বিশ্ব অর্থনীতির সঙ্কট থেকে বের হওয়ার গতি আবার ধীরে হয়েছে. এই রকম একটি সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন অর্থনৈতিক উন্নয়নের সহযোগিতা সংস্থার বিশেষজ্ঞরা, যেখানে সবচেয়ে উন্নত ৩৩টি দেশ যুক্ত আছে.    সবচেয়ে বেশী গুরুত্বপূর্ণ বিপদের আশংকা রয়েছে বড় সাতটি অর্থনৈতিক ভাবে উন্নত দেশের থেকে – মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, কানাডা, গ্রেট ব্রিটেন, ইতালি, জার্মানী ও ফ্রান্স. এই বছরে দেশগুলির অর্থনৈতিক উন্নয়নের হার শতকরা আড়াই ভাগ থেকে কমিয়ে এর মধ্যেই দেড় ভাগ করা হয়েছে. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষেত্রে এই সূচক আরও খারাপ – শতকরা ১ ভাগের সামান্য বেশী. বর্তমান পরিস্থিতি থেকে বের হওয়ার উপায় অর্থনৈতিক উন্নয়নের সহযোগিতা সংস্থার বিশেষজ্ঞদের মতে মাত্র একটিই আছে: দেশ গুলির অর্থনীতিকে আরও ভরতুকি দেওয়া – অন্ততঃ আরও কয়েক মাস. বিশ্ব অর্থনীতির নতুন সংকোচন হলে নেতৃত্বে থাকা দেশ গুলির রিজার্ভ ব্যাঙ্ক গুলি শেয়ার কেনা শুরু করতে বাধ্য ও ঋণের ক্ষেত্রে সুদের হার শূণ্য করতে বাধ্য, আর সরকার গুলি – বাজেট কমানোর সময়কে যথাসম্ভব পেছিয়ে দিতে বাধ্য. অর্থনৈতিক উন্নয়নের সহযোগিতা সংস্থার বিশেষজ্ঞদের সিদ্ধান্ত আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলও মেনে নিয়েছে. তহবিল উল্লেখ করেছে যে, বহু দেশের সরকারই ঋণ সম্বন্ধে কোন ব্যবস্থা নেয় নি এবং বিনিয়োগের বাজারে কোন ভাল হওয়ার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না. কিন্তু এক্ষেত্রে প্রধান হল – আমেরিকার বসত বাড়ীর বাজারে আবার ধ্বস নামার সম্ভাবনা.    রাশিয়ার অর্থনীতিবিদ ইগর নিকোলায়েভ মনে করেন যে পরিস্থিতি খারাপ হওয়ার জন্য সমস্ত রকমের সম্ভাবনা রয়েছে, তিনি বলেছেন:    "এই ধীর গতি এক সুদূর প্রসারী মন্দাতে পরিনত হতে পারে, তাহলে আমরা আগামী কয়েক বছর উন্নতির হার দেখবো শূণ্য. অথবা নতুন অর্থনৈতিক কাঠামোতে অভিযোজনের স্বাভাবিক গতি, যা বিশ্বের দেশ গুলি তৈরী করতে চলেছে".    যদিও বিশেষজ্ঞরা মনে করেছেন যে, অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে ভরতুকি দেওয়ার পরিকল্পনাও সমস্ত ক্ষেত্রে সহজ হয় নি. যেমন, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল তাদের পক্ষ থেকে দেশের আভ্যন্তরীন চাহিদা বাড়ানোর কথা বলেছে, তার উপরে বিশ্বের অর্থনীতি বর্তমানে ২০০৮ সালের সঙ্কটের কারণে খুবই দুর্বল. নতুন আশা সঞ্চারের জন্য পরিকল্পনা গুলিও এখনও তৈরী করা বাকী রয়েছে, তার পরে সেগুলি কে বাস্তবায়িত করার কথা.    রাশিয়াতে সরকারের ভরতুকি দেওয়ার ফল ভাল হয়েছে, ব্যাঙ্ক ব্যবস্থা একটা স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে পেরেছে, গাড়ী তৈরীর শিল্প আবার করে বেঁচে উঠেছে, এই ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছে সরকারের সামাজিক পরিকল্পনা গুলি. এর পর সরকারের পক্ষ থেকে অর্থনীতিকে চাঙ্গা করার কাজ হবে অন্য স্তরে, রাশিয়া বাণিজ্য পরামর্শ সংবাদ সংস্থার বিশ্লেষণ দপ্তরের বিশেষজ্ঞ আলেকজান্ডার ইয়াকভলেভ জোর দিয়ে বলেছেন:    "সরকারের উচিত্ হবে বিনিয়োগ কারী হিসাবে কাজ করার. সরকারের বোঝা উচিত্ যে, বিনিয়োগের ক্ষেত্রে কিছু প্রাথমিক ক্ষেত্র রয়েছে, এটা পরিকাঠামো তৈরী করা সংক্রান্ত, উদ্ভাবনী প্রযুক্তির উন্নয়নের ক্ষেত্রে. এই ক্ষেত্রে বিজ্ঞান ও শিক্ষার প্রসারও আছে. দেশের প্রতিরক্ষা উন্নতি করার বিষয় ও সামরিক শিল্পের ক্ষেত্রেও সরকারের বিনিয়োগ প্রয়োজন".    দেশের পরিবেশ সংরক্ষণের ক্ষেত্রেও যে কিছু অর্থ ব্যয় করা হবে, তা বাদ দেওয়া যায় না. এখানে নতুন করে বন তৈরী করা এবং আধুনিক ভাবে জল সেচের ব্যবস্থা করা হতে পারে. বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে, বর্তমানে অর্থনীতিকে চাঙ্গা করা যেতে পারে শুধু নির্দিষ্ট প্রশ্নের সমাধান করেই, তার জন্য সমস্ত অর্থনীতিতে প্রচুর অর্থ ঢেলে দেওয়ার মানে হয় না.