দশ বছর আগের তুলনায় মধ্যবিত্ত রুশ লোকের ছবি ভোগের আয়নায় এখন পছন্দসই লাগছে. বেশ কয়েকটি সূচকের ক্ষেত্রে তা ইউরোপের মানের সমতূল্য হয়েছে. এই সম্বন্ধে সাক্ষী হয়েছে সংখ্যা তত্ত্বের তথ্য, যা তৈরী হয়েছে ৪৮ হাজার লোককে প্রশ্ন করার ফল হিসাবে. রাষ্ট্রীয় সামগ্রিক পরিসংখ্যান দপ্তরের প্রধান আলেকজান্ডার সুরিনভ এই অনুসন্ধানের ফল নিয়ে রেডিও রাশিয়ার সঙ্গে কথা বলেছেন.    আজকের রাশিয়া – এটা একটা মধ্যবিত্তের দেশ. গত শতকের নব্বইয়ের দশকের শেষ থেকে দশ বছর ধরে আমাদের দেশে দ্রুত হারে কমে যাচ্ছে সেই সমস্ত লোকের সংখ্যা, যাঁরা দারিদ্র সীমার নীচে রয়েছেন, বলে উল্লেখ করেছেন আলেকজান্ডার সুরিনভ.    অবশ্যই যে কোন লোক ভাবতে পারে যে সে তার ২০ বছর আগের সময়ের চেয়ে আজ খারাপ ভাবে বেঁচে আছে. কিন্তু যদি আজকের দিনের ভোগের সাধারন হিসেব করা হয় – তবে বেঁচে থাকার জন্য ন্যূনতম প্রয়োজন যাদের আছে- তাদের সংখ্যা কমে আসছে. তার সঙ্গে বলা যায় যে, বর্তমানে এই সাধারন মান আগের থেকে কয়েক গুণ বেশী হয়েছে.    জীবনের মানোন্নতির সঙ্গে পরিবর্তিত হয়ে যাচ্ছে ভোগের এবং পরিষেবার সামগ্রী গুলি: খরচের তালিকায় খাবার জিনিস ও জামা কাপড়ের পরিমান কমছে, বাড়ছে সেই সমস্ত খরচ, যার বিনিময়ে কোন হাতে ধরা যায় এমন জিনিস নেই, আর তার সঙ্গে বড় মাপের খরচ, যেমন, বাড়ী বা গাড়ী কেনা. এই দিক থেকে দেখলে রাশিয়া গত দশ বছরে টানা উন্নতি করেছে এবং ইউরোপের দেশ গুলির কাছাকাছি পৌঁছেছে. যেমন, আজকের রাশিয়াতে গাড়ীর সংখ্যা নব্বই এর দশকের তুলনায় বেড়েছে তিন গুণ. কিন্তু খাবার জিনিসের তুলনায় অন্যান্য জিনিসের খরচ বেড়েছে মাত্র চার শতাংশ বেশী. তুলনা করার জন্য বলা যেতে পারে যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাধারন পরিবার তাদের বাজেটের মাত্র ছয় শতাংশের সামান্য বেশী খাওয়ার জিনিস কিনতে খরচ করে থাকে.    আলেকজান্ডার সুরিনভ উল্লেখ করেছেন যে, গত দশ বছরে রুশ লোকেদের খাওয়ার জিনিসের গুণ মান ভালর দিকেই হয়েছে.    তা আরও ঠিক হয়েছে, স্বাস্থ্য সম্মত হয়েছে, আর বেশী করে হয়েছে ইউরোপের উন্নত দেশ গুলিতে আমরা যে রকমের খাওয়ার জিনিস দেখতে পাই, তাদের রকমেরই. ফল ও সব্জীর পরিমান খাওয়ার জিনিসের তালিকায় বেড়েছে, কম হয়েছে চিনি, রুটি, আলু, বেড়েছে মাছ.    আরও একটি ইতিবাচক পরিবর্তন হয়েছে – মদের পরিমান কমেছে. এই অর্থে আমরা আনন্দের সঙ্গে প্রথম সারির জায়গা ছেড়ে দিয়েছি, সেই সমস্ত দেশকে যেমন, এস্তোনিয়া, ফ্রান্স, চেখ, জার্মানী ও গ্রেট ব্রিটেন কে. ধূমপান ও রাশিয়ার লোকেরা কম করছে, তিন বছর আগের তুলনায়. তা স্বত্ত্বেও রাশিয়া এই সূচকে অন্যান্য দেশের তুলনায় খুব একটা ভাল দিকে আলাদা হতে পারে নি. আমাদের দেশে পুরুষ মানুষেরা বিশ্বের সব দেশের চেয়ে বেশী ধূমপান করে – শতকরা ৭০ ভাগ আর তুলনা করার জন্য বলা যেতে পারে যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ধূমপান করে শতকরা পঁচিশ ভাগ পুরুষ মানুষ.    রুশ লোকেদের ভোগের ছবিতে অবশ্যই অর্থনৈতিক সঙ্কট প্রভাব ফেলেছে. তাঁরা নিজেদের সবচেয়ে ভাল অনুভব করতে পেরেছিল ২০০৭ সালে. পরবর্তী কালে পরিষেবা ভোগের পরিমান কমেছে – তার সূচক দশ পয়েন্ট নেমে গিয়েছিল. রাশিয়ার লোকেরা রেস্তোরাঁ, থিয়েটার ও সিনেমা দেখতে যাওয়া কমিয়েছে. আর যোগাযোগের ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে, সত্যিকারের একটা বিপ্লব ঘটে গেছে: বাজারের এই বিভাগটি তিন গুণ বেড়েছে.    আলেকজান্ডার সুরিনভ উল্লেখ করেছেন যে, অবশ্যই সরকারি পরিসংখ্যান সম্পূর্ণ সত্য তথ্য নয়, সত্যের কাছাকাছি মাত্র. সেই অর্থে মাঝারি রুশ লোক বলে বাস্তবে কেউ নেই. এটা – যেমন হাসপাতালে রোগী দের দেহের তাপমাত্রা পরিমাপ করে কারও ৩৯ ডিগ্রী, কারও ৩৬, ৬ ডিগ্রী দেখা গেল, আর মাঝামাঝি হিসাবে ৩৭, ৮ ডিগ্রী. তা স্বত্ত্বেও এই ধরনের তথ্যের উপরেই ভিত্তি করে সারা পৃথিবী চলছে. আর তা থেকেই দেখা যায়, কোন দেশের সাধারন লোকেরা কি ভাবে বেঁচে রয়েছে. সব দিক বিচার করে  দেখা গেল যে, রুশ লোকেরা দশ বছর আগের তুলনায় একেবারে খুব ভাল না হলেও আগের থেকে ভালই আছেন.