রাজধানীর নববিবাহিতদের জন্য এই অস্বাভাবিক গরমের দিন গুলিতে মস্কোর বরফের প্রাসাদ এক দারুণ আকর্ষণীয় জায়গায় পরিণত হয়েছে. যখন শহরে প্রায় দুই মাস ধরে থার্মোমিটারের পারা ৪০ ডিগ্রী ছুঁয়ে রয়েছে, তখন যেখানে সাধারণতঃ বিয়ের পরেই সবাই যায়, সেই রেড স্কোয়ার বা লেনিন হিল (ভরোবিয়েভি গোরি) তেমন টানছে না, যতটা টানছে বরফের প্রাসাদ.রাশিয়ার বরফের স্থাপত্যের প্রাসাদ – যা সরকারি ভাবে মস্কোর বরফের যাদুঘর কে বলা হয়ে থাকে, তা একটা সত্যিকারের রূপকথার দেশ. প্রায় ৩০০ স্কোয়ার মিটারের বেশী জায়গা জুড়ে ৯০ টন বরফ দিয়ে বানানো রয়েছে ৭০০টিরও বেশী বরফের মূর্তি. তার মধ্যে রুশ দেশের রূপকথার সব চরিত্র – যেমন, এমিল ও বান মাছ, রাজ পুত্র ইভান ও সুন্দরী ভাসিলিসা ধূসর রঙের নেকড়ে বাঘে চড়া, এমনকি ৩০ সেন্টিমিটার লম্বা বরফের মশা.এই বরফের বাড়ীতে সম্রাজ্ঞী আন্না ইওয়ানোভনা ১৭৪০ সালে তৈরী যে সিংহাসনে বসতেন, সেই রকমের দেখতে বরফের তৈরী সিংহাসনে বিয়ের কনেরা বসতে পছন্দ করে. এখানে আরও আছে অন্য সব দারুণ দেখবার মতো জিনিস. রাশিয়ার বরফ স্থাপত্যের যাদুঘরের প্রতিনিধি ইকাতেরিনা শেন্নিকোভা বলেছেন:"আমাদের কাছেই একমাত্র বিশেষ প্রযুক্তি ব্যবহার করে একেবারে টাটকা ফুল ফল বরফের মধ্যে রাখার ব্যবস্থা রয়েছে. অনেকেই প্রশ্ন করেছেন যে, এগুলি কি সত্যই আসল? মনে করেছেন বোধহয় আয়নার কৌশলে তৈরী করা হয়েছে. আসলে প্রতিটি স্থাপত্যই এখানে মৌলিক, আর এখানে আলোর খেলা ও সুন্দর সঙ্গীতের মূর্চ্ছনা দ্রষ্টব্য কে একেবারে রূপকথায় পরিনত করে, লোকে বাধ্য হয় নিজের জন্য কোন মানত করতে".এই বছরে নববিবাহিতদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করা হয়েছে, তাদেরকে বরফের কিছু একটা বানাতে দেওয়া হচ্ছে. বেশীর ভাগই বরফের বড় হৃদয়, সবাই অবশ্য বানাতে পারে না, তাই এখানে স্থপতি রয়েছেন যিনি সাহায্য করেন. ইকাতেরিনা শেন্নিকোভা বলেছেন:"যখন ব্যাপারটা হার্টের মত আকার নেয়, তখন নববিবাহিতদের তার উপর নিজেদের নাম লিখতে দেওয়া হয়, সব মিলিয়ে খুব সুন্দর একটা জিনিস তৈরী হয়, ফোটো ওঠে দারুণ সুন্দর. এটা মনে রাখার মতো একটা ঘটনা, অনেকেই বরফের হৃদয় সঙ্গে করে নিয়ে যায়".কিন্তু সকলে এখানে ঢোকার জন্য আবশ্যিক বিশেষ ধরনের পোষাক পরতে চায় না, রাস্তার অসম্ভব গরমের পর এমনিতেই ভাল লাগে, তবু পোষাক না পরলে ঢুকতে দেওয়া হয় না. কারণ তা না হলে বরফের মূর্তি সব গলে যাবে, এই লোকেদের গায়ের গরম থেকে, তাছাড়া ঠাণ্ডায় অসুখ হওয়াও অসম্ভব নয়. শেন্নিকোভা তাই বলেছেন:"আমরা এখন জায়গা ঠাণ্ডা রাখার জন্য আরো ব্যবস্থা নিয়েছি, এখানে সারাক্ষণ মাইনাস ৮ ডিগ্রী রাখতে হয়, প্রায়ই লোকের ভীড়ে তাপমাত্রা বেড়ে মাইনাস তিন অবধি হয়ে যায়, তখন সাময়িক ভাবে প্রদর্শনী বন্ধ রাখতে হয়. তবে আমরা এই প্রদর্শনী বন্ধ রাখব না, যাতে সকলেই এটা এই গরমেই দেখতে পারে".এখানে যে বরফ ব্যবহার করা হয়েছে মূর্তি বানাতে, তা কারখানাতে তৈরী করা, তাই সাধারন নদীতে জমা বরফের মত তাতে কোন বুদ্বুদ বা চিড় ধরা জায়গা নেই, এ দিয়ে মূর্তি বানানো যায় একেবারে অনুপম. এই প্রদর্শনীতে বর্তমানে বরফের স্যুভেনির কিনতে পাওয়া যাচ্ছে. সবচেয়ে জনপ্রিয় হয়েছে শ্যাম্পেনের বোতল রাখার জন্য বালতি, প্রায় চার ঘন্টা ধরে গলতে সময় লাগে রাস্তায় থাকলে, আর কোন ঘরের ভেতরে লাগে গলতে সময় লাগে পাঁচ ছয় ঘন্টা. আর যারা খুব রোমান্টিক প্রকৃতির তাদের জন্য রয়েছে বরফের ছোট্ট সিন্দুক, লোকে তার ভেতরে মানত করে চিরকুটে লিখে রাখে. প্রদর্শনীর আয়োজকেরা বলেছেন এই মানতের কামনা ফলতে বাধ্য.