানে রুশ সংস্কৃতির প্রভাব খুবই বেশী. এই শহর তৈরী করা হয়েছিল রুশ সাম্রাজ্যের দক্ষিণের রাজধানী হিসাবে রাজা পতিওমকিনের সময়ে. তাই এই শহরে অনেক লোক থাকেন, যাঁরা রুশ ভাষায় কথা বলেন এবং রুশ সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য মেনে চলেন. কিন্তু বিগত সময়ে আমাদের ইউক্রেনে যে সমস্ত প্রক্রিয়া চলেছে, তা আমাদের রুশ সম্বন্ধে নতুন কিছু জানতে বাধা দিয়েছে. অবশ্যই আমাদের রেডিও স্টেশনের এই রুশ ভাষার সংস্থায় যোগ দিয়ে সুবিধা হয়েছে রুশ বিশ্ব কি ভাবে বেঁচে আছে তা জানার, আর প্রভাব সৃষ্টি করতে পেরেছে, যাতে রুশ ভাষা ভুলে না যায়, উচ্চারণ ও লিখনের পদ্ধতিতে যেন ভুল না থাকে”.

আমাদের রেডিওর শ্রোতারা আরও বেশী করে রুশ ভাষায় অনুষ্ঠান শুনতে চান, এই কথা উল্লেখ করেছেন মলদাভিয়া দেশের স্বায়ত্ব শাসিত অঞ্চলের সামাজিক “রেডিও গাগাউজি” থেকে আসা প্রতিনিধি মারিয়া পারফিওনভা:

“আমরা এমন একটা দেশে থাকি যেথানে সরকারি ভাষাই তিনটে – রুশী, গাগাউজের ভাষা ও মলদাভিয়ার ভাষা. আইন অনুযায়ী রেডিও স্টেশন তিনটি ভাষাতেই একই পরিমানে প্রচার করতে বাধ্য, তাই রুশ ভাষার ভাগে পড়ে শতকরা তিরিশ ভাগ সময়. কিন্তু আমাদের লোকেরা বেশীর ভাগ সময় রুশ ভাষাতেই কথা বলে. তাই লোকেরা অবশ্যই রুশ ভাষাতে বেশী করে অনুষ্ঠান শুনতে চায়. এই উত্সবে আমাদের যোগ দেওয়ার কারণ হল যাতে আমাদের রেডিও তে রুশ ভাষার অনুষ্ঠান থাকে বেশী এবং যাতে তার গুণমান থাকে সর্ব্বোচ্চ. রুশ দেশের সরকারি রেডিও কোম্পানী “রেডিও রাশিয়া” শুধুমাত্র এই রকমের অনুষ্ঠানের যোগান দিতে পারে”.

দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক রুশ ভাষার রেডিও কোম্পানী গুলির সম্মেলনের প্রতিনিধিরা একটি বিষয়ে একমত যে, রুশ ভাষার রেডিও গুলির মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধি করার প্রয়োজন বাস্তব. এই বিষয়ে সাহায্য করতে পারে “রেডিও রাশিয়ার” উদ্যমে তৈরী নতুন ইন্টারনেট সাইট www.radiopartner.ru. এখানে রাশিয়ার ও সহযোগী দেশ গুলির রাজনীতি, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক জীবন নিয়ে অনুষ্ঠান সকলের জন্যই খোলা ভাবে পাওয়া যাচ্ছে. উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, বর্তমানে রুশ দেশের বাইরে প্রায় ৩০০টি ব্যবসায়ীক ও সামাজিক রেডিও কোম্পানী রয়েছে, যারা রুশ ভাষাতেই প্রচার করে.