রাশিয়ায় দাবানলের ফলে নিহতদের সংখ্যা বেড়েছে, সরকারী তথ্য অনুযায়ী, ৫২ জন পর্যন্ত. দেশের ইউরোপীয় অংশে আগুনে ধ্বংস হয়েছে প্রায় ২ হাজার বাড়ি, গৃহহারা হয়েছে সাড়ে ৩ হাজার লোক. বিশেষ করে জটিল পরিস্থিতি গড়ে উঠেছে বেলগোরদ, ভরোনেঝ. ইভানোভো, লিপেত্স্ক, মস্কো, নিঝেগোরদ, রিয়াজান ও তম্বোভ প্রদেশে এবং মর্দোভিয়া প্রজাতন্ত্রে. বিপর্যয় নিরসন মন্ত্রণালয় আগুন নেভানোর কাজে স্বেচ্ছাসেবকদের আহ্বান জানিয়েছে. সৈনিক ও বিমান বাহিনী ইতিমধ্যে এ কাজে যোগ দিয়েছে. শুক্রবার ঘন ধোঁয়াশায় ঢেকে গিয়েছিল মস্কো ও তার আশপাশের এলাকা. প্রতিকূল একোলজিক্যাল পরিস্থিতির জন্য অ্যাম্বুলেন্সের ডাক্তারদের ডাকার সংখ্যা অনেক বেড়েছে. পশ্চিমী কূটনীতিজ্ঞরা মস্কো ছেড়ে যাওয়ার চেষ্টা করছেন. বিশেষ করে, জার্মানি তার দূতাবাস ও কনস্যুল বিভাগ বন্ধ রেখেছে. অস্ট্রিয়া, পোল্যান্ড ও কানাডা নিজের কূটনৈতিক কর্মীদের একাংশ এবং তাদের পরিবারগুলিকে সাময়িকভাবে ফিরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে. কিছু কিছু রাষ্ট্র, বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স ও বুলগেরিয়া নিজেদের নাগরিকদের আহ্বান জানাচ্ছে রাশিয়ার সেই সব অঞ্চলে যাত্রা এড়াতে, যেখানে পরিস্থিতি সঙ্কটজনক. ১১ই আগস্টের জন্য নির্ধারিত রাশিয়া ও বুলগেরিয়ার মাঝে বন্ধুসুলভ ফুটবল ম্যাচ মস্কো থেকে সাঙ্কত-পিতারবুর্গে স্থানান্তরিত করা হয়েছে.