রাশিয়ার কিশোর দল সিঙ্গাপুর চলেছে ১৪ থেকে ২৬শে আগষ্ট অনুষ্ঠিতব্য প্রথম কিশোর অলিম্পিক প্রতিযোগিতায় যোগ দিতে, দলে প্রায় ১০০ খেলোয়াড় ও সকলেই চায় ভাল ফল দেখাতে.    পৃথিবীর ইতিহাসে প্রথম কিশোর অলিম্পিকে অবশ্য সব কিছুই হবে বড়দের মতই. অলিম্পিক আগুণ, অলিম্পিক প্রতিজ্ঞা সহ পাঁচটি মহাদেশের প্রায় ৪ হাজার অ্যাথলেট তিরিশটি বিভাগে প্রতিযোগিতা করবে. তফাত শুধু এই টুকুই যে, এদের কারোরই বয়স ১৮ বছরের বেশী না, যদিও এদের অনেকেই এর মধ্যেই বহু উপাধি পেয়েছে.    রাশিয়ার দলের মনোভাব যুযুধান বা রনং দেহি. তারা আশা করছে যে, অ্যাথলেটিকস্, মল্ল যুদ্ধ, বক্সিং, শ্যুটিং, আধুনিক পেন্টাথলন, ফেন্সিং এই সবেতেই পদক পাবে. সাঁতারুদের মধ্যে সবচেয়ে বেশী আশা করা হয়েছে তিন বার ২০১০ সালের ইউরোপীয় যুব প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন আন্তন লবানভের উপর. ইউরোপ ২০১০ প্রতিযোগিতায় জিমন্যাসটিকসের কিশোরীদের মধ্যে পদক প্রাপ্তা আলেকসান্দ্রা মেরকুলভা রাশিয়ার হয়ে নামছেন.    কিশোরদের জন্য জিমন্যাসটিকসের এই প্রতিযোগিতা হয়ত রাশিয়ার পক্ষ থেকে কাউকে ছাড়াই হয়ে যেত, কারণ এপ্রিল মাসে আইসল্যান্ডে আগ্নেয় গিরির উদ্গীরণে রাশিয়ার দলের আর বার্মিংহ্যামে ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়নশীপে যাওয়া হয়ে ওঠে নি, সেখানেই সিঙ্গাপুরের জন্য বাছাই পর্ব সারা হয়েছিল. পরে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি রাশিয়াকে একটি জায়গা বিশেষ করে দিয়েছে প্রতিযোগিতায় যোগ দেওয়ার জন্য. কে এই অলিম্পিকে যাবে তা ঠিক করার জন্য মস্কোতে আলাদা করে প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছিল, সেখানে সবচেয়ে শক্তিশালী জিমন্যাস্ট বলে ঠিক হয়েছে দানিল কাজাচকোভ.    এখন সব উদ্বেগ ও দুশ্চিন্তাকে পিছনে ফেলে কিশোর খেলোয়াড়দের একটাই কাজ – শুরুর আগের সমস্ত উত্তেজনা কমিয়ে ফেলা. দেশের জাতীয় অলিম্পিক কমিটির চেয়ারম্যান আলেকজান্ডার জুকভ বলেছেন যে, "তোমরা মোটেও ভয় পেও না, সবার আগে যেটা মনে রেখো, তা হল দেশে তোমাদের বয়সী লক্ষাধিক কিশোর কিশোরী তোমাদের জন্য আছে, আমরা সবাই তোমাদের জন্য চিন্তা করবে. কিন্তু সবাই জানি যে, তোমরা ভাল ফল করবেই.    এই কিশোর অলিম্পিক গেমস – তোমাদের প্রথম পদক্ষেপ. আমি বিশ্বাস করি যে অনেকেই চ্যাম্পিয়ন হবে আর "বড়" খেলাতে তোমাদের জয় হোক এই শুভ কামনা করি"!