ব্যাংককের জেলে দু বছরের উপর বন্দী ভিক্তর বুতের তালিবান আন্দোলনের সাথে কখনও কোনো কারবারী সম্পর্ক ছিল না. এ সম্বন্ধে বলা হয়েছে খোলা চিঠিতে, যা তাঁর স্ত্রী অর্পণ করেছেন থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী অভিসিত ভেতচাচিভকে. এ চিঠিতে বুতের স্ত্রী প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছেন রাশিয়ার ব্যবসায়ীকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হাত থেকে বাঁচাতে. তিনি বলেন যে, তাঁর স্বামী ১৯৯৫ সালে আফগানিস্তানে দখলিত রাশিয়ার ইল-৭৬ মার্কা বিমানের কর্মীদের মুক্তির আয়োজক, সঙ্গতিসাধক এবং পৃষ্ঠপোষক ছিলেন. এ কথা জানা আছে যে, মস্কো বুতের সমর্থনে মত প্রকাশ করেছে এ কথা ঘোষণা করে যে, মার্কিনীদের অনুরোধে তার গ্রেপ্তার প্ররোচিত ছিল অপ্রমাণিত অভিযোগের দ্বারা এবং তা রাজনৈতিক চরিত্র ধারণ করে. থাইল্যান্ডের আপিল আদালত গত আগস্টে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হাতে তাকে সমর্পণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যেখানে বুতের বিরুদ্ধে বেআইনী অস্ত্র ব্যবসার অভিযোগ তোলা হয়েছে.