QS কোম্পানী সম্পাদিত বিশ্বের সেরা দুশো বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকাতে শুধু রাশিয়ার মস্কো রাষ্ট্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়কে জায়গা দেওয়া হয়েছে – ৯৩ নম্বর করে, আর রয়েছে ২টি চীনের বিশ্ব বিদ্যালয়. বাকী বেশীর ভাগ সব জায়গা জুড়ে রয়েছে ইংরাজী ভাষায় পড়ানো হয় এমন সব বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম. গ্রেট ব্রিটেন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ববিদ্যালয় গুলি প্রথম কুড়িটির সব কটিতেই, তাদের পরে ইউরোপ, কানাডা ও অস্ট্রেলিয়ার নাম.    QS কোম্পানীর রেটিং আগে বিখ্যাত ছিল টাইমস সংবাদপত্রের বিশেষ সংযোজন হিসাবে. গত বছরে তাদের প্রতি গভীর অভিযোগ ওঠাতে তাদের রেটিং এখন বের হয়েছে স্বাধীন ভাবে, আর টাইমস তৈরী করছে এই রেটিং অন্য কোম্পানীর সহায়তায়. তাদের ফলও কিছুদিন আগে দেখা গিয়েছে, সেখানে রাশিয়ার কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের নামই নেই. প্রথম পঞ্চাশ বিশ্ববিদ্যালয় আবারও ইউরোপ ও আমেরিকার, শুধু ব্যতিক্রম বেইজিং বিশ্ববিদ্যালয়, যাকে ৩৭ নম্বরে জায়গা দেওয়া হয়েছে.    দুটি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেটিং বহু সূচকের উপর ভিত্তি করে তৈরী করা হয়েছে. কিন্তু প্রধান সূচক – কতবার উল্লেখ করা হয়েছে তার উপরে. এই সূচকের উপর শতকরা তিরিশ ভাগ নির্ভর করা হয়েছে, তার অর্থ হল, বাছাই করার সময়ে একের তৃতীয়াংশ নির্ভর করছে, কতবার এই বিশ্ববিদ্যালয়গুলির বৈজ্ঞানিক কাজকর্মের উল্লেখ প্রকাশিত হয়েছে. কিন্তু মনে রাখতে হবে, এখানে কথা হচ্ছে শুধু ইংরাজী ভাষাতে কাজকর্মের কথা, যা শুধু ইংরাজী পত্রিকাতেই বার হয়.    বিগত কিছু কাল ধরে রাশিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় গুলিকে রেটিং থেকে বার করে দেওয়া হয়েছে, রাশিয়ার এই বিশ্ববিদ্যালয় গুলির প্রধানেরা ঘোষণা করেছেন যে, তাঁরা QS ও টাইমসের রেটিংয়ে সন্তুষ্ট নন. গত বছরে তো স্ক্যাণ্ডাল হয়েছিল. রাশিয়ার রেক্টরেরা রেটিং যারা করেছেন তাদের পদ্ধতিকেই সঠিক বলেন নি, যার ফলে ইংরাজী ভাষার দেশগুলির প্রতি খুব বেশী রকমের পক্ষ নেওয়া হয়েছিল.আর সেটা ঠিকও কারণ সেগুলি ছিল শুধু আমেরিকা ও ব্রিটেনের বিশ্ববিদ্যালয়.    বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজের সূচক সবসময়েই কিছুটা বদলে দেওয়া যেতে পারে, যাতে নিজেদের পছন্দ মত বিশ্ববিদ্যালয়কে পছন্দের জায়গা দেওয়া যায়, বলেছেন শিক্ষা বিষয়ে রাশিয়ার লোকসভার পরিষদের সদস্য গাঝিমেত সাফারালিয়েভ:    "তারাই চালাকি করে, যারা এই সব রেটিং বানায়, কারণ সবই একটা বিষয়ের উপর নির্ভর করে তৈরী, আর কারা তার বিচার করে?  আর দ্বিতীয় বিষয় হল – কি সূচককে সবচেয়ে বেশী করে জোর দেওয়া হচ্ছে, কি করে একটা বা অন্য আরেকটা বিশ্ববিদ্যালয়কে রেটিংয়ে কোন জায়গা দেওয়া হচ্ছে. যদি তাদের মত "সঠিক" ভাবে এই প্রশ্নের সমাধান করা হয়, তবে যে কোন খুব একটা ভাল নয় এমন বিশ্ববিদ্যালয়কেই যে কোন ওপরের জায়গা দেওয়া যেতে পারে. আমাদের রেটিংয়ে সূচক এক ধরনের আর আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে – অন্যরকম".    আরও একটি প্রভাবশালী আন্তর্জাতিক রেটিং – সাংহাই বিশ্ববিদ্যালয়ের রেটিংয়ে মস্কোর রাষ্ট্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়কে জায়গা দেওয়া হয়েছে বিশ্বে ৭৪ তম ও ইউরোপে ২৩ তম. এটা বিশ্বের পাঁচশ বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশোনার মানের রেটিং, যেখানে কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মীদের বৈজ্ঞানিক কাজকর্মের অবদান বিচার করা হয়ে থাকে, যা হিসাব করা হয় নোবেল প্রাইজ পাওয়া বা অন্য সব পুরস্কারের উপরে, আর তার সঙ্গে যোগ করা হয় বৈজ্ঞানিক পত্রিকায় প্রকাশনার পরিমান. এই রেটিংকেও সমালোচনা করা হয়েছে, কিন্তু এবারে তা করা হয়েছে ইউরোপে, যেখানে বাল হয়েছে মূল্যায়ণ নৈর্ব্যক্তিক হয় নি. তাতে আস্চর্য হওয়ার কিছু নেই, কারণ চীন – ইংরাজী ভাষী দেশ নয়, আর তাদের বিশ্ববিদ্যালয় চয়নের সূচক অবশ্যই আলাদা. এই সত্যিকারের আন্তর্জাতিক রেটিংয়ে পড়ে সেই সব বিশ্ববিদ্যালয়, যেখানে ইংরাজী ভাষাতেই শুধু পড়ানো হয় না.