রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দমিত্রি মেদভেদেভ দক্ষিণ করিল দ্বীপপুঞ্জ সফর শেষ করে মস্কোয় ফিরে এসে সোমবার কুনাশির দ্বীপে তোলা ফোটো টুইটারে বসিয়েছেন. রাষ্ট্রনেতা লেখেন, “রাষ্ট্রপতির কর্তব্য – রাশিয়ার সমস্ত অঞ্চলের বিকাশ নিয়ন্ত্রণ করা, সেই সঙ্গে সবচেয়ে প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলিরও”. এ সফর জাপানে অসন্তোষ জাগিয়েছে, যে এ সব দ্বীপের দাবি করছে. মস্কোয় এমন প্রতিক্রিয়া অগ্রহণীয় বলে অভিহিত করা হয়েছে, কারণ রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি সফর করেছেন নিজের দেশের ভূভাগ, অন্য রাষ্ট্রের নয়. দক্ষিণ কুরিল দ্বীপপুঞ্জ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ফলাফলের ভিত্তিতে সোভিয়েত ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত হয়, যার উত্তরাধিকারী হল রাশিয়া. এ দ্বীপপুঞ্জের উপর রাশিয়ার সার্বভৌমত্ব আন্তর্জাতিক বিধানিক ভিত্তিতে সূত্রবদ্ধ এবং তা সন্দেহের বাইরে. রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরোভ বলেন যে, দমিত্রি মেদভেদেভের কুরিল দ্বীপপুঞ্জ সফরে জাপানী পক্ষের প্রতিক্রিয়া অগ্রহণীয়. সোমবার এ উপলক্ষ্যে রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ডেকে পাঠানো হয়েছিল জাপানের রাষ্ট্রদূতকে. রাশিয়ার কূটনীতিজ্ঞরা আবার তাঁকে ব্যাখ্যা করেন এ ব্যাপারে মস্কোর স্থিতি.