পৃথক পৃথক রাষ্ট্রের সশস্ত্র বাহিনী অথবা অন্য কোনো বাহিনীর সৈনিকরা রাষ্ট্রসঙ্ঘের মার্কা দেওয়া নীল হেলমেট ব্যবহার করতে পারবে না, যেমন তা করেছে ভারতীয় পক্ষ বিগত কয়েক দিনে কাশ্মীরে. বুধবার নিউ-ইয়র্কে রাষ্ট্রসঙ্ঘের সদর দপ্তরে এক ব্রিফিংয়ে এ সম্বন্ধে বলেছেন রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সম্পাদকের সরকারী প্রতিনিধি মার্টিন নেসিরকি. ভারতে এবং পাকিস্তানে রাষ্ট্রসঙ্ঘের সামরিক পর্যবেক্ষক দলের তথ্য অনুযায়ী, যারা কাশ্মীরে অগ্নি সংবরণের চুক্তি পালনের প্রতি লক্ষ্য রাথছে, ভারতের এক বিশেষ বাহিনীর প্রায় ৩০০ জন কর্মী গত সপ্তাহে কাশ্মীরে এসেছে স্থানীয় বাসিন্দাদের ব্যাপক আন্দোলন দমন করার উদ্দেশ্যে, যাদের পরনে ছিল রাষ্ট্রসঙ্ঘের প্রতীক সম্বলিত সরঞ্জাম, সেই সঙ্গে নীল হেলমেটও. কাশ্মীরে ভারতীয় বাহিনীর সরকারী প্রতিনিধি ব্যাখ্যা করে বলেন যে, এই সামরিক কর্মীরা রাষ্ট্রসঙ্ঘের পতাকাতলে পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় সামরিক সেবা শেষ করে সোজা এসেছে. তাঁর কথায়, ভারতে সর্বত্র সৈনিকরা এ সব সরঞ্জাম ব্যবহার করে থাকে, খারণ তা ভাল অবস্থায় রয়েছে এবং তারা একে কোনো রকম নিয়ম লঙ্ঘন বলে মনে করে না. রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সম্পাদকের প্রতিনিধির কথায়, রাষ্ট্রসঙ্ঘের কর্মীরা ভারতীয় কর্তৃপক্ষকে ইতিমধ্যেই জানিয়েছে ভারতীয় বাহিনীর দ্বারা রাষ্ট্রসঙ্ঘের প্রতীক ব্যবহার না করা সম্পর্কে. কাশ্মীরে রাষ্ট্রসঙ্ঘের সামরিক পর্যবেক্ষকদলের উত্স জানিয়েছে যে, ভারতের কর্তৃপক্ষ এ সমস্যা মীমাংসার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে.