রাশিয়াতে খুব শীঘ্রই তিন স্তরের বিপদ সঙ্কেত বিধি চালু করা হবে সন্ত্রাসের মোকাবিলা করার জন্য. রাশিয়ার সরকারের সব্বোর্চ্চ পর্যায়ের কাছ থেকে অনুমোদন পেয়ে এর মধ্যেই রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস বিরোধী পরিষদ আইন প্রণয়নের জন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করেছে. কয়েকদিনের মধ্যেই তা রাশিয়ার লোকসভার কাছে পেশ করা হতে চলেছে. রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস বিরোধী পরিষদের সভাপতির উপদেষ্টা আন্দ্রেই প্রেঝদোমস্কি এই খবর দিয়েছেন রেডিও রাশিয়াকে.  

   সন্ত্রাসের বিপদ সম্বন্ধে অনেক গুলি স্তরের সঙ্কেত বিধি ব্যবস্থা প্রয়োজনীয় এবং বাস্তব. এই ব্যবস্থা বর্তমানে সন্ত্রাস বিরোধী যে নিয়ম রয়েছে তা আধুনিকীকরণ করতে সাহায্য করে, যাতে খবর পাওয়ার মূহুর্তেই সরকারি বিভাগ গুলির ও সমাজের পারস্পরিক কাজ কর্ম সুষ্ঠভাবে করা সম্ভব হয়. এক্ষেত্রে দেশের নাগরিকদের অধিকার ও স্বাধীনতা কোন ভাবেই খর্ব করা হয় না বলে উল্লেখ করেছেন আন্দ্রেই প্রেঝদোমস্কি, তিনি বলেছেন:

   “দেশের নাগরিকদের অধিকার বা স্বার্থ খর্ব করা যেতে পারে এমন কোন রকমের আলাদা ব্যবস্থা নেওয়ার কথা হয় নি. রাশিয়াতে বর্তমানে সন্ত্রাসের বিপদ সংক্রান্ত আইন রয়েছে, সেখানেই লেখা রয়েছে জরুরী অবস্থা ঘোষণা বা সন্ত্রাস বিরোধী অপারেশন করার সম্বন্ধে, অর্থাত্ যাতায়াত করার বিষয়ে নিয়ন্ত্রণ এবং যোগাযোগের যন্ত্রপাতি ব্যবহার সম্বন্ধে. এখন এই সমস্ত ব্যবস্থাকেই নির্দিষ্ট স্তরের সন্ত্রাসের বিপদের সঙ্গে যোগ করা হতে চলেছে”.

   বিশ্বে বহু স্তরে প্রতিক্রিয়া করা ও জনসাধারণকে জানানোর জন্য সঙ্কেত ব্যবস্থা আজ প্রায় ৭০টিরও বেশী দেশে রয়েছে. প্রথমে এই ধরনের ব্যবস্থা নেওয়ার ধারণা বাস্তবে পরিনত করা হয়েছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ২০০১ সালের ১১ই সেপ্টেম্বরের ঘটনার পর. তখন ভীত মার্কিন নাগরিকেরা অভিযোগ করেছিল যে, তাদের বিভিন্ন সময়ে সন্ত্রাসের বিপদ কতটা রয়েছে জানানো হচ্ছে না.

   আমেরিকার ব্যবস্থা পাঁচটি স্তরে বিভক্ত, রাশিয়াতে বিদেশের অভিজ্ঞতাকে বিশ্লেষণ করে ঠিক করা হয়েছে যে তিনটিই যথেষ্ট. প্রতিটি স্তরের সঙ্গে যোগ করা হয়েছে সেই স্তরের বাড়তি কিছু ব্যবস্থার, যা ব্যক্তি, প্রশাসনের নিরাপত্তার বিষয়টি দেখবে. একানে নীল রঙ মানে খুব বিপদের সম্ভাবনা, হলুদ – দারুণ বিপদের সম্ভাবনা এবং লাল – সঙ্কট অবস্থা. আন্দ্রেই প্রেঝদোমস্কি আরও যোগ করেছেন:

   “এই ব্যাপারটা আমরা সাধারণতঃ রাস্তার সঙ্কেত ষেরকম ভাবে বুঝতে অভ্যস্ত, তারই খুব কাছাকাছি করা হয়েছে, লালা – যখন বিপদ খুব বেশী, সাবধান করে দেওয়ার জন্য হলুদ আর তাই আমরা নীল হলুদ আর লাল রঙকেই আমাদের দেশের লোকেদের বোঝার সুবিধার জন্য বেছে নিয়েছি”.

   দেশের জনগণের জন্য বিপদ সঙ্কেত দেওয়া হবে রেডিও এবং টেলিভিশনের মাধ্যমে, আর তার সঙ্গে থাকছে রাস্তা ও দোকানের প্লাজমা ও ফোটোডায়োড স্ক্রীণ গুলি. বিপদের সময়ে নাগরিকদের ব্যবহার বিধি আগেই প্রকাশ করা হবে. আর যদি নীল রঙের বিপদের ক্ষেত্রে লোকে খেয়াল করেছে কি না তা নিয়ে বেশী মনোযোগ না দেওয়াও হয়, তবে লাল রঙের বিপদ সঙ্কেতের সময় কোন জায়গা থেকে না বেরোনো বা কোন জায়গা তত্ক্ষণাত্ ত্যাগ করার বিষয়ে খুবই জোর দিয়ে লোককে বোঝানো হবে. এই প্রসঙ্গে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস বিরোধী পরিষদে মনে করা হয়েছে যে, জনতার মধ্যে ভীত সন্ত্রস্ত ভাব থাকবে না. ব্যাখ্যা করে বলা – থুবই বড় কাজ. তার ওপরে রাশিয়ার সমাজে, যেখানে বেশীর ভাগ লোকই সাধারন জ্ঞান সম্বন্ধে জানেন ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সংগ্রামের জন্য সব কিছু নিয়ে তৈরী.